ঢাকা , শুক্রবার, ১৪ জুন ২০২৪, ৩১ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
প্রতিনিধি নিয়োগ
দৈনিক সময়ের প্রত্যাশা পত্রিকার জন্য সারা দেশে জেলা ও উপজেলা পর্যায়ে প্রতিনিধি নিয়োগ করা হচ্ছে। আপনি আপনার এলাকায় সাংবাদিকতা পেশায় আগ্রহী হলে যোগাযোগ করুন।

তানোরে সেচ মটর স্থাপন নিয়ে টানটান উত্তেজনা

রাজশাহীর তানোরের পাঁচন্দর ইউনিয়নের (ইউপি) চিমনা মৌজায় অগভীর নকুপের কমান্ড এরিয়ায় সেচ নীতিমালা লঙ্ঘন সেচ মটর স্থাপনের অবিযোগ উঠেছে। এ ঘটনায় প্রাণপুর গ্রামের মৃত ফজলুর রহমানের পুত্র আনোয়ার হোসেন বাদি হয়ে একই গ্রামের ইয়াসিন আলীর পুত্র দেলজান ওরফে রবিউল ইসলামকে বিবাদী করে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও), জেনারেল ম্যানেজার রাজশাহী পল্লী বিদ্যুৎ সমিতি ও তানোর বিএমডিএ সহকারী প্রকৌশলীর কাছে লিখিত অভিযোগ করেছেন।
এদিকে এই সেচ মটর  স্থাপন নিয়ে বিবাদমান দু’পক্ষের মাঝে টানটান উত্তেজনা বিরাজ করছে। এ মটরে বিদ্যুৎ সংযোগ দেযা হলে খুন-জখম বা রক্তক্ষয়ী সংঘর্ষের ঘটনা ঘটতে পারে বলে গ্রামবাসি শঙ্কিত  হয়ে পড়েছে।
প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, রবিউল তার লোকজন নিয়ে প্রতিরাতে দেশীয় অস্ত্র সজ্জিত চিমনা মাঠে ঘোরাফেরা করছে।এ নিয়ে গ্রামবাসীর মাঝে অজানা আতঙ্ক বিরাজ করছে।
সংশ্লিষ্ট সুত্র জানায়, বিএমডিএ’র গভীর নলকুপের প্রায় এক হাজার ৫শ” মিটার ও অগভীর নলকুপের প্রায় ৯শ” মিটার কমান্ড এরিযা। এসব কমান্ড এরিয়ার মধ্যে গভীর-অগভীর নলকুপ স্থাপনের কোনো সুযোগ নাই, আর অনুমোদন দেয়ার তো প্রশ্নই আসে না। ভুক্তভোগীদের অভিযোগ বিদায়ী ইউএনও, বিএমডিএ’র সহকারী প্রকৌশলী ও পল্লী বিদ্যুতের এজিএম পরস্পর যোগসাজশে মটর প্রতি প্রায় ১০ লাখ টাকা আর্থিক সুবিধা নিয়ে গভীর-অগভীর নলকুপের কমান্ড এরিয়ায়, সেচ মটর স্থাপনের অনুমতি দিয়েছেন।
তারা বলেন, এতো বড় দুর্নীতির সরেজমিন তদন্ত হওয়া প্রয়োজন।
এ বিষয়ে জানতে চাইলে তানোর বিএমডিএ’র সহকারী প্রকৌশলী বলেন, গভীর-অগভীর নলকুপের কমান্ড এরিয়ায় সেচ মটর স্থাপনের কোনো সুযোগ নাই, আর অনুমোদন বা বিদ্যুৎ সংযোগ দেবার প্রশ্নই আসে না।
তিনি বলেন, কিভাবে এসব সেচ মটরের অনুমোদন দিয়েছে তিনি বলতে পারবেন না, তিনি এখানে নতুন এসেছেন।
এ বিষয়ে দেলজান ওরফে রবিউল ইসলাম এসব অভিযোগ অস্বীকার করে বলেন, তিনি সেচ কমিটির অনুমোদন নিয়ে সেচ মটর বসিয়েছেন।
এ বিষয়ে আনোয়ার হোসেন বলেন, কোনো তদন্ত ছাড়াই তার সেচ মটরের কমান্ড এরিয়ায় অবৈধভাবে রবিউলের সেচ মটর বসানোর অনুমতি দিয়েছে সেচ কমিটি। তিনি এ বিষয়ে দুদুকের তদন্ত দাবি করেছেন।
Tag :
এই অথরের আরো সংবাদ দেখুন

জনপ্রিয় সংবাদ
error: Content is protected !!

