1. somoyerprotyasha@gmail.com : A.S.M. Murshid :
  2. letusikder@gmail.com : Litu Sikder : Litu Sikder
  3. mokterreporter@gmail.com : Mokter Hossain : Mokter Hossain
  4. tussharpress@gmail.com : Tusshar Bhattacharjee : Tusshar Bhattacharjee
বিদেশের মাটিতে প্রথম স্বাধীন বাংলার পতাকা উত্তোলনকারী রাষ্ট্রদূত এম. হোসেন আলী - দৈনিক সময়ের প্রত্যাশা ডটকম
মঙ্গলবার, ২৫ জানুয়ারী ২০২২, ১০:৪৪ অপরাহ্ন
শিরোনাম :
সালথায় পরীক্ষামূলক পাটবীজ চাষে সফলতা সনাতন রীতিতে পাংশার ডাকুরিয়া মহাশ্মশানে বট-পাকুড়ের বিয়েতে আলোড়ন ভেড়ামারায় বিট পুলিশং সভা অনুষ্ঠিত ভেড়ামারায় সড়ক দুর্ঘটনায় ১জন মৃত্যু বিধিনিষেধের মধ্যে গাজির গীত, অর্থদন্ড করলেন ইউএনও আলফাডাঙ্গায় মাদ্রাসা শিক্ষার্থীদের মাঝে কোরআন বিতরণ ও দোয়া সদরপুরে কিস্তির টাকা পরিশোধ করতে না পারায় আত্নহত্যা  চরভদ্রাসনে শীতার্তদের মাঝে উপজেলা প্রশাসনের কম্বল বিতরন অব্যাহত নাট্যালোকের উদ্যোগে পাংশায় ইঞ্জিনিয়ার একেএম রফিক উদ্দিনকে সাহিত্যিক এয়াকুব আলী চৌধুরী স্মৃতি সম্মাননা পদক প্রদান মাগুরায় সমবায় সংগঠনের দিনব্যাপী ভ্রাম্যমাণ প্রশিক্ষণের আয়োজন 

বিদেশের মাটিতে প্রথম স্বাধীন বাংলার পতাকা উত্তোলনকারী রাষ্ট্রদূত এম. হোসেন আলী

শুভাশীষ ভট্টাচার্য্য তুষার, পাবনা প্রতিনিধিঃ
  • আপডেট টাইম : রবিবার, ১৮ এপ্রিল, ২০২১
  • ৩১ বার পঠিত

১৯৭১ সালে মহান মুক্তিযুদ্ধে বিদেশের মাটিতে প্রথম স্বাধীন বাংলার পতাকা উত্তোলনকারী এবং প্রথম কুটনীতিক যিনি পাকিস্তানের পক্ষ ত্যাগ করে ৬৫ জন সহকর্মী নিয়ে মুক্তিযুদ্ধে যোগ দিয়েছিলেন, তিনি হলেন পাবনার ভাঙ্গুড়া উপজেলার কৃতি সন্তান বীর মুক্তিযোদ্ধা রাষ্ট্রদূত এম. হোসেন আলী।

১৯৭১ সালের ১৭ এপ্রিল মেহেরপুর জেলার মুজিব নগরে প্রবাসী সরকারের শপথ গ্রহনের পরেরদিন ১৮ এপ্রিল কলকাতায় অবস্থিত পাকিস্তানের উপ দুতাবাসের ডিপুটি হাইকমিশনার এম. হোসেন আলী তাঁর অফিস থেকে পাকিস্তানী পতাকা নামিয়ে স্বাধীন বাংলার পতাকা উত্তোলন করেন। তাঁর অধীনস্থ ৬৫ জন বাঙালী কর্মকর্তা কর্মচারী বাংলাদেশের পক্ষ অবলম্বন করেন। এই ঘটনাটি তৎকালীন সময়ে আন্তর্জাতিক বিশ্বে আলোচিত ঘটনা হয়। ঠিক তেমনি বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধে এ ঘটনাটি দারুনভাবে আলোড়িত হয়।

উল্লেখিত ঘটনার পর প্রবাসী মুজিবনগর সরকার কলকাতার হাই কমিশনকে বাংলাদেশ মিশন নামকরন করে এম. হোসেন আলীকে জৈষ্ঠ কুটনীতিক হিসেবে নিয়োগ প্রদান করেন। মুক্তিযুদ্ধের সাথে জড়িতরা সবাই জানেন, মুক্তিযুদ্ধে তাঁর অসামান্য অবদানের কথা। মুক্তিযুদ্ধে বাংলাদেশ মিশন ছিল প্রবাসী সরকারের প্রধান কেন্দ্রস্থল। এখান থেকেই ভারতের কেন্দ্রীয় সরকারের সাথে সার্বক্ষণিক যোগাযোগ করা হতো। বাংলাদেশ থেকে লক্ষ লক্ষ শরনার্থীর আশ্রয় খাদ্যে সহ প্রয়োজনীয় সামগ্রী সরবরাহে ব্যবস্থা গ্রহন করা এবং পরবর্তীতে মুক্তিযোদ্ধাদের প্রশিক্ষণ এবং অস্ত্র প্রদানের ব্যবস্থা করা সহ আন্তর্জাতিক পর্যায়ে সমর্থন, সহযোগীতা এবং কুটনৈতিক তৎপরতার সব কিছু পরিচালিত হতো কলকাতার পার্ক ষ্ট্রীটে অবস্থিত বাংলাদেশ মিশন থেকে। আর এই সকল কর্মকান্ডের নেপথ্য কারিগর ছিলেন, মিশন প্রধান এম. হোসেন আলী।

বীর মুক্তিযোদ্ধা রাষ্ট্রদূত এম. হোসেন আলী। -ছবি সংগৃহীত।


Print Friendly, PDF & Email

নিউজটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর..

 

 

Copyright August, 2020-2022 @ somoyerprotyasha.com
Website Hosted by: Bdwebs.com
themesbazarsomoyerpr1
error: Content is protected !!