ঢাকা , সোমবার, ২৭ মে ২০২৪, ১৩ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
সংবাদ শিরোনাম
Logo ফরিদপুর সদর উপজেলার শিবরামপুর এলাকায় অনুমোদনহীন ভেজাল গুড় কারখানায় অভিযান Logo কুমারখালীতে ভোটের দিনে প্রতিপক্ষের হামলা, আহত ব্যাক্তির মৃত্যু Logo কুষ্টিয়ায় হাতের রগ কাটা যুবকের ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার Logo ফরিদপুরে জাতীয় কবি কাজী নজরুল ইসলামের ‌১২৫ তম জন্মবার্ষিকী পালিত Logo কুষ্টিয়ায় শ্যালকের বিয়েতে গিয়ে দুলাভাইয়ের কারাদণ্ড Logo তানোরে কনিষ্ঠ প্রার্থীর সর্ববৃহৎ জয়, রাজনৈতিক অঙ্গনে চাঞ্চল্য Logo যশোরে পৃথক দুটি সড়ক দুর্ঘটনায় দুইজন নিহত Logo আমতলী উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে নারী ভাইস চেয়ারম্যান পদে জনপ্রিয়তায় এগিয়ে যুথী Logo হাতিয়ার সাবেক সংসদ সদস্য অধ্যাপক ওয়ালী উল্যাহর মৃত্যুতে স্মরণ সভা অনুষ্ঠিত Logo সুন্দরবন, বেনাপুল ও চিত্রা বন্ধ ট্রেন চালুর দাবিতে ভেড়ামারায় মানববন্ধন
প্রতিনিধি নিয়োগ
দৈনিক সময়ের প্রত্যাশা পত্রিকার জন্য সারা দেশে জেলা ও উপজেলা পর্যায়ে প্রতিনিধি নিয়োগ করা হচ্ছে। আপনি আপনার এলাকায় সাংবাদিকতা পেশায় আগ্রহী হলে যোগাযোগ করুন।

সালথায় কালবৈশাখী ঝড়ে প্রতিবেশির গাছ ভেঙ্গে পড়ে দিনমুজুরের ব্যাপক ক্ষতি

ফরিদপুরের সালথা উপজেলার যদুনন্দী ইউনিয়নের সাধুহাটি গ্রামে, কালবৈশাখী ঝড়ে প্রতিবেশীর চাম্বুল গাছ ভেঙে পড়ে এক দিনমুজুরের ব্যাপক ক্ষতি হয়েছে। গতকাল ( ৯ মে) সন্ধ্যায় ঝড়ের সময় ওই গ্রামের মৃত আলেক শেখের ছেলে রবিউল শেখ এর বসত ঘরের উপর গাছ ভেঙ্গে পড়ে। এতে তার বসত ঘরের চাল ভেঙ্গে যায়। অল্পের জন্যে বেঁচে যায় ঘরে থাকা ১৬ দিনের নবজাতকসহ কয়েকটি প্রান। এখনও তারা ভয়ে দিন পার করছে যেকোন সময় ভেঙে পড়তে পারে পাশে থাকা আরো মটকা ধরনের চাম্বুল গাছ গুলো। প্রতিবেশি ওই গাছের মালিক স্থানীয় মোনায়েম খাঁনকে বার বার বলা সত্বেও গাছেগুলো কেটে না নেওয়ায় ওই দিনমুজুরের এই ক্ষতিসাধন হয়েছে বলে জানা যায়।

 

দিনমুজুর রবিউল শেখ অভিযোগ করে বলেন, আমার প্রতিবেশী মোনায়েম খান এই দূর্ঘটনাটাপূর্ন গাছগুলো কেটে নিতে আমার কাছ থেকে ৫ হাজার টাকাও নিয়েছে, তারপরও গাছ গুলো দুই বছর যাবত কাটেনি। তাই আজ আমার এই ক্ষতি হলো। এখন আমি আমার ঘরের ১৬ দিনের নবজাতক নিয়ে কোথায় বসবাস করবো।

 

স্থানীয় ইউপি সদস্য ওহিদ মোল্লা বলেন, এই গ্রামের গন্যমান্য ব্যক্তিবর্গ সাথে আমিও এই গাছ গুলো কেটে নেওয়ার সালিশ করেছি, গাছের মালিক মোনায়েম খান ওই গাছ বিক্রি করেও ব্যাপারীর কাছ থেকে টাকা ফেরৎ নিয়েছে। এটা সে কেন করেছে তা জানি না। তবে আজ অল্পের জন্যে পরিবারটি বেঁচে গেছে, আজ বড় ধরনের ক্ষতি হতে পারতো।

 

