ঢাকা , মঙ্গলবার, ১৪ মে ২০২৪, ৩১ বৈশাখ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
প্রতিনিধি নিয়োগ
দৈনিক সময়ের প্রত্যাশা পত্রিকার জন্য সারা দেশে জেলা ও উপজেলা পর্যায়ে প্রতিনিধি নিয়োগ করা হচ্ছে। আপনি আপনার এলাকায় সাংবাদিকতা পেশায় আগ্রহী হলে যোগাযোগ করুন।

নাগরপুরে বিয়ে না দেওয়ায় অভিমানে ছেলের আত্মহত্যা

-ছবিঃ প্রতীকী।

টাঙ্গাইলের নাগরপুরে ধুবড়িয়া ইউনিয়নে বিয়ে না দেওয়ায় অভিমান করে এক তরুণ ফাঁস নিয়ে আত্মহত্যা করেছেন। সোমবার (১৩ মে) সকালে ইউনিয়নের ৩ নং ওয়ার্ড পাকার মাথা এলাকায় গাছের সঙ্গে গলায় ফাঁস লাগানো অবস্থায় মৃতদেহ দেখতে পায় এলাকাবাসী এবং পরবর্তীতে লাশ উদ্ধার করে নাগরপুর থানা পুলিশ। পারিবার সূত্রে জানা যায়, ছেলেটি মানসিক ভারসাম্যহীন রোগী ছিলেন।
নিহত তরুণের নাম মো. শিপন (২১) ধুবড়িয়া ইউনিয়নের ৫ নং ওয়ার্ডের বাসিন্দা মো. মালেক এর ছেলে। মা ওমেলা বেগম বলেন, ছেলের মানসিক সমস্যা ছিলো। আত্মহত্যা নিয়ে আমাদের কোনো অভিযোগ নেই। বিয়ে না দেওয়ায় ছেলে আত্মহত্যা করেছে এলাকাবাসী এমন কথা প্রচার করেছে।
ধুবড়িয়া ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান মো. শফিকুর রহমান খান শাকিল মুঠোফোনে জানায়, প্রাথমিক ভাবে জানা গেছে ছেলেটি আত্মহত্যা করেছে। পরিবারের কোনো অভিযোগ নেই। পরিবারের দাবি ছেলেটি মানসিক ভারসাম্যহীন রোগী ছিলো। পুলিশ লাশ হস্তান্তর করলে আমরা সামাজিক ভাবে দাফন কার্য সম্পন্ন করবো।
এ ঘটনায় নাগরপুর থানা অফিসার ইনচার্জ (ওসি) এইচ এম জসিম উদ্দিন বলেন, এলাকাবাসী সূত্রে আত্মহত্যা বলা হচ্ছে। আমরা লাশ উদ্ধার করে টাঙ্গাইল মর্গে প্রেরণ করেছি। পরিবার থেকে কোনো অভিযোগ দায়ের করা হয়নি। লাশ ময়নাতদন্তের পর প্রকৃত ঘটনা জানা যাবে। তদন্ত সাপেক্ষে লাশ হস্তান্তর সহ প্রয়োজনীয় আইনুনাগ ব্যাবস্থা গ্রহণ করা হবে।
Tag :
এই অথরের আরো সংবাদ দেখুন

error: Content is protected !!

নাগরপুরে বিয়ে না দেওয়ায় অভিমানে ছেলের আত্মহত্যা

আপডেট টাইম : এক ঘন্টা আগে
টাঙ্গাইলের নাগরপুরে ধুবড়িয়া ইউনিয়নে বিয়ে না দেওয়ায় অভিমান করে এক তরুণ ফাঁস নিয়ে আত্মহত্যা করেছেন। সোমবার (১৩ মে) সকালে ইউনিয়নের ৩ নং ওয়ার্ড পাকার মাথা এলাকায় গাছের সঙ্গে গলায় ফাঁস লাগানো অবস্থায় মৃতদেহ দেখতে পায় এলাকাবাসী এবং পরবর্তীতে লাশ উদ্ধার করে নাগরপুর থানা পুলিশ। পারিবার সূত্রে জানা যায়, ছেলেটি মানসিক ভারসাম্যহীন রোগী ছিলেন।
নিহত তরুণের নাম মো. শিপন (২১) ধুবড়িয়া ইউনিয়নের ৫ নং ওয়ার্ডের বাসিন্দা মো. মালেক এর ছেলে। মা ওমেলা বেগম বলেন, ছেলের মানসিক সমস্যা ছিলো। আত্মহত্যা নিয়ে আমাদের কোনো অভিযোগ নেই। বিয়ে না দেওয়ায় ছেলে আত্মহত্যা করেছে এলাকাবাসী এমন কথা প্রচার করেছে।
ধুবড়িয়া ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান মো. শফিকুর রহমান খান শাকিল মুঠোফোনে জানায়, প্রাথমিক ভাবে জানা গেছে ছেলেটি আত্মহত্যা করেছে। পরিবারের কোনো অভিযোগ নেই। পরিবারের দাবি ছেলেটি মানসিক ভারসাম্যহীন রোগী ছিলো। পুলিশ লাশ হস্তান্তর করলে আমরা সামাজিক ভাবে দাফন কার্য সম্পন্ন করবো।
এ ঘটনায় নাগরপুর থানা অফিসার ইনচার্জ (ওসি) এইচ এম জসিম উদ্দিন বলেন, এলাকাবাসী সূত্রে আত্মহত্যা বলা হচ্ছে। আমরা লাশ উদ্ধার করে টাঙ্গাইল মর্গে প্রেরণ করেছি। পরিবার থেকে কোনো অভিযোগ দায়ের করা হয়নি। লাশ ময়নাতদন্তের পর প্রকৃত ঘটনা জানা যাবে। তদন্ত সাপেক্ষে লাশ হস্তান্তর সহ প্রয়োজনীয় আইনুনাগ ব্যাবস্থা গ্রহণ করা হবে।