ঢাকা , শুক্রবার, ১২ জুলাই ২০২৪, ২৮ আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
সংবাদ শিরোনাম
Logo ফরিদপুর জেলা প্রশাসনের উদ্যোগে ভ্রাম্যমান আদালতের অভিযান Logo কোটা আন্দোলন : শিবগঞ্জে শিক্ষার্থীদের বিক্ষোভ-সমাবেশ Logo মাগুরায় চাকরির প্রলোভনে টাকা হাতিয়ে উল্টো ভুক্তভোগীর বিরুদ্ধেই মামলার অভিযোগ Logo খোকসায় উপজেলা ছাত্র কল্যাণ পরিষদ মেধাবী শিক্ষার্থী মারিয়াকে সংবর্ধনা প্রদান Logo চাঁপাইনবাবগঞ্জে বজ্রপাতে দুই কৃষক নিহত Logo কালুখালীতে ফুটবল টুর্ণামেন্টের ফাইনাল খেলা Logo ১২০ কেজি অবৈধ পলিথিন জব্দ, ১২ হাজার টাকা জরিমানা করেছে ভ্রাম্যমান আদালত Logo তানোরে সড়ক দূর্ঘটনায় শোডাউনের এক মাইক্রোবাস চালক নিহত Logo যৌতুকের দাবিতে কলেজছাত্রীকে পিটিয়ে হত্যার অভিযোগ Logo সদরপুরে ৪ কেজি গাঁজা সহ ব্যবসায়ী কে আটক করেছে ডি বি পুলিশ
প্রতিনিধি নিয়োগ
দৈনিক সময়ের প্রত্যাশা পত্রিকার জন্য সারা দেশে জেলা ও উপজেলা পর্যায়ে প্রতিনিধি নিয়োগ করা হচ্ছে। আপনি আপনার এলাকায় সাংবাদিকতা পেশায় আগ্রহী হলে যোগাযোগ করুন।