গাছের মালিক মোনায়েম খান বলেন, আমি প্রায় দুই বছর যাবত গ্রামে থাকি না। ওই সময় গাছগুলো কেটে নেওয়ার কথা ছিলো, কিন্তু এলাকায় না থাকাতে কাটতে পারিনি। এখন সমন্বয় করে কেটে ফেলবো।

 

 

সংশ্লিষ্ট ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান রফিক মোল্লা বলেন, গাছ কাটার সালিশে আমিও ছিলাম, তবে ওই মোনায়েম খান কয়েকটি মিথ্যা ঘটনার হয়রানির স্বীকার হয়ে গ্রামে ছাড়া হতে হয়েছে তাকে। এজন্য গাছ গুলো কাটতে পারেনি। গতকাল ঝড়ে গাছ ভেঙে যে রবিউলের ঘর ভেঙেছে এটা আমার জানা নেই। খোজখবর নিয়ে ব্যবস্থা নিচ্ছি।

Tag :
এই অথরের আরো সংবাদ দেখুন

ফরিদপুর সদর উপজেলার শিবরামপুর এলাকায় অনুমোদনহীন ভেজাল গুড় কারখানায় অভিযান

error: Content is protected !!

সালথায় কালবৈশাখী ঝড়ে প্রতিবেশির গাছ ভেঙ্গে পড়ে দিনমুজুরের ব্যাপক ক্ষতি

আপডেট টাইম : ১২:৫৯ অপরাহ্ন, শুক্রবার, ১০ মে ২০২৪

ফরিদপুরের সালথা উপজেলার যদুনন্দী ইউনিয়নের সাধুহাটি গ্রামে, কালবৈশাখী ঝড়ে প্রতিবেশীর চাম্বুল গাছ ভেঙে পড়ে এক দিনমুজুরের ব্যাপক ক্ষতি হয়েছে। গতকাল ( ৯ মে) সন্ধ্যায় ঝড়ের সময় ওই গ্রামের মৃত আলেক শেখের ছেলে রবিউল শেখ এর বসত ঘরের উপর গাছ ভেঙ্গে পড়ে। এতে তার বসত ঘরের চাল ভেঙ্গে যায়। অল্পের জন্যে বেঁচে যায় ঘরে থাকা ১৬ দিনের নবজাতকসহ কয়েকটি প্রান। এখনও তারা ভয়ে দিন পার করছে যেকোন সময় ভেঙে পড়তে পারে পাশে থাকা আরো মটকা ধরনের চাম্বুল গাছ গুলো। প্রতিবেশি ওই গাছের মালিক স্থানীয় মোনায়েম খাঁনকে বার বার বলা সত্বেও গাছেগুলো কেটে না নেওয়ায় ওই দিনমুজুরের এই ক্ষতিসাধন হয়েছে বলে জানা যায়।

 

দিনমুজুর রবিউল শেখ অভিযোগ করে বলেন, আমার প্রতিবেশী মোনায়েম খান এই দূর্ঘটনাটাপূর্ন গাছগুলো কেটে নিতে আমার কাছ থেকে ৫ হাজার টাকাও নিয়েছে, তারপরও গাছ গুলো দুই বছর যাবত কাটেনি। তাই আজ আমার এই ক্ষতি হলো। এখন আমি আমার ঘরের ১৬ দিনের নবজাতক নিয়ে কোথায় বসবাস করবো।

 

স্থানীয় ইউপি সদস্য ওহিদ মোল্লা বলেন, এই গ্রামের গন্যমান্য ব্যক্তিবর্গ সাথে আমিও এই গাছ গুলো কেটে নেওয়ার সালিশ করেছি, গাছের মালিক মোনায়েম খান ওই গাছ বিক্রি করেও ব্যাপারীর কাছ থেকে টাকা ফেরৎ নিয়েছে। এটা সে কেন করেছে তা জানি না। তবে আজ অল্পের জন্যে পরিবারটি বেঁচে গেছে, আজ বড় ধরনের ক্ষতি হতে পারতো।

 

গাছের মালিক মোনায়েম খান বলেন, আমি প্রায় দুই বছর যাবত গ্রামে থাকি না। ওই সময় গাছগুলো কেটে নেওয়ার কথা ছিলো, কিন্তু এলাকায় না থাকাতে কাটতে পারিনি। এখন সমন্বয় করে কেটে ফেলবো।

 

 

সংশ্লিষ্ট ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান রফিক মোল্লা বলেন, গাছ কাটার সালিশে আমিও ছিলাম, তবে ওই মোনায়েম খান কয়েকটি মিথ্যা ঘটনার হয়রানির স্বীকার হয়ে গ্রামে ছাড়া হতে হয়েছে তাকে। এজন্য গাছ গুলো কাটতে পারেনি। গতকাল ঝড়ে গাছ ভেঙে যে রবিউলের ঘর ভেঙেছে এটা আমার জানা নেই। খোজখবর নিয়ে ব্যবস্থা নিচ্ছি।