ঢাকা , শুক্রবার, ১৪ জুন ২০২৪, ৩১ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
প্রতিনিধি নিয়োগ
দৈনিক সময়ের প্রত্যাশা পত্রিকার জন্য সারা দেশে জেলা ও উপজেলা পর্যায়ে প্রতিনিধি নিয়োগ করা হচ্ছে। আপনি আপনার এলাকায় সাংবাদিকতা পেশায় আগ্রহী হলে যোগাযোগ করুন।

প্রেম প্রস্তাবে ব্যর্থ হয়ে এডিস নিক্ষেপকারী যুবকের যাবজ্জীবন কারাদন্ড

ফরিদপুরের মধুখালীতের এক গৃহবধুকে প্রেমের প্রস্তাব দিয়ে ব্যর্থ হয়ে এসিড নিক্ষেপ মামলায় সুজন কুমার হলদার(২৮) কে যাবজ্জীবন কারাদন্ড ও এক লাখ টাকা জরিমানার আদেশ দেয় আদালত।
আজ বৃহস্পতিবার বিকেলে ফরিদপুরের অতিরিক্ত জেলা দায়রা জজ ২য় আদালতের বিজ্ঞ বিচারক শিহাবুল ইসলাম এই রায় দেয়। রায়ের  সময় আসামী আদালতে উপস্থিত ছিল। দন্ডপ্রাপ্ত আসামী সুজন কুমার হলদার জেলার মধুখালী উপজেলার বেলেশ্বর গ্রামের সুশীল কুমার হলদারের ছেলে।
মামলা সূত্রে জানা যায়, আসামী সুজন প্রতিবেশি জগন্নাথদী স্কুলপাড়া গ্রামের চৈতন্য মালোর স্ত্রী স্বরসতী মালো(২৩) কে দীর্ঘদিন  যাবৎ প্রেমের প্রস্তাব দিয়ে উত্যক্ত করে আসে। বিষয়টি নিয়ে স্থানীয় শালিশে ওই গৃহবধুকে বিরক্ত না করতে আসামীকে  সতর্ক  করে দেয়া হয়। এরপর আসামী সুজন কুমার হলদার ক্ষিপ্ত হয়ে ২০১৯ সালের ১৬ নভেম্বর সন্ধ্যায় স্বরসতী মালো রান্নার কাজে ব্যস্ত থাকা অবস্থায় পিছন থেকে একটি বোতলে এসিড নিয়ে তার মাথা বরাবর ঢেলে দেয়। সে সময় তরল এসিডে স্বরসতীর মাথা, মুখ ও ঘাড় পুড়ে যায়।
আহত গৃহবধূকে প্রথমে ফরিদপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ও পরে উন্নত চিকিৎসায় ঢাকা মেডিকেলে ভর্তি করা হয়। এই ঘটনার ২দিন পরে ১৮ নভেম্বর মধুখালী থানায় আহত স্বরসতীর ভাসুর কৃষ্ণ মালো বাদী হয়ে আসামী সুজন কুমার হলদারের বিরুদ্ধে এসিড নিক্ষেপের অভিযোগে মামলা দায়ের করে।
সেসময় পুলিশ ঘটনাটি তদন্ত করে আসামীকে গ্রেফতার করে ও জেলা হাজতে প্রেরণ করে। প্রেমের প্রস্তাবে ব্যর্থ হয়ে এসিড নিক্ষেপের ঘটনায় দুই জনকে অভিযুক্ত করে মধুখালী থানার পরিদর্শক  মো: আমিনুল ইসলাম প্রায় ১ বছর পর আদালতে এই মামলার চার্জশিট দাখিল করে।
অতিরিক্ত জেলা দায়রা জজ ২য় আদালতের পাবলিক প্রসিকিউটর (পিপি) মো: সানোয়ার হোসেন জানান, মামলারটির দীর্ঘ  স্বাক্ষ্য প্রমান শেষে এসিড অপরাধ আইন ২০০২ এর ৫(ক) ধারায় বিজ্ঞ বিচারক আসামী সুজন কুমার হলদার কে যাবজ্জীবন কারাদন্ড ও এক লক্ষ টাকা জরিমানার রায় প্রদান করেন। জরিমানার অর্থ  ভিকটিম স্বরসতী মালোকে প্রদানের আদেশ দেন।
এছাড়া ওই মামলায় অপর অভিযুক্ত আসামী গৌতম মন্ডলের অপরাধ প্রমানিত না হওয়ায় তাকে খালাস প্রদান করা হয়।
পরে যাবজ্জীবন কারাদন্ড প্রাপ্ত আসামী পুলিশ প্রহরায় কারাগারে প্রেরন করা হয় ।
Tag :
এই অথরের আরো সংবাদ দেখুন

জনপ্রিয় সংবাদ
error: Content is protected !!