ফরিদপুর জেলা পুলিশের প্রেস ব্রিফিং অনুষ্ঠিত

ফরিদপুর জেলা পুলিশের ‌ প্রেস ব্রিফিং অনুষ্ঠিত হয়েছে । জেলার  ভাঙ্গা থানাধীন হোগলাডাঙ্গী গ্রামে চাঞ্চল্যকর ধর্ষণসহ হত্যা মামলার মূল রহস্য উদঘাটন ও আসামী গ্রেফতার সংক্রান্তে উক্ত প্রেস ব্রিফিং অনুষ্ঠিত হয়।
আজ সোমবার সকাল ১১টা ২০ মিনিটে জেলা পুলিশের কার্যালয় এতে সাংবাদিকদের বিভিন্ন তথ্য প্রদান করেন ফরিদপুরের পুলিশ সুপার মোঃ মোর্শেদ আলম।
এ সময় উপস্থিত ছিলেন অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মোহাম্মদ সালাহউদ্দিন, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার শৈলেন চাকমা,  টি আই তুহিন লস্কর সহ জেলা পুলিশের অন্যান্য কর্মকর্তাবৃন্দ এ সময় ফরিদপুরের বিভিন্ন প্রিন্ট ও ইলেকট্রনিক মিডিয়ার উপস্থিত ছিলেন।
প্রেস ব্রিফিং এ সাংবাদিকদের  জানানো হয় ।
গত ২৮ জুন  বিকাল অনুমান ৫ টার  সময় ভাঙ্গা থানাধীন হোগলাডাঙ্গীর  জনৈক টুকু মাতুব্বর বাদীনির বাড়ীতে দৌড়ে এসে জানায় যে, বাদীনির বাড়ীর দক্ষিণ পাশে জনৈক আলমগীর মোল্যার পাটক্ষেতে বাদীনির মেয়ে রেখা (১৫) এর লাশ পড়ে আছে। উক্ত সংবাদে এলাকায় শোরগোল পড়ে যায়। বাদীনি তাৎক্ষণিকভাবে ঘটনাস্থলে গিয়ে তার মেয়ের লাশ সনাক্ত করে। পরবর্তীতে পুলিশ সংবাদ পেয়ে তাৎক্ষণিক ঘটনাস্থলে গিয়ে লাশ উদ্ধার করে এবং মৃত দেহের সুরতহাল রিপোর্ট প্রস্তুত করে ময়নাতদন্তদের জন্য ফরিদপুর বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান মেডিকেল কলেজ মর্গে প্রেরণ করে।
উক্ত ঘটনার প্রেক্ষিতে  রেখা(১৫) এর মা মেরী আক্তার (৪২) অজ্ঞাতনামা আসামীর বিরুদ্ধে ভাঙ্গা থানায় একটি ধর্ষণসহ হত্যা মামলা দায়ের করে। যার মামলা নং- ৪৬, তারিখ- ২৯/০৬/২৪ খ্রিঃ, ধারা-নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইন ২০০০ (সংশোধনী/২০০৩) এর ৯(২)।
মামলা রুজুর পর পুলিশ সুপারের দিক নির্দেশনায়, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার, ভাঙ্গা সার্কেল ও অফিসার ইনচার্জ ভাঙ্গা থানা, ফরিদপুরের নেতৃত্বে গুপ্তচর নিয়োগ ও তথ্য প্রযুক্তির সহায়তায় ঘটনায় জড়িত আসামী সনাক্ত ও গ্রেফতারের জন্য ভাঙ্গা থানা ও জেলা গোয়েন্দা পুলিশের একটি চৌকস দল অভিযান শুরু করে।
তথ্য প্রযুক্তির সহায়তায় ও স্থানীয় সোর্সের মাধ্যমে ঘটনার সাথে জড়িত সন্দেহে শাহজালাল ওরফে শাহাদাত কে সনাক্ত করে গত ২৯ জুন  সন্ধ্যা ৭ টায়   ভাঙ্গা পৌরসভার হোগলাডাঙ্গীর  অভিযুক্তের বসতবাড়ী হতে গ্রেফতার করা হয়। জিজ্ঞাসাবাদে সে ঘটনার সাথে জড়িত থাকার কথা স্বীকার করে এবং সে জানায় যে, ভিকটিম তার সম্পর্কে চাচাত বোন হয়। গত ২৮ জুন বেলা অনুমান ১২.৩০ মিনিটের সময় ভিকটিম তাদের বাড়ীর উত্তর পাশের পুকুরে গোসল করতে যায়।
ঐসময়ে উক্ত অভিযুক্ত পুকুর পাড়ে গিয়ে ভিকটিমকে মোবাইলে পর্নো ছবি দেখানোর লোভ দেখিয়ে ফুসলিয়ে পুকুরের পাশে থাকা জনৈক আলমগীর মোল্যার পাটক্ষেতে নিয়ে যায় এবং অভিযুক্ত শাহজালাল ওরফে শাহাদাত (১৬) ভিকটিমের পরনের স্যালোয়ার খুলে তাকে ধর্ষণ করে।
ধর্ষণ পরবর্তীতে ভিকটিম রেখা(১৫) ঘটনার কথা তার মা-বাবার কাছে বলে দিবে মর্মে জানায়। তখন অভিযুক্ত তাকে ঘটনার বিষয়ে কাউকে না বলার জন্য অনুরোধ করে। তবুও ভিকটিম তার অনুরোধ না শুনে ঘটনা বলে দিবে বলে জানায়। তখন অভিযুক্ত শাহজালাল ওরফে শাহাদাত (১৬) ক্ষিপ্ত হয়ে ভিকটিমকে লাল রঙের স্যালোয়ার দিয়ে তার গলায় ফাঁস লাগিয়ে হত্যা করে পালিয়ে ঘটনাস্থলের পাশে রেললাইন এর দিকে চলে যায়। কিছুক্ষণ পর সে নিজের বাড়িতে এসে এই ঘটনার বিষয়ে তার বাবা টুকু মাতুব্বর (৫০) কে জানায়। তখন তার বাবা তাকে গালমন্দ করে।
এরপর অভিযুক্তের পিতা বিকাল অনুমান ৫.টার  দিকে ধান ক্ষেত দেখতে যাওয়ার ভান করে ঘটনাস্থলে গিয়ে ডিসিস্টের লাশ দেখে এসে একটি নাটক সাজিয়ে বাদীনিকে বলে যে, পাটক্ষেতের মধ্য তোমার মেয়ে রেখার লাশ পড়ে আছে।গ্রেফতারকৃত অভিযুক্ত শাহজালাল ওরফে শাহাদাত (১৬) ‘কে বিধিমোতাবেক বিজ্ঞ আদালতে সোপর্দ করা হয়। অভিযুক্ত স্বেচ্ছায় বিজ্ঞ আদালতে ফৌজদারি কার্যবিধি ১৬৪ ধারা মোতাবেক দোষ স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি প্রদান করে।
Tag :
এই অথরের আরো সংবাদ দেখুন

