ঢাকা , বৃহস্পতিবার, ১৮ জুলাই ২০২৪, ২ শ্রাবণ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
সংবাদ শিরোনাম
Logo বিদেশি পিস্তল ও গুলিসহ বাঘায় র‌্যাব কর্তৃক ২ জন অস্ত্র ব্যবসায়ী গ্রেপ্তার Logo গোমস্তাপুরে পুকুরে ডুবে এক শিশুর মৃত্যু Logo কালুখালীতে গোসল করতে গিয়ে যুবকের মৃত্যু Logo ফরিদপুর শহর ‌কৃষকলীগের বৃক্ষরোপণ ‌ও কর্মী সভা অনুষ্ঠিত Logo গোয়ালন্দে পবিত্র আশুরা উপলক্ষে তাজিয়া মিছিল অনুষ্ঠিত Logo তানোরে বঙ্গবন্ধু অনূর্ধ্ব-১৭ ফুটবল টুর্নামেন্ট সম্পন্ন Logo দেড় ঘণ্টার নোটিশে ইবির হল ছাড়ার নির্দেশ, বিপাকে শিক্ষার্থীরা Logo সদরপুরে মিথ্যা-ভিত্তিহীন সংবাদের প্রতিবাদে ভাষাণচর ইউপি চেয়ারম্যানের সংবাদ সম্মেলন Logo বোয়ালমারীতে অবৈধভাবে সরকারি জমিতে পাকা স্থাপনা বানানোর অভিযোগ Logo ভাঙ্গায় কোটা সংস্কার আন্দোলনের প্রস্তুতি, ছত্রভঙ্গঃ আটক ১০
প্রতিনিধি নিয়োগ
দৈনিক সময়ের প্রত্যাশা পত্রিকার জন্য সারা দেশে জেলা ও উপজেলা পর্যায়ে প্রতিনিধি নিয়োগ করা হচ্ছে। আপনি আপনার এলাকায় সাংবাদিকতা পেশায় আগ্রহী হলে যোগাযোগ করুন।

