ঢাকা , রবিবার, ১৪ জুলাই ২০২৪, ৩০ আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
সংবাদ শিরোনাম
Logo ইতালিতে ইদ্রিস ফরাজিকে নাগরিক সংবর্ধনা প্রদান Logo রেললাইনে ছবি তুলতে গিয়ে ট্রেনের ধাক্কায় মা ও মেয়ে নিহত Logo দুই বঙ্গকন্যা ব্রিটিশ মন্ত্রীসভায় স্থান পাওয়াতে বঙ্গবন্ধু লেখক সাংবাদিক ফোরামের আনন্দ সভা ও মিষ্টি বিতরন Logo স্মার্ট বাংলাদেশ গঠনে বাংলাদেশ স্কাউটস হবে আলোকবর্তিকাঃ -এলজিআরডি প্রতিমন্ত্রী Logo বাঘায় ৬০০ (ছয়শত) পিচ ইয়াবা ট্যাবলেট সহ রাজিব গ্রেফতার Logo গোয়ালন্দে চরমপন্থী দলের সদস্যকে পিটিয়ে হত্যা Logo মাছের উপজেলায় মাছ নেই Logo কুষ্টিয়ায় ব্যবসায়ীকে কুপিয়ে হত্যা Logo নড়াইলের স্মার্ট লোহাগড়া গড়ার লক্ষ্যে সৌন্দর্যবর্ধন কর্মসুচির উদ্বোধন Logo স্থানীয় সরকার প্রকৌশল অধিদপ্তর এলজিইডির উদ্যোগে চেক ও সনদপত্র বিতরণ অনুষ্ঠিত
প্রতিনিধি নিয়োগ
দৈনিক সময়ের প্রত্যাশা পত্রিকার জন্য সারা দেশে জেলা ও উপজেলা পর্যায়ে প্রতিনিধি নিয়োগ করা হচ্ছে। আপনি আপনার এলাকায় সাংবাদিকতা পেশায় আগ্রহী হলে যোগাযোগ করুন।

গংগাচড়ায় ঘাঘট নদীর ভাঙ্গনে দিশাহারা গ্রামবাসী

রংপুর জেলার গংগাচড়া উপজেলায় ভাঙছে ঘাঘট নদী। এ নদীর ভাঙ্গনে দিশেহারা হয়ে পড়েছে গংগাচড়া উপজেলার বড়বিল ইউনিয়নের ৯নং ওয়ার্ডের ঘাঘটটারির গ্রামবাসী। নদীর অব্যাহত ভাঙ্গনে ইতিমধ্যেই বিলীন হয়েছে কৃষকের কয়েক একর আবাদি জমি ও বসতবাড়ি। ভাঙ্গন রোধে দ্রুত কার্যকরী ব্যবস্থা না নিলে যে কোন মূহুর্তে গ্রামটি নিশ্চিহ্ন হয়ে পড়ার আশঙ্কা করছেন স্থানীয়রা।
সরেজমিনে দেখা গেছে, বড়বিল ইউনিয়নের ৯নং ওয়ার্ডের  ঘাঘটটারি গ্রামের উপর দিয়ে প্রবাহিত ঘাঘট নদীর ভাঙ্গনে কৃষকদের কয়েক একর জমি নদী গর্ভে চলে গেছে। বিলীন হতে বসেছে আবাদি জমি, মসজিদ, বসতবাড়ি । এতে এই গ্রামের মানুষের মধ্যে নদী ভাঙ্গন আতঙ্ক দেখা দিয়েছে। স্থানীয়রা জানান, গত বর্ষা মৌসুমে ঘাঘটের এই ভাঙ্গন তীব্র আকার ধারন করেছিল, বর্তমানেও তা অব্যাহত রয়েছে। দ্রুত নদী ভাঙ্গন রোধে কোন কার্যকরী ব্যবস্থা না নেয়া হলে ভাঙ্গন আরও বাড়ছে। ক্ষতিগ্রস্ত হবে এখানকার মানুষেরা।
বড়বিল ইউনিয়নের ৯নং ওয়ার্ডের ঘাঘটটারি গ্রামের কৃষক আজিজুল মিয়া জানান, ইতোমধ্যে গ্রামের বেশ কয়েকজন কৃষককের আবাদি জমি ঘাঘটের গর্ভে চলে গেছে। তারা শেষ অবলম্বনটুকু হারিয়ে বর্তমানে মানবেতর জীবন যাপন করছে।
এজন্য ভাঙ্গন রোধে দ্রুত কার্যকরী ব্যবস্থা না নিলে যে কোন মূহুর্তে নিশ্চিহ্ন হয়ে পড়ার আশঙ্কা রয়েছে। আমেনা বেগম বলেন, ‘আমাদের আবাদি জমি ও ঘাঘট নদীতে বিলীন হয়েছে। শেষ সম্বল বসতভিটাও চলে গেছে নদীর উদরে। ৩টি ঘরের একটি তিস্তায় ভেসে গেছে।
দুইটি ঘর রেখেছে তাও যখন তখন বিলিন হয়ে যেতে পারে। ঘাঘটটারি গ্রামের মালেক মিয়া বলেন, গত তিনদিন ধরে বন্যার পানিতে কষ্ট করলাম। নদীর পানি নেমে যাওয়ায় এখন ভাঙ্গন আতঙ্কে রয়েছি।উপজেলা নির্বাহী অফিসার নাহিদ তামান্না বলেন, জরুরি ভাঙন রক্ষার জন্য পানি উন্নয়ন বোর্ডের রংপুর নির্বাহী প্রকৌশলীকে জানিয়েছি তিনি ব্যবস্থা নেয়ার কথা জানিয়েছেন।
পানি উন্নয়ন বোর্ডের রংপুর নির্বাহী প্রকৌশলী মোঃ রবিউল ইসলাম বলেন, আগামীকাল আমাদের টিম পরিদর্শন করে জরুরি ভাবে ব্যবস্হা গ্রহন করবে।
Tag :
এই অথরের আরো সংবাদ দেখুন