জনপ্রিয় সংবাদ

ফরিদপুর জেলা প্রশাসনের উদ্যোগে ভ্রাম্যমান আদালতের অভিযান

error: Content is protected !!

ফরিদপুর জেলা পুলিশের প্রেস ব্রিফিং অনুষ্ঠিত

আপডেট টাইম : ১২:৪৭ অপরাহ্ন, সোমবার, ১ জুলাই ২০২৪
ফরিদপুর জেলা পুলিশের ‌ প্রেস ব্রিফিং অনুষ্ঠিত হয়েছে । জেলার  ভাঙ্গা থানাধীন হোগলাডাঙ্গী গ্রামে চাঞ্চল্যকর ধর্ষণসহ হত্যা মামলার মূল রহস্য উদঘাটন ও আসামী গ্রেফতার সংক্রান্তে উক্ত প্রেস ব্রিফিং অনুষ্ঠিত হয়।
আজ সোমবার সকাল ১১টা ২০ মিনিটে জেলা পুলিশের কার্যালয় এতে সাংবাদিকদের বিভিন্ন তথ্য প্রদান করেন ফরিদপুরের পুলিশ সুপার মোঃ মোর্শেদ আলম।
এ সময় উপস্থিত ছিলেন অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মোহাম্মদ সালাহউদ্দিন, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার শৈলেন চাকমা,  টি আই তুহিন লস্কর সহ জেলা পুলিশের অন্যান্য কর্মকর্তাবৃন্দ এ সময় ফরিদপুরের বিভিন্ন প্রিন্ট ও ইলেকট্রনিক মিডিয়ার উপস্থিত ছিলেন।
প্রেস ব্রিফিং এ সাংবাদিকদের  জানানো হয় ।
গত ২৮ জুন  বিকাল অনুমান ৫ টার  সময় ভাঙ্গা থানাধীন হোগলাডাঙ্গীর  জনৈক টুকু মাতুব্বর বাদীনির বাড়ীতে দৌড়ে এসে জানায় যে, বাদীনির বাড়ীর দক্ষিণ পাশে জনৈক আলমগীর মোল্যার পাটক্ষেতে বাদীনির মেয়ে রেখা (১৫) এর লাশ পড়ে আছে। উক্ত সংবাদে এলাকায় শোরগোল পড়ে যায়। বাদীনি তাৎক্ষণিকভাবে ঘটনাস্থলে গিয়ে তার মেয়ের লাশ সনাক্ত করে। পরবর্তীতে পুলিশ সংবাদ পেয়ে তাৎক্ষণিক ঘটনাস্থলে গিয়ে লাশ উদ্ধার করে এবং মৃত দেহের সুরতহাল রিপোর্ট প্রস্তুত করে ময়নাতদন্তদের জন্য ফরিদপুর বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান মেডিকেল কলেজ মর্গে প্রেরণ করে।
উক্ত ঘটনার প্রেক্ষিতে  রেখা(১৫) এর মা মেরী আক্তার (৪২) অজ্ঞাতনামা আসামীর বিরুদ্ধে ভাঙ্গা থানায় একটি ধর্ষণসহ হত্যা মামলা দায়ের করে। যার মামলা নং- ৪৬, তারিখ- ২৯/০৬/২৪ খ্রিঃ, ধারা-নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইন ২০০০ (সংশোধনী/২০০৩) এর ৯(২)।
