ঢাকা , শুক্রবার, ১২ জুলাই ২০২৪, ২৮ আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
সংবাদ শিরোনাম
Logo ফরিদপুর জেলা প্রশাসনের উদ্যোগে ভ্রাম্যমান আদালতের অভিযান Logo কোটা আন্দোলন : শিবগঞ্জে শিক্ষার্থীদের বিক্ষোভ-সমাবেশ Logo মাগুরায় চাকরির প্রলোভনে টাকা হাতিয়ে উল্টো ভুক্তভোগীর বিরুদ্ধেই মামলার অভিযোগ Logo খোকসায় উপজেলা ছাত্র কল্যাণ পরিষদ মেধাবী শিক্ষার্থী মারিয়াকে সংবর্ধনা প্রদান Logo চাঁপাইনবাবগঞ্জে বজ্রপাতে দুই কৃষক নিহত Logo কালুখালীতে ফুটবল টুর্ণামেন্টের ফাইনাল খেলা Logo ১২০ কেজি অবৈধ পলিথিন জব্দ, ১২ হাজার টাকা জরিমানা করেছে ভ্রাম্যমান আদালত Logo তানোরে সড়ক দূর্ঘটনায় শোডাউনের এক মাইক্রোবাস চালক নিহত Logo যৌতুকের দাবিতে কলেজছাত্রীকে পিটিয়ে হত্যার অভিযোগ Logo সদরপুরে ৪ কেজি গাঁজা সহ ব্যবসায়ী কে আটক করেছে ডি বি পুলিশ
প্রতিনিধি নিয়োগ
দৈনিক সময়ের প্রত্যাশা পত্রিকার জন্য সারা দেশে জেলা ও উপজেলা পর্যায়ে প্রতিনিধি নিয়োগ করা হচ্ছে। আপনি আপনার এলাকায় সাংবাদিকতা পেশায় আগ্রহী হলে যোগাযোগ করুন।

কুষ্টিয়া লালন ভক্তের ঘর ভাঙার প্রতিবাদে মানববন্ধন

যেখানে আমার স্বামীর মাজার আছে, আমি সেখানেই থাকব। আমাকে যদি স্বামীর কবর থেকে সাপে খায়, বাঘে খায়, তবুও আমি ওই জায়গায় থাকব। মাটির সঙ্গে মিশে যাব। আমাকে কবর দিতে কাউকে আসা লাগবে না। তবু কোথাও যাব না।’ (২ জুলাই) মঙ্গলবার দুপুরে কুষ্টিয়ার কুমারখালীতে মানববন্ধনে দাঁড়িয়ে এ কথা বলেন  লালন–ভক্ত চায়না বেগম (৮০)।

দুপুরে উপজেলার ছেঁউড়িয়ায় বাউল সাধক ফকির লালন শাহের আখড়াবাড়ির প্রধান ফটকের সামনে মানববন্ধনের আয়োজন করেন লালনের ভক্ত–অনুসারীরা। তাঁরা চায়না বেগমের ঘর ভাঙচুরের ঘটনায় জড়িত ব্যক্তিদের শাস্তি এবং পুনরায় একই স্থানে ওই ঘর নির্মাণের দাবি জানান।

প্রায় এক ঘণ্টা মানববন্ধনে দাঁড়িয়ে চায়না বেগম আরও বলেন, ‘সকাল হলে আমি ভিক্ষা করতে যাব। সারা দিন বেড়াব। দিন শেষে স্বামীর ভিটায় রাঁধে (রান্না) খাব। তবু স্বামীর ভিটা ছেড়ে কোথাও যাব না। আমার ঘর যেভাবে ছিল;আপনারা সেভাবেই করে দেন।’

লালন–ভক্ত চায়না বেগম কুষ্টিয়া সদর উপজেলার টাকিমারা এলাকার মৃত গাজির উদ্দিনের স্ত্রী। গত ২৬ জুন সকালে স্থানীয় ইউপি সদস্য ও মাতব্বররা তাঁর ঘর ভাঙচু‌র করেন বলে তিনি অভিযোগ করেন।

মানববন্ধনে চায়না বেগমের বোন ফকির আছিয়া খাতুন বলেন, ‘আমার বোন যেখানে যেভাবে ছিল, আপনারা সেখানে সেভাবেই বসবাসের ব্যবস্থা করে দেন। যারা আমার বোনের ঘর ভেঙেছে, তাদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নিতে হবে।’