তানোর পল্লী বিদ্যুৎ অফিসে ফের দালালদের দৌরাত্ম্যে

রাজশাহী পল্লী বিদ্যুৎ সমিতি (পবিস) তানোর এরিয়া কার্য্যালয়ে ফের দালালদের দৌরাত্ম্যে সাধারণ গ্রাহকগণ  অতিষ্ঠ হয়ে উঠেছে। স্থানীয়দের অভিযোগ, তানোর পল্লী বিদ্যুৎ কার্য্যালয় আকুন্ঠ দূর্নীতিতে নিমজ্জিত হয়ে অনিয়ম-দূর্নীতির আখড়ায় পরিণত উঠেছে। তানোর পল্লী বিদ্যুৎ কার্যালয়ের একশ্রেণীর কর্মকর্তার নেপথ্যে মদদে গড়ে উঠেছে একটি দালাল চক্র সিন্ডিকেট।
সূত্র জানায়, রাজনৈতিক পরিচয়ে একশ্রেণীর কথিত প্রশিক্ষণপ্রাপ্ত টেকনিশিয়ান (লাইনম্যান) এখানে দালাল হিসেবে কাজ করছে। দালাল সিন্ডিকেট চক্রের গড ফাদার বহিরাগত দু’ভাই।
এদিকে বিদ্যুৎ বিভাগের সঙ্গে এসব দালালদের কোনো সংশ্লিষ্টতা না থাকলেও। তাদের অনেকে প্রতিনিয়ত পল্লী বিদ্যুৎ অফিসে সকাল থেকে সন্ধ্যা পর্যন্ত, অবস্থান করে নিয়মিত কর্মকর্তা-কর্মচারিদের সঙ্গে দাফতরিক কাজ করেন বলেও অভিযোগ উঠেছে।
স্থানীয়রা জানান, মাদারীপুর এলাকার বহিরাগত দু’ভাই দালাল সিন্ডিকেট চক্র নিয়ন্ত্রণ করছে। তারা বলেন, অফিসে কোনো গ্রাহক আসা মাত্র অফিস থেকে কৌশলে তাদের দালালদের কাছে পাঠানো হচ্ছে। কাজে ক্রটি থাক বা না থাক এখানে নিদ্রিষ্ট  দালালের মাধ্যমে কাজ করতে হচ্ছে, ব্যতিক্রম হলে সাধারণ গ্রাহকদের নানা ভাবে হয়রানি করা হচ্ছে বলেও একাধিক সূত্র
নিশ্চিত করেছে। দুই দালালের এক ভাইয়ের বিরুদ্ধে গ্রাহকের টাকা আত্মসাৎ অপর ভাইয়ের বিরুদ্ধে থানায় অবৈধভাবে মিটার স্থানান্তরের অভিযোগ রয়েছে।
অন্যদিকে দালালদের নিয়ন্ত্রক বহিরাগত যুবকের মোটরসাইকেলে এজিএম সাহেব চলাফেরা করায় ভয়ে দালালদের বিরুদ্ধে কেউ কোনো প্রতিবাদ করতে সাহস পায় না।
এই দালাল কোনো কোনো ক্ষেত্রে নিজেকে এজিএম  সাহেবের একান্ত সহকারী বলেও সাধারণ মানুষের কাছ থেকে হাজার হাজার টাকা হাতিয়ে নিচ্ছেন বলেও গ্রাহকদের মধ্যে প্রচার রয়েছে।
স্থানীয়দের অভিযোগ, তানোর পল্লী বিদ্যুৎ সমিতির একশ্রেণীর কর্মকর্তার যোগসাজশে কথিত লাইনম্যানরা (দালাল) সাধারণ
গ্রাহকের মিটারে গ্রাহক ক্রটি দেখিয়ে হাজার হাজার টাকা হাতিয়ে নিয়ে জম্পেশ ঘুষ বাণিজ্য  করছেন। এছাড়াও রাতের আঁধারে কথিত লাইনম্যানরা (দালাল) সাধারণ গ্রাহকের মিটারের সিলমোহর কেটে দিয়ে গ্রাহকদের মামলা-মোর্কদ্দমার ভয় দেখিয়েও হাজার হাজার টাকা হাতিয়ে নিচ্ছেন বলেও গ্রাহকদের মাঝে আলোচনা রয়েছে।
ইতোমধ্যে এসব দালালদের রাহুগ্রাস থেকে পরিত্রাণের আশায় সাধারণ গ্রাহকরা বিষয়টি পল্লী বিদ্যুৎ সমিতির রাজশাহী জেনারেল মানেজারের (জিএম) কাছে লিখিত অভিযোগ করলেও কোনো প্রতিকার পায়নি।
এ বিষয়ে তানোর পল্লী বিদ্যুৎ সমিতির কর্মকর্তা (ডিজিএম) জহুরুল ইসলাম এসব অভিযোগ অস্বীকার করে বলেন, তার অফিসে দালালদের কোনো অস্থিত্ব নাই। তিনি বলেন, কারো বিরুদ্ধে সুনিদ্রিষ্ট অভিযোগ পেলে যথাযথ ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।
এ বিষয়ে রাজশাহী পল্লী বিদ্যুৎ সমিতির জেনারেল ম্যানেজার (জিএম) বলেন, এ বিষয়ে তিনি এখানো কোনো লিখিত অভিযোগ পাননি। তবে এ বিষয়ে বিস্তারিত খোঁজখবর নিয়ে দেখা হবে বলে তিনি জানান।
Tag :
এই অথরের আরো সংবাদ দেখুন

জনপ্রিয় সংবাদ

বিদেশি পিস্তল ও গুলিসহ বাঘায় র‌্যাব কর্তৃক ২ জন অস্ত্র ব্যবসায়ী গ্রেপ্তার

error: Content is protected !!