মামলা রুজুর পর পুলিশ সুপারের দিক নির্দেশনায়, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার, ভাঙ্গা সার্কেল ও অফিসার ইনচার্জ ভাঙ্গা থানা, ফরিদপুরের নেতৃত্বে গুপ্তচর নিয়োগ ও তথ্য প্রযুক্তির সহায়তায় ঘটনায় জড়িত আসামী সনাক্ত ও গ্রেফতারের জন্য ভাঙ্গা থানা ও জেলা গোয়েন্দা পুলিশের একটি চৌকস দল অভিযান শুরু করে।
তথ্য প্রযুক্তির সহায়তায় ও স্থানীয় সোর্সের মাধ্যমে ঘটনার সাথে জড়িত সন্দেহে শাহজালাল ওরফে শাহাদাত কে সনাক্ত করে গত ২৯ জুন  সন্ধ্যা ৭ টায়   ভাঙ্গা পৌরসভার হোগলাডাঙ্গীর  অভিযুক্তের বসতবাড়ী হতে গ্রেফতার করা হয়। জিজ্ঞাসাবাদে সে ঘটনার সাথে জড়িত থাকার কথা স্বীকার করে এবং সে জানায় যে, ভিকটিম তার সম্পর্কে চাচাত বোন হয়। গত ২৮ জুন বেলা অনুমান ১২.৩০ মিনিটের সময় ভিকটিম তাদের বাড়ীর উত্তর পাশের পুকুরে গোসল করতে যায়।
ঐসময়ে উক্ত অভিযুক্ত পুকুর পাড়ে গিয়ে ভিকটিমকে মোবাইলে পর্নো ছবি দেখানোর লোভ দেখিয়ে ফুসলিয়ে পুকুরের পাশে থাকা জনৈক আলমগীর মোল্যার পাটক্ষেতে নিয়ে যায় এবং অভিযুক্ত শাহজালাল ওরফে শাহাদাত (১৬) ভিকটিমের পরনের স্যালোয়ার খুলে তাকে ধর্ষণ করে।
ধর্ষণ পরবর্তীতে ভিকটিম রেখা(১৫) ঘটনার কথা তার মা-বাবার কাছে বলে দিবে মর্মে জানায়। তখন অভিযুক্ত তাকে ঘটনার বিষয়ে কাউকে না বলার জন্য অনুরোধ করে। তবুও ভিকটিম তার অনুরোধ না শুনে ঘটনা বলে দিবে বলে জানায়। তখন অভিযুক্ত শাহজালাল ওরফে শাহাদাত (১৬) ক্ষিপ্ত হয়ে ভিকটিমকে লাল রঙের স্যালোয়ার দিয়ে তার গলায় ফাঁস লাগিয়ে হত্যা করে পালিয়ে ঘটনাস্থলের পাশে রেললাইন এর দিকে চলে যায়। কিছুক্ষণ পর সে নিজের বাড়িতে এসে এই ঘটনার বিষয়ে তার বাবা টুকু মাতুব্বর (৫০) কে জানায়। তখন তার বাবা তাকে গালমন্দ করে।
এরপর অভিযুক্তের পিতা বিকাল অনুমান ৫.টার  দিকে ধান ক্ষেত দেখতে যাওয়ার ভান করে ঘটনাস্থলে গিয়ে ডিসিস্টের লাশ দেখে এসে একটি নাটক সাজিয়ে বাদীনিকে বলে যে, পাটক্ষেতের মধ্য তোমার মেয়ে রেখার লাশ পড়ে আছে।গ্রেফতারকৃত অভিযুক্ত শাহজালাল ওরফে শাহাদাত (১৬) ‘কে বিধিমোতাবেক বিজ্ঞ আদালতে সোপর্দ করা হয়। অভিযুক্ত স্বেচ্ছায় বিজ্ঞ আদালতে ফৌজদারি কার্যবিধি ১৬৪ ধারা মোতাবেক দোষ স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি প্রদান করে।