লালন–ভক্তের ঘরবাড়ি ভাঙচুরের ঘটনার তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানিয়েছেন ফকির আলেক সাঁই। তিনি বলেন, দাঁড়ি রাখলে আর টুপি পরলেই মুসলমান হওয়া যায় না। মানুষ হওয়া যায় না। মানুষ হতে হলে আগে মনুষ্যত্বের অধিকারী হতে হবে। তিনি ঘটনার সুষ্ঠু বিচারের দাবি জানান।

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, ৮০ বছর বয়সী চায়না বেগমের ইচ্ছা ছিল, লালন–অনুসারী মৃত স্বামীর কব‌রের পাশে ঘর করে বা‌কিটা জীবন কা‌টি‌য়ে‌ দেবেন। ভিটেমাটিতে প্রতিদিন জ্বালাবেন সন্ধ্যাপ্রদীপ। নি‌জে লালন–অনুসারী হওয়ায় স্বামীর কব‌রের পা‌শেই নিজ জ‌মি‌তে তু‌লে‌ছি‌লেন টি‌নের ঘর। কিন্তু স্থানীয় ইউপি সদস্য ও গ্রাম্য মাতব্বররা তাঁকে ওই স্থানে ঘর নির্মাণ করতে নিষেধ করেছিলেন। ভ‌বিষ‌্যতে ওই স্থা‌নে মাজার, মাদক সেবন ও কি‌শোর গ‌্যাংয়ের আড্ডাস্থল হওয়ার আশঙ্কার কথা বলে ২৬ জুন সকালে ‌স্থানীয় আরও ক‌য়েকজন‌কে নি‌য়ে বৃদ্ধার ঘর‌টি তাঁরা ভে‌ঙে ফে‌লেন।

চায়না বেগম ঘর ভাঙতে বাধা দিতে গে‌লে তাঁকে লাঞ্ছিত করা হয়। পরে তিনি এ বিষয়ে কু‌ষ্টিয়া ম‌ডেল থানায় অভিযোগ করেন। গত শুক্রবার বিষয়টি নিয়ে বি‌কে‌লে থে‌কে সন্ধ‌্যা পর্যন্ত থানায় উভয় পক্ষ বৈঠক করে। ওই বৈঠকে চায়না বেগমকে অন‌্যত্র এক‌টি নতুন ঘর তৈ‌রি করে দেওয়ার সিদ্ধান্ত দিয়ে বিষয়টি মীমাংসা করে দেওয়া হয়। ওই সিদ্ধান্ত উভয় পক্ষ মেনে নেয়। কিন্তু পরে চায়না বেগম অন্য লালন–ভক্তদের নিয়ে আগের স্থানেই ঘর নির্মাণের দাবি জানাতে থাকেন।

এলাকার বি‌ভিন্ন মানু‌ষের কাছে খোঁজ নি‌য়ে জানা গে‌ছে, চায়না‌ বেগ‌ম ও তাঁর স্বামী মৃত গা‌জির উদ্দিন দুজ‌নেই ছি‌লেন বাউল ফ‌কির লালন সাঁইজির অনুসারী। মৃত‌্যুর পর গা‌জির উদ্দিন‌কে মা‌ঠের ম‌ধ্যে নিজ জ‌মিতে কবর দেওয়া হয়।

Tag :
এই অথরের আরো সংবাদ দেখুন

জনপ্রিয় সংবাদ

ফরিদপুর জেলা প্রশাসনের উদ্যোগে ভ্রাম্যমান আদালতের অভিযান

error: Content is protected !!

কুষ্টিয়া লালন ভক্তের ঘর ভাঙার প্রতিবাদে মানববন্ধন

আপডেট টাইম : ০৫:০৩ অপরাহ্ন, মঙ্গলবার, ২ জুলাই ২০২৪

যেখানে আমার স্বামীর মাজার আছে, আমি সেখানেই থাকব। আমাকে যদি স্বামীর কবর থেকে সাপে খায়, বাঘে খায়, তবুও আমি ওই জায়গায় থাকব। মাটির সঙ্গে মিশে যাব। আমাকে কবর দিতে কাউকে আসা লাগবে না। তবু কোথাও যাব না।’ (২ জুলাই) মঙ্গলবার দুপুরে কুষ্টিয়ার কুমারখালীতে মানববন্ধনে দাঁড়িয়ে এ কথা বলেন  লালন–ভক্ত চায়না বেগম (৮০)।

দুপুরে উপজেলার ছেঁউড়িয়ায় বাউল সাধক ফকির লালন শাহের আখড়াবাড়ির প্রধান ফটকের সামনে মানববন্ধনের আয়োজন করেন লালনের ভক্ত–অনুসারীরা। তাঁরা চায়না বেগমের ঘর ভাঙচুরের ঘটনায় জড়িত ব্যক্তিদের শাস্তি এবং পুনরায় একই স্থানে ওই ঘর নির্মাণের দাবি জানান।