প্রেম প্রস্তাবে ব্যর্থ হয়ে এডিস নিক্ষেপকারী যুবকের যাবজ্জীবন কারাদন্ড

আপডেট টাইম : ০৬:২৩ অপরাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ২৩ মে ২০২৪
ফরিদপুরের মধুখালীতের এক গৃহবধুকে প্রেমের প্রস্তাব দিয়ে ব্যর্থ হয়ে এসিড নিক্ষেপ মামলায় সুজন কুমার হলদার(২৮) কে যাবজ্জীবন কারাদন্ড ও এক লাখ টাকা জরিমানার আদেশ দেয় আদালত।
আজ বৃহস্পতিবার বিকেলে ফরিদপুরের অতিরিক্ত জেলা দায়রা জজ ২য় আদালতের বিজ্ঞ বিচারক শিহাবুল ইসলাম এই রায় দেয়। রায়ের  সময় আসামী আদালতে উপস্থিত ছিল। দন্ডপ্রাপ্ত আসামী সুজন কুমার হলদার জেলার মধুখালী উপজেলার বেলেশ্বর গ্রামের সুশীল কুমার হলদারের ছেলে।
মামলা সূত্রে জানা যায়, আসামী সুজন প্রতিবেশি জগন্নাথদী স্কুলপাড়া গ্রামের চৈতন্য মালোর স্ত্রী স্বরসতী মালো(২৩) কে দীর্ঘদিন  যাবৎ প্রেমের প্রস্তাব দিয়ে উত্যক্ত করে আসে। বিষয়টি নিয়ে স্থানীয় শালিশে ওই গৃহবধুকে বিরক্ত না করতে আসামীকে  সতর্ক  করে দেয়া হয়। এরপর আসামী সুজন কুমার হলদার ক্ষিপ্ত হয়ে ২০১৯ সালের ১৬ নভেম্বর সন্ধ্যায় স্বরসতী মালো রান্নার কাজে ব্যস্ত থাকা অবস্থায় পিছন থেকে একটি বোতলে এসিড নিয়ে তার মাথা বরাবর ঢেলে দেয়। সে সময় তরল এসিডে স্বরসতীর মাথা, মুখ ও ঘাড় পুড়ে যায়।
আহত গৃহবধূকে প্রথমে ফরিদপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ও পরে উন্নত চিকিৎসায় ঢাকা মেডিকেলে ভর্তি করা হয়। এই ঘটনার ২দিন পরে ১৮ নভেম্বর মধুখালী থানায় আহত স্বরসতীর ভাসুর কৃষ্ণ মালো বাদী হয়ে আসামী সুজন কুমার হলদারের বিরুদ্ধে এসিড নিক্ষেপের অভিযোগে মামলা দায়ের করে।
সেসময় পুলিশ ঘটনাটি তদন্ত করে আসামীকে গ্রেফতার করে ও জেলা হাজতে প্রেরণ করে। প্রেমের প্রস্তাবে ব্যর্থ হয়ে এসিড নিক্ষেপের ঘটনায় দুই জনকে অভিযুক্ত করে মধুখালী থানার পরিদর্শক  মো: আমিনুল ইসলাম প্রায় ১ বছর পর আদালতে এই মামলার চার্জশিট দাখিল করে।
অতিরিক্ত জেলা দায়রা জজ ২য় আদালতের পাবলিক প্রসিকিউটর (পিপি) মো: সানোয়ার হোসেন জানান, মামলারটির দীর্ঘ  স্বাক্ষ্য প্রমান শেষে এসিড অপরাধ আইন ২০০২ এর ৫(ক) ধারায় বিজ্ঞ বিচারক আসামী সুজন কুমার হলদার কে যাবজ্জীবন কারাদন্ড ও এক লক্ষ টাকা জরিমানার রায় প্রদান করেন। জরিমানার অর্থ  ভিকটিম স্বরসতী মালোকে প্রদানের আদেশ দেন।
এছাড়া ওই মামলায় অপর অভিযুক্ত আসামী গৌতম মন্ডলের অপরাধ প্রমানিত না হওয়ায় তাকে খালাস প্রদান করা হয়।
পরে যাবজ্জীবন কারাদন্ড প্রাপ্ত আসামী পুলিশ প্রহরায় কারাগারে প্রেরন করা হয় ।