ঢাকা , বৃহস্পতিবার, ১৮ জুলাই ২০২৪, ২ শ্রাবণ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
সংবাদ শিরোনাম
Logo বিদেশি পিস্তল ও গুলিসহ বাঘায় র‌্যাব কর্তৃক ২ জন অস্ত্র ব্যবসায়ী গ্রেপ্তার Logo গোমস্তাপুরে পুকুরে ডুবে এক শিশুর মৃত্যু Logo কালুখালীতে গোসল করতে গিয়ে যুবকের মৃত্যু Logo ফরিদপুর শহর ‌কৃষকলীগের বৃক্ষরোপণ ‌ও কর্মী সভা অনুষ্ঠিত Logo গোয়ালন্দে পবিত্র আশুরা উপলক্ষে তাজিয়া মিছিল অনুষ্ঠিত Logo তানোরে বঙ্গবন্ধু অনূর্ধ্ব-১৭ ফুটবল টুর্নামেন্ট সম্পন্ন Logo দেড় ঘণ্টার নোটিশে ইবির হল ছাড়ার নির্দেশ, বিপাকে শিক্ষার্থীরা Logo সদরপুরে মিথ্যা-ভিত্তিহীন সংবাদের প্রতিবাদে ভাষাণচর ইউপি চেয়ারম্যানের সংবাদ সম্মেলন Logo বোয়ালমারীতে অবৈধভাবে সরকারি জমিতে পাকা স্থাপনা বানানোর অভিযোগ Logo ভাঙ্গায় কোটা সংস্কার আন্দোলনের প্রস্তুতি, ছত্রভঙ্গঃ আটক ১০
প্রতিনিধি নিয়োগ
দৈনিক সময়ের প্রত্যাশা পত্রিকার জন্য সারা দেশে জেলা ও উপজেলা পর্যায়ে প্রতিনিধি নিয়োগ করা হচ্ছে। আপনি আপনার এলাকায় সাংবাদিকতা পেশায় আগ্রহী হলে যোগাযোগ করুন।