প্রায় এক ঘণ্টা মানববন্ধনে দাঁড়িয়ে চায়না বেগম আরও বলেন, ‘সকাল হলে আমি ভিক্ষা করতে যাব। সারা দিন বেড়াব। দিন শেষে স্বামীর ভিটায় রাঁধে (রান্না) খাব। তবু স্বামীর ভিটা ছেড়ে কোথাও যাব না। আমার ঘর যেভাবে ছিল;আপনারা সেভাবেই করে দেন।’

লালন–ভক্ত চায়না বেগম কুষ্টিয়া সদর উপজেলার টাকিমারা এলাকার মৃত গাজির উদ্দিনের স্ত্রী। গত ২৬ জুন সকালে স্থানীয় ইউপি সদস্য ও মাতব্বররা তাঁর ঘর ভাঙচু‌র করেন বলে তিনি অভিযোগ করেন।

মানববন্ধনে চায়না বেগমের বোন ফকির আছিয়া খাতুন বলেন, ‘আমার বোন যেখানে যেভাবে ছিল, আপনারা সেখানে সেভাবেই বসবাসের ব্যবস্থা করে দেন। যারা আমার বোনের ঘর ভেঙেছে, তাদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নিতে হবে।’

লালন–ভক্তের ঘরবাড়ি ভাঙচুরের ঘটনার তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানিয়েছেন ফকির আলেক সাঁই। তিনি বলেন, দাঁড়ি রাখলে আর টুপি পরলেই মুসলমান হওয়া যায় না। মানুষ হওয়া যায় না। মানুষ হতে হলে আগে মনুষ্যত্বের অধিকারী হতে হবে। তিনি ঘটনার সুষ্ঠু বিচারের দাবি জানান।

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, ৮০ বছর বয়সী চায়না বেগমের ইচ্ছা ছিল, লালন–অনুসারী মৃত স্বামীর কব‌রের পাশে ঘর করে বা‌কিটা জীবন কা‌টি‌য়ে‌ দেবেন। ভিটেমাটিতে প্রতিদিন জ্বালাবেন সন্ধ্যাপ্রদীপ। নি‌জে লালন–অনুসারী হওয়ায় স্বামীর কব‌রের পা‌শেই নিজ জ‌মি‌তে তু‌লে‌ছি‌লেন টি‌নের ঘর। কিন্তু স্থানীয় ইউপি সদস্য ও গ্রাম্য মাতব্বররা তাঁকে ওই স্থানে ঘর নির্মাণ করতে নিষেধ করেছিলেন। ভ‌বিষ‌্যতে ওই স্থা‌নে মাজার, মাদক সেবন ও কি‌শোর গ‌্যাংয়ের আড্ডাস্থল হওয়ার আশঙ্কার কথা বলে ২৬ জুন সকালে ‌স্থানীয় আরও ক‌য়েকজন‌কে নি‌য়ে বৃদ্ধার ঘর‌টি তাঁরা ভে‌ঙে ফে‌লেন।

চায়না বেগম ঘর ভাঙতে বাধা দিতে গে‌লে তাঁকে লাঞ্ছিত করা হয়। পরে তিনি এ বিষয়ে কু‌ষ্টিয়া ম‌ডেল থানায় অভিযোগ করেন। গত শুক্রবার বিষয়টি নিয়ে বি‌কে‌লে থে‌কে সন্ধ‌্যা পর্যন্ত থানায় উভয় পক্ষ বৈঠক করে। ওই বৈঠকে চায়না বেগমকে অন‌্যত্র এক‌টি নতুন ঘর তৈ‌রি করে দেওয়ার সিদ্ধান্ত দিয়ে বিষয়টি মীমাংসা করে দেওয়া হয়। ওই সিদ্ধান্ত উভয় পক্ষ মেনে নেয়। কিন্তু পরে চায়না বেগম অন্য লালন–ভক্তদের নিয়ে আগের স্থানেই ঘর নির্মাণের দাবি জানাতে থাকেন।

এলাকার বি‌ভিন্ন মানু‌ষের কাছে খোঁজ নি‌য়ে জানা গে‌ছে, চায়না‌ বেগ‌ম ও তাঁর স্বামী মৃত গা‌জির উদ্দিন দুজ‌নেই ছি‌লেন বাউল ফ‌কির লালন সাঁইজির অনুসারী। মৃত‌্যুর পর গা‌জির উদ্দিন‌কে মা‌ঠের ম‌ধ্যে নিজ জ‌মিতে কবর দেওয়া হয়।