জনপ্রিয় সংবাদ

ইতালিতে ইদ্রিস ফরাজিকে নাগরিক সংবর্ধনা প্রদান

error: Content is protected !!

গংগাচড়ায় ঘাঘট নদীর ভাঙ্গনে দিশাহারা গ্রামবাসী

আপডেট টাইম : ০৯:০৭ পূর্বাহ্ন, শনিবার, ৩০ সেপ্টেম্বর ২০২৩
রংপুর জেলার গংগাচড়া উপজেলায় ভাঙছে ঘাঘট নদী। এ নদীর ভাঙ্গনে দিশেহারা হয়ে পড়েছে গংগাচড়া উপজেলার বড়বিল ইউনিয়নের ৯নং ওয়ার্ডের ঘাঘটটারির গ্রামবাসী। নদীর অব্যাহত ভাঙ্গনে ইতিমধ্যেই বিলীন হয়েছে কৃষকের কয়েক একর আবাদি জমি ও বসতবাড়ি। ভাঙ্গন রোধে দ্রুত কার্যকরী ব্যবস্থা না নিলে যে কোন মূহুর্তে গ্রামটি নিশ্চিহ্ন হয়ে পড়ার আশঙ্কা করছেন স্থানীয়রা।
সরেজমিনে দেখা গেছে, বড়বিল ইউনিয়নের ৯নং ওয়ার্ডের  ঘাঘটটারি গ্রামের উপর দিয়ে প্রবাহিত ঘাঘট নদীর ভাঙ্গনে কৃষকদের কয়েক একর জমি নদী গর্ভে চলে গেছে। বিলীন হতে বসেছে আবাদি জমি, মসজিদ, বসতবাড়ি । এতে এই গ্রামের মানুষের মধ্যে নদী ভাঙ্গন আতঙ্ক দেখা দিয়েছে। স্থানীয়রা জানান, গত বর্ষা মৌসুমে ঘাঘটের এই ভাঙ্গন তীব্র আকার ধারন করেছিল, বর্তমানেও তা অব্যাহত রয়েছে। দ্রুত নদী ভাঙ্গন রোধে কোন কার্যকরী ব্যবস্থা না নেয়া হলে ভাঙ্গন আরও বাড়ছে। ক্ষতিগ্রস্ত হবে এখানকার মানুষেরা।
বড়বিল ইউনিয়নের ৯নং ওয়ার্ডের ঘাঘটটারি গ্রামের কৃষক আজিজুল মিয়া জানান, ইতোমধ্যে গ্রামের বেশ কয়েকজন কৃষককের আবাদি জমি ঘাঘটের গর্ভে চলে গেছে। তারা শেষ অবলম্বনটুকু হারিয়ে বর্তমানে মানবেতর জীবন যাপন করছে।
এজন্য ভাঙ্গন রোধে দ্রুত কার্যকরী ব্যবস্থা না নিলে যে কোন মূহুর্তে নিশ্চিহ্ন হয়ে পড়ার আশঙ্কা রয়েছে। আমেনা বেগম বলেন, ‘আমাদের আবাদি জমি ও ঘাঘট নদীতে বিলীন হয়েছে। শেষ সম্বল বসতভিটাও চলে গেছে নদীর উদরে। ৩টি ঘরের একটি তিস্তায় ভেসে গেছে।
দুইটি ঘর রেখেছে তাও যখন তখন বিলিন হয়ে যেতে পারে। ঘাঘটটারি গ্রামের মালেক মিয়া বলেন, গত তিনদিন ধরে বন্যার পানিতে কষ্ট করলাম। নদীর পানি নেমে যাওয়ায় এখন ভাঙ্গন আতঙ্কে রয়েছি।উপজেলা নির্বাহী অফিসার নাহিদ তামান্না বলেন, জরুরি ভাঙন রক্ষার জন্য পানি উন্নয়ন বোর্ডের রংপুর নির্বাহী প্রকৌশলীকে জানিয়েছি তিনি ব্যবস্থা নেয়ার কথা জানিয়েছেন।
পানি উন্নয়ন বোর্ডের রংপুর নির্বাহী প্রকৌশলী মোঃ রবিউল ইসলাম বলেন, আগামীকাল আমাদের টিম পরিদর্শন করে জরুরি ভাবে ব্যবস্হা গ্রহন করবে।