গোয়ালন্দে স্কুল ছাত্রীকে ধর্ষনের অভিযোগ অর্থ দিয়ে রফাদফার চেষ্টা

অভিযোগ দিলেও থানায় মামলা রেকর্ড হয়নি, হয়নি ছাত্রীর স্বাস্থ্য পরীক্ষা

-ছবি প্রতীকী।

রাজবাড়ীর গোয়ালন্দে ৬ষ্ঠ শ্রেনীর এক স্কুল ছাত্রীকে (১৩) ধর্ষণের অভিযোগ পাওয়া গেছে। অভিযুক্ত পঞ্চাশোর্ধ ব্যাক্তি গোয়ালন্দ বাজারের একজন ব্যবসায়ী। তিনি আর্থিক ক্ষতিপূরণ দিয়ে ঘটনা ধামাচাপা দিতে স্থানীয় প্রভাবশালীদের মাধ্যমে চেষ্টা চালাচ্ছেন।
টাকার বিনিময়ে ঘটনাটি মিমাংসায় দেন-দরবার করা হচ্ছে বলে স্থানীয় ওয়ার্ড কাউন্সিলর স্বীকার করেছেন। রফাদফার মাঝেই তিনদিন পর শিশুটিকে গোয়ালন্দ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে যান স্বজনরা।
সেখান থেকে পুলিশকে অবগত করে অধিকতর পরিক্ষার জন্য রাজবাড়ী সদর হাসপাতালে স্থানান্তর করা হয় শিশুটিকে। পুলিশ ভিকটিম ও তার পরিবারকে থানায় নিয়ে জিজ্ঞাসাবাদ করে একটি অভিযোগ গ্রহন করে। কিন্তু শেষ পর্যন্ত মামলা রেকর্ড, আসামি গ্রেফতার এমনকি সদর হাসপাতালে নিয়ে ভুক্তভোগী শিশুর স্বাস্থ্য পরিক্ষাও করা হয়নি।
গত ১১ জুন মঙ্গলবার বেলা ১১ টার দিকে গোয়ালন্দ পৌরসভা এলাকায়  এ ঘটনাটি ঘটে।
ভুক্তভোগী স্কুলছাত্রী ও তার পরিবারের সদস্যরা জানান, ঘটনার দিন বাড়ির পাশের পাটক্ষেতের পাশ দিয়ে ওই ছাত্রী স্থানীয় এক পুকুরে কাপড়-চোপর ধুতে যায়। এ সময় সিরাজ খাঁ (৫৫) নামের এক ব্যাক্তি সেখানে ঘাস কাটাতেছিল। সে সুযোগ বুঝে শিশুটির গলায় ঘাস কাটার কাঁচি ঠেকিয়ে পাট ক্ষেতের ভিতরে নিয়ে ধর্ষন করে।
বৃহস্পতিবার (২০ জুন) সরেজমিন আলাপকালে শিশুটির মা জানান, তার মেয়ে অনেকটা এলোমেলো অবস্থায় বাড়ি ফিরে এলে আমি তাকে কি হয়েছে জানতে চাই। ভয়ে প্রথমদিকে কিছু না বললেও পরে সে সব জানায়। এরপর আমি বিষয়টি স্থানীয় ওয়ার্ড কাউন্সিলর, বাড়ির পাশের একজন গন্যমান্য ব্যাক্তি ও তার ভাইকে জানাই। তারা বিষয়টি দেখবেন বলে আমাকে আশ্বস্ত করে। ওইদিন সন্ধ্যায় অপরাধী সিরাজের সাথে আমার দেখা হলে সে বিষয়টি চেপে গিয়ে ক্ষতিপূরণ বাবদ আমাকে ৫০ হাজার টাকা দিতে চায়।
রাতে ওই ওয়ার্ড কাউন্সিলর ও বিশিষ্ট ব্যাক্তিও আমাকে  বুঝায় মামলা করলে মেয়েকে আর বিয়ে দিতে পারবেনা। তারচেয়ে আমরা তোমার ক্ষতিপূরণ আদায় করে দেই। কিন্তু তারা সবাই আমার সাথে মূলত তালবাহানা করে সময় পার করে। এর মধ্যে তার মেয়ে অসুস্থ্য হয়ে পড়লে ঘটনার দুইদিন পর ১৩ জুন সকাল ১০ টার দিকে তাকে গোয়ালন্দ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স  নিয়ে যান। সেখানে এক মহিলা ডাক্তার তার মেয়েকে পরিক্ষা করে রাজবাড়ী সদর হাসপাতালে যাওয়ার কথা বলে এবং থানার পুলিশকে খবর দেয়।
পুলিশ এসে তাদেরকে হাসপাতাল হতে থানায় নিয়ে যায়। সেখানে ওসি, এলাকার কাউন্সিলর ও আরো অফিসার ছিল। ওসি তাদের কাছ থেকে  ঘটনা শুনে একটি লিখিত অভিযোগও নেন। পরে বেলা ৩ টার দিকে আমাদের ছেড়ে দিলে আমরা বাড়িতে চলে আসি।
থানায় অভিযোগ দেয়া শিশুটির বড় বোন জানান, আমরা লোক লজ্জার ভয় এবং ছোট বোনের ভবিষ্যৎ চিন্তা করে অনেকটা চুপচাপ হয়ে গিয়েছিলাম। কিন্তু সিরাজ ও তার লোকজন আমাদের সাথে প্রতারনা করেছে। আমরা এ ঘটনার সুষ্ঠু বিচার চাই।
এ প্রসঙ্গে গোয়ালন্দ ঘাট থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) প্রানবন্ধু চন্দ্র বিশ্বাস বলেন, আমরা অভিযোগ পেয়ে আসামিকে গ্রেফতার করতে গিয়েছিলাম। কিন্তু ভিকটিমের পরিবার হতেই আমাদের বাঁধা দেয়া হয়। তারা মামলা রুজু করায় আগ্রহী নয়। শুনলাম তারা  ৫ লাখ টাকা ক্ষতিপূরন দাবি করেছে। অভিযুক্ত সিরাজ ৭০ হাজার টাকা পর্যন্ত দিতে চেয়েছে। এ নিয়ে দেনদরবার চলছে। তবে ভিকটিমের পরিবার চাইলে আমরা মামলা রুজু ও আসামি গ্রেফতার করব।
Tag :
এই অথরের আরো সংবাদ দেখুন

জনপ্রিয় সংবাদ

বিদেশি পিস্তল ও গুলিসহ বাঘায় র‌্যাব কর্তৃক ২ জন অস্ত্র ব্যবসায়ী গ্রেপ্তার

error: Content is protected !!

