ঢাকা , শুক্রবার, ০১ মার্চ ২০২৪, ১৮ ফাল্গুন ১৪৩০ বঙ্গাব্দ
প্রতিনিধি নিয়োগ
দৈনিক সময়ের প্রত্যাশা পত্রিকার জন্য সারা দেশে জেলা ও উপজেলা পর্যায়ে প্রতিনিধি নিয়োগ করা হচ্ছে। আপনি আপনার এলাকায় সাংবাদিকতা পেশায় আগ্রহী হলে যোগাযোগ করুন।

আ’লীগের দুই গ্রুপের দ্বন্দ্বের জেরঃ মহম্মদপুরে কৃষককে কুপিয়ে হত্যা

খুনের বদলে খুন! একটি হত্যাকান্ডের ২ বছর ১১ মাস ২০ দিনের (প্রায় ৩ বছরের) মাথায় সেই হত্যার বদলা নেওয়ার ঘটনা ঘটেছে। চাঞ্চল্যকর এ ঘটনাটি ঘটেছে মাগুরার মহম্মদপুরের বালিদিয়া গ্রামে। সোমবার (২ জানুয়ারি) রাত ১১টার দিকে পরিকল্পিতভাবে প্রতিপক্ষের লোকজন ধারালো অস্ত্র দিয়ে কুপিয়ে হত্যা করে ওই গ্রামের মোশারফ হোসেন মৃধা (৫৫) নামের এক কৃষককে। তিনি ওই গ্রামের মৃত: নুরোল ইসলাম মৃধার ছেলে। স্থানীয় আওয়ামী লীগের দুই গ্রুপের মধ্যে দীর্ঘদিনের দ্বন্দ্ব ও আধিপত্য বিস্তারের জেরে খুনের ঘটনাটি ঘটেছে বলে স্থানীয়রা জানিয়েছেন।

সরজমিনে খোঁজখবর নিয়ে জানাগেছে, ২০২০ সালের ১৩ জানুয়ারি রাত সাড়ে ৮টায় উপজেলার বালিদিয়া গ্রামের আবু সাঈদ মোল্যা (৫৩) নামের অবসরপ্রাপ্ত এক পুলিশ সদস্য প্রতিপক্ষের হামলায় নিহত হন। তিনি ছিলেন ওই গ্রামের মৃত: ইসলাম মোল্যার ছেলে এবং স্থানীয় আওয়ামীলীগ নেতা ইউনুস শিকদারের সমর্থক। ওই ঘটনার প্রায় ৩ বছর পর মোশারফ হোসেন মৃধাকে খুনের মধ্যদিয়ে বদলা নেয় ওই আওয়ামীলীগ নেতার সমর্থকরা। মোশারফ হোসেন মৃধা স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যান ও আওয়ামীলীগ নেতা মফিজুর রহমান মীনার সমর্থক ছিলেন।

জানাযায়, উপজেলার বালিদিয়া গ্রামের আওয়ামীলীগ নেতা ইউনুস শিকদার এবং স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যান ও আওয়ামীলীগ নেতা মফিজুর রহমান মীনার সমর্থকদের মধ্যে এলাকায় আধিপত্য বিস্তার নিয়ে দীর্ঘদিন ধরে বিরোধ চলে আসছে। এ বিরোধের জেরে প্রায় ৩ বছর আগে আবু সাঈদ মোল্যা নামের অবসরপ্রাপ্ত এক পুলিশ সদস্য খুন হন। গত সোমবার রাতে খুন হন মোশারফ হোসেন মৃধা।

নিহত মোশারফ হোসেন মৃধার ভাতিজা মিনারুল ইসলাম জানান, তারা চাচাকে প্রতিপক্ষের লোকজন পূর্বপরিকল্পিতভাবে নৃশংসভাবে হত্যা করেছে। তিনি আরও জানান, ঘটনার রাতে মোশারফ হোসেন মৃধা বালিদিয়া বাজার থেকে বাড়িতে ফিরছিলেন। তবিবর মৃধার বাড়ি সংলগ্ন এলাকায় পৌছলে আগে থেকে ওৎ পেতে থাকা প্রতিপক্ষের লোকজন তার উপর অতর্কিত হামলা চালায়। হামলাকারিরা তাকে এলোপাতাড়ি কুপিয়ে পালিয়ে যায়। ঘটনাস্থলেই তিনি নিহত হন। পুলিশ লাশ উদ্ধার করে ময়না তদন্তের জন্য মঙ্গলবার দুপুরে মাগুরার মর্গে প্রেরণ করেছেন। এ ঘটনার পর থেকে বালিদিয়া গ্রামে থমথমে অবস্থা বিরাজ করছে। পরিস্থিতি শান্ত রাখতে অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়ন করা হয়েছে।

সংবাদ পেয়ে মাগুরার অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (মাগুরা সদর সার্কেল) নাজিম উদ্দিন আল আজাদ ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেন। এ সময় হত্যাকান্ডের বিষয়ে জানতে চাইলে তিনি এ প্রতিনিধিকে বলেন, ‘এলাকায় আধিপত্য বিস্তারের জেরে অনাকাঙ্খিত এ ঘটনাটি ঘটে থাকতে পারে বলে প্রাথমিকভাবে ধারণা করা হচ্ছে।’

মহম্মদপুর থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) অসিত কুমার রায় বলেন, ‘ময়না তদন্তের জন্য লাশ মর্গে পাঠানো হয়েছে। খুনের সাথে জড়িতদেরকে সণাক্ত করার কাজ করছি আমরা। এলাকার পরিস্থিতি স্বাভাবিক রাখতে অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়ন করা হয়েছে।

Tag :
এই অথরের আরো সংবাদ দেখুন

জনপ্রিয় সংবাদ
error: Content is protected !!