তানোর পল্লী বিদ্যুৎ অফিসে ফের দালালদের দৌরাত্ম্যে

আপডেট টাইম : ০৭:০৭ পূর্বাহ্ন, রবিবার, ৭ জুলাই ২০২৪
রাজশাহী পল্লী বিদ্যুৎ সমিতি (পবিস) তানোর এরিয়া কার্য্যালয়ে ফের দালালদের দৌরাত্ম্যে সাধারণ গ্রাহকগণ  অতিষ্ঠ হয়ে উঠেছে। স্থানীয়দের অভিযোগ, তানোর পল্লী বিদ্যুৎ কার্য্যালয় আকুন্ঠ দূর্নীতিতে নিমজ্জিত হয়ে অনিয়ম-দূর্নীতির আখড়ায় পরিণত উঠেছে। তানোর পল্লী বিদ্যুৎ কার্যালয়ের একশ্রেণীর কর্মকর্তার নেপথ্যে মদদে গড়ে উঠেছে একটি দালাল চক্র সিন্ডিকেট।
সূত্র জানায়, রাজনৈতিক পরিচয়ে একশ্রেণীর কথিত প্রশিক্ষণপ্রাপ্ত টেকনিশিয়ান (লাইনম্যান) এখানে দালাল হিসেবে কাজ করছে। দালাল সিন্ডিকেট চক্রের গড ফাদার বহিরাগত দু’ভাই।
এদিকে বিদ্যুৎ বিভাগের সঙ্গে এসব দালালদের কোনো সংশ্লিষ্টতা না থাকলেও। তাদের অনেকে প্রতিনিয়ত পল্লী বিদ্যুৎ অফিসে সকাল থেকে সন্ধ্যা পর্যন্ত, অবস্থান করে নিয়মিত কর্মকর্তা-কর্মচারিদের সঙ্গে দাফতরিক কাজ করেন বলেও অভিযোগ উঠেছে।
স্থানীয়রা জানান, মাদারীপুর এলাকার বহিরাগত দু’ভাই দালাল সিন্ডিকেট চক্র নিয়ন্ত্রণ করছে। তারা বলেন, অফিসে কোনো গ্রাহক আসা মাত্র অফিস থেকে কৌশলে তাদের দালালদের কাছে পাঠানো হচ্ছে। কাজে ক্রটি থাক বা না থাক এখানে নিদ্রিষ্ট  দালালের মাধ্যমে কাজ করতে হচ্ছে, ব্যতিক্রম হলে সাধারণ গ্রাহকদের নানা ভাবে হয়রানি করা হচ্ছে বলেও একাধিক সূত্র
নিশ্চিত করেছে। দুই দালালের এক ভাইয়ের বিরুদ্ধে গ্রাহকের টাকা আত্মসাৎ অপর ভাইয়ের বিরুদ্ধে থানায় অবৈধভাবে মিটার স্থানান্তরের অভিযোগ রয়েছে।
অন্যদিকে দালালদের নিয়ন্ত্রক বহিরাগত যুবকের মোটরসাইকেলে এজিএম সাহেব চলাফেরা করায় ভয়ে দালালদের বিরুদ্ধে কেউ কোনো প্রতিবাদ করতে সাহস পায় না।
এই দালাল কোনো কোনো ক্ষেত্রে নিজেকে এজিএম  সাহেবের একান্ত সহকারী বলেও সাধারণ মানুষের কাছ থেকে হাজার হাজার টাকা হাতিয়ে নিচ্ছেন বলেও গ্রাহকদের মধ্যে প্রচার রয়েছে।
স্থানীয়দের অভিযোগ, তানোর পল্লী বিদ্যুৎ সমিতির একশ্রেণীর কর্মকর্তার যোগসাজশে কথিত লাইনম্যানরা (দালাল) সাধারণ
গ্রাহকের মিটারে গ্রাহক ক্রটি দেখিয়ে হাজার হাজার টাকা হাতিয়ে নিয়ে জম্পেশ ঘুষ বাণিজ্য  করছেন। এছাড়াও রাতের আঁধারে কথিত লাইনম্যানরা (দালাল) সাধারণ গ্রাহকের মিটারের সিলমোহর কেটে দিয়ে গ্রাহকদের মামলা-মোর্কদ্দমার ভয় দেখিয়েও হাজার হাজার টাকা হাতিয়ে নিচ্ছেন বলেও গ্রাহকদের মাঝে আলোচনা রয়েছে।
ইতোমধ্যে এসব দালালদের রাহুগ্রাস থেকে পরিত্রাণের আশায় সাধারণ গ্রাহকরা বিষয়টি পল্লী বিদ্যুৎ সমিতির রাজশাহী জেনারেল মানেজারের (জিএম) কাছে লিখিত অভিযোগ করলেও কোনো প্রতিকার পায়নি।
এ বিষয়ে তানোর পল্লী বিদ্যুৎ সমিতির কর্মকর্তা (ডিজিএম) জহুরুল ইসলাম এসব অভিযোগ অস্বীকার করে বলেন, তার অফিসে দালালদের কোনো অস্থিত্ব নাই। তিনি বলেন, কারো বিরুদ্ধে সুনিদ্রিষ্ট অভিযোগ পেলে যথাযথ ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।
এ বিষয়ে রাজশাহী পল্লী বিদ্যুৎ সমিতির জেনারেল ম্যানেজার (জিএম) বলেন, এ বিষয়ে তিনি এখানো কোনো লিখিত অভিযোগ পাননি। তবে এ বিষয়ে বিস্তারিত খোঁজখবর নিয়ে দেখা হবে বলে তিনি জানান।