তানোরে সেচ মটর স্থাপন নিয়ে টানটান উত্তেজনা

আপডেট টাইম : ১০:১৯ অপরাহ্ন, শনিবার, ১৩ এপ্রিল ২০২৪
রাজশাহীর তানোরের পাঁচন্দর ইউনিয়নের (ইউপি) চিমনা মৌজায় অগভীর নকুপের কমান্ড এরিয়ায় সেচ নীতিমালা লঙ্ঘন সেচ মটর স্থাপনের অবিযোগ উঠেছে। এ ঘটনায় প্রাণপুর গ্রামের মৃত ফজলুর রহমানের পুত্র আনোয়ার হোসেন বাদি হয়ে একই গ্রামের ইয়াসিন আলীর পুত্র দেলজান ওরফে রবিউল ইসলামকে বিবাদী করে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও), জেনারেল ম্যানেজার রাজশাহী পল্লী বিদ্যুৎ সমিতি ও তানোর বিএমডিএ সহকারী প্রকৌশলীর কাছে লিখিত অভিযোগ করেছেন।
এদিকে এই সেচ মটর  স্থাপন নিয়ে বিবাদমান দু’পক্ষের মাঝে টানটান উত্তেজনা বিরাজ করছে। এ মটরে বিদ্যুৎ সংযোগ দেযা হলে খুন-জখম বা রক্তক্ষয়ী সংঘর্ষের ঘটনা ঘটতে পারে বলে গ্রামবাসি শঙ্কিত  হয়ে পড়েছে।
প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, রবিউল তার লোকজন নিয়ে প্রতিরাতে দেশীয় অস্ত্র সজ্জিত চিমনা মাঠে ঘোরাফেরা করছে।এ নিয়ে গ্রামবাসীর মাঝে অজানা আতঙ্ক বিরাজ করছে।
সংশ্লিষ্ট সুত্র জানায়, বিএমডিএ’র গভীর নলকুপের প্রায় এক হাজার ৫শ” মিটার ও অগভীর নলকুপের প্রায় ৯শ” মিটার কমান্ড এরিযা। এসব কমান্ড এরিয়ার মধ্যে গভীর-অগভীর নলকুপ স্থাপনের কোনো সুযোগ নাই, আর অনুমোদন দেয়ার তো প্রশ্নই আসে না। ভুক্তভোগীদের অভিযোগ বিদায়ী ইউএনও, বিএমডিএ’র সহকারী প্রকৌশলী ও পল্লী বিদ্যুতের এজিএম পরস্পর যোগসাজশে মটর প্রতি প্রায় ১০ লাখ টাকা আর্থিক সুবিধা নিয়ে গভীর-অগভীর নলকুপের কমান্ড এরিয়ায়, সেচ মটর স্থাপনের অনুমতি দিয়েছেন।
তারা বলেন, এতো বড় দুর্নীতির সরেজমিন তদন্ত হওয়া প্রয়োজন।
এ বিষয়ে জানতে চাইলে তানোর বিএমডিএ’র সহকারী প্রকৌশলী বলেন, গভীর-অগভীর নলকুপের কমান্ড এরিয়ায় সেচ মটর স্থাপনের কোনো সুযোগ নাই, আর অনুমোদন বা বিদ্যুৎ সংযোগ দেবার প্রশ্নই আসে না।
তিনি বলেন, কিভাবে এসব সেচ মটরের অনুমোদন দিয়েছে তিনি বলতে পারবেন না, তিনি এখানে নতুন এসেছেন।
এ বিষয়ে দেলজান ওরফে রবিউল ইসলাম এসব অভিযোগ অস্বীকার করে বলেন, তিনি সেচ কমিটির অনুমোদন নিয়ে সেচ মটর বসিয়েছেন।
এ বিষয়ে আনোয়ার হোসেন বলেন, কোনো তদন্ত ছাড়াই তার সেচ মটরের কমান্ড এরিয়ায় অবৈধভাবে রবিউলের সেচ মটর বসানোর অনুমতি দিয়েছে সেচ কমিটি। তিনি এ বিষয়ে দুদুকের তদন্ত দাবি করেছেন।