আ’লীগের দুই গ্রুপের দ্বন্দ্বের জেরঃ মহম্মদপুরে কৃষককে কুপিয়ে হত্যা

আপডেট টাইম : ০৫:০৩ অপরাহ্ন, মঙ্গলবার, ৩ জানুয়ারী ২০২৩

খুনের বদলে খুন! একটি হত্যাকান্ডের ২ বছর ১১ মাস ২০ দিনের (প্রায় ৩ বছরের) মাথায় সেই হত্যার বদলা নেওয়ার ঘটনা ঘটেছে। চাঞ্চল্যকর এ ঘটনাটি ঘটেছে মাগুরার মহম্মদপুরের বালিদিয়া গ্রামে। সোমবার (২ জানুয়ারি) রাত ১১টার দিকে পরিকল্পিতভাবে প্রতিপক্ষের লোকজন ধারালো অস্ত্র দিয়ে কুপিয়ে হত্যা করে ওই গ্রামের মোশারফ হোসেন মৃধা (৫৫) নামের এক কৃষককে। তিনি ওই গ্রামের মৃত: নুরোল ইসলাম মৃধার ছেলে। স্থানীয় আওয়ামী লীগের দুই গ্রুপের মধ্যে দীর্ঘদিনের দ্বন্দ্ব ও আধিপত্য বিস্তারের জেরে খুনের ঘটনাটি ঘটেছে বলে স্থানীয়রা জানিয়েছেন।

সরজমিনে খোঁজখবর নিয়ে জানাগেছে, ২০২০ সালের ১৩ জানুয়ারি রাত সাড়ে ৮টায় উপজেলার বালিদিয়া গ্রামের আবু সাঈদ মোল্যা (৫৩) নামের অবসরপ্রাপ্ত এক পুলিশ সদস্য প্রতিপক্ষের হামলায় নিহত হন। তিনি ছিলেন ওই গ্রামের মৃত: ইসলাম মোল্যার ছেলে এবং স্থানীয় আওয়ামীলীগ নেতা ইউনুস শিকদারের সমর্থক। ওই ঘটনার প্রায় ৩ বছর পর মোশারফ হোসেন মৃধাকে খুনের মধ্যদিয়ে বদলা নেয় ওই আওয়ামীলীগ নেতার সমর্থকরা। মোশারফ হোসেন মৃধা স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যান ও আওয়ামীলীগ নেতা মফিজুর রহমান মীনার সমর্থক ছিলেন।

জানাযায়, উপজেলার বালিদিয়া গ্রামের আওয়ামীলীগ নেতা ইউনুস শিকদার এবং স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যান ও আওয়ামীলীগ নেতা মফিজুর রহমান মীনার সমর্থকদের মধ্যে এলাকায় আধিপত্য বিস্তার নিয়ে দীর্ঘদিন ধরে বিরোধ চলে আসছে। এ বিরোধের জেরে প্রায় ৩ বছর আগে আবু সাঈদ মোল্যা নামের অবসরপ্রাপ্ত এক পুলিশ সদস্য খুন হন। গত সোমবার রাতে খুন হন মোশারফ হোসেন মৃধা।

নিহত মোশারফ হোসেন মৃধার ভাতিজা মিনারুল ইসলাম জানান, তারা চাচাকে প্রতিপক্ষের লোকজন পূর্বপরিকল্পিতভাবে নৃশংসভাবে হত্যা করেছে। তিনি আরও জানান, ঘটনার রাতে মোশারফ হোসেন মৃধা বালিদিয়া বাজার থেকে বাড়িতে ফিরছিলেন। তবিবর মৃধার বাড়ি সংলগ্ন এলাকায় পৌছলে আগে থেকে ওৎ পেতে থাকা প্রতিপক্ষের লোকজন তার উপর অতর্কিত হামলা চালায়। হামলাকারিরা তাকে এলোপাতাড়ি কুপিয়ে পালিয়ে যায়। ঘটনাস্থলেই তিনি নিহত হন। পুলিশ লাশ উদ্ধার করে ময়না তদন্তের জন্য মঙ্গলবার দুপুরে মাগুরার মর্গে প্রেরণ করেছেন। এ ঘটনার পর থেকে বালিদিয়া গ্রামে থমথমে অবস্থা বিরাজ করছে। পরিস্থিতি শান্ত রাখতে অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়ন করা হয়েছে।

সংবাদ পেয়ে মাগুরার অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (মাগুরা সদর সার্কেল) নাজিম উদ্দিন আল আজাদ ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেন। এ সময় হত্যাকান্ডের বিষয়ে জানতে চাইলে তিনি এ প্রতিনিধিকে বলেন, ‘এলাকায় আধিপত্য বিস্তারের জেরে অনাকাঙ্খিত এ ঘটনাটি ঘটে থাকতে পারে বলে প্রাথমিকভাবে ধারণা করা হচ্ছে।’

মহম্মদপুর থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) অসিত কুমার রায় বলেন, ‘ময়না তদন্তের জন্য লাশ মর্গে পাঠানো হয়েছে। খুনের সাথে জড়িতদেরকে সণাক্ত করার কাজ করছি আমরা। এলাকার পরিস্থিতি স্বাভাবিক রাখতে অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়ন করা হয়েছে।