গোয়ালন্দে স্কুল ছাত্রীকে ধর্ষনের অভিযোগ অর্থ দিয়ে রফাদফার চেষ্টা

আপডেট টাইম : ০৩:৪৭ অপরাহ্ন, শুক্রবার, ২১ জুন ২০২৪
রাজবাড়ীর গোয়ালন্দে ৬ষ্ঠ শ্রেনীর এক স্কুল ছাত্রীকে (১৩) ধর্ষণের অভিযোগ পাওয়া গেছে। অভিযুক্ত পঞ্চাশোর্ধ ব্যাক্তি গোয়ালন্দ বাজারের একজন ব্যবসায়ী। তিনি আর্থিক ক্ষতিপূরণ দিয়ে ঘটনা ধামাচাপা দিতে স্থানীয় প্রভাবশালীদের মাধ্যমে চেষ্টা চালাচ্ছেন।
টাকার বিনিময়ে ঘটনাটি মিমাংসায় দেন-দরবার করা হচ্ছে বলে স্থানীয় ওয়ার্ড কাউন্সিলর স্বীকার করেছেন। রফাদফার মাঝেই তিনদিন পর শিশুটিকে গোয়ালন্দ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে যান স্বজনরা।
সেখান থেকে পুলিশকে অবগত করে অধিকতর পরিক্ষার জন্য রাজবাড়ী সদর হাসপাতালে স্থানান্তর করা হয় শিশুটিকে। পুলিশ ভিকটিম ও তার পরিবারকে থানায় নিয়ে জিজ্ঞাসাবাদ করে একটি অভিযোগ গ্রহন করে। কিন্তু শেষ পর্যন্ত মামলা রেকর্ড, আসামি গ্রেফতার এমনকি সদর হাসপাতালে নিয়ে ভুক্তভোগী শিশুর স্বাস্থ্য পরিক্ষাও করা হয়নি।
গত ১১ জুন মঙ্গলবার বেলা ১১ টার দিকে গোয়ালন্দ পৌরসভা এলাকায়  এ ঘটনাটি ঘটে।
ভুক্তভোগী স্কুলছাত্রী ও তার পরিবারের সদস্যরা জানান, ঘটনার দিন বাড়ির পাশের পাটক্ষেতের পাশ দিয়ে ওই ছাত্রী স্থানীয় এক পুকুরে কাপড়-চোপর ধুতে যায়। এ সময় সিরাজ খাঁ (৫৫) নামের এক ব্যাক্তি সেখানে ঘাস কাটাতেছিল। সে সুযোগ বুঝে শিশুটির গলায় ঘাস কাটার কাঁচি ঠেকিয়ে পাট ক্ষেতের ভিতরে নিয়ে ধর্ষন করে।
বৃহস্পতিবার (২০ জুন) সরেজমিন আলাপকালে শিশুটির মা জানান, তার মেয়ে অনেকটা এলোমেলো অবস্থায় বাড়ি ফিরে এলে আমি তাকে কি হয়েছে জানতে চাই। ভয়ে প্রথমদিকে কিছু না বললেও পরে সে সব জানায়। এরপর আমি বিষয়টি স্থানীয় ওয়ার্ড কাউন্সিলর, বাড়ির পাশের একজন গন্যমান্য ব্যাক্তি ও তার ভাইকে জানাই। তারা বিষয়টি দেখবেন বলে আমাকে আশ্বস্ত করে। ওইদিন সন্ধ্যায় অপরাধী সিরাজের সাথে আমার দেখা হলে সে বিষয়টি চেপে গিয়ে ক্ষতিপূরণ বাবদ আমাকে ৫০ হাজার টাকা দিতে চায়।
রাতে ওই ওয়ার্ড কাউন্সিলর ও বিশিষ্ট ব্যাক্তিও আমাকে  বুঝায় মামলা করলে মেয়েকে আর বিয়ে দিতে পারবেনা। তারচেয়ে আমরা তোমার ক্ষতিপূরণ আদায় করে দেই। কিন্তু তারা সবাই আমার সাথে মূলত তালবাহানা করে সময় পার করে। এর মধ্যে তার মেয়ে অসুস্থ্য হয়ে পড়লে ঘটনার দুইদিন পর ১৩ জুন সকাল ১০ টার দিকে তাকে গোয়ালন্দ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স  নিয়ে যান। সেখানে এক মহিলা ডাক্তার তার মেয়েকে পরিক্ষা করে রাজবাড়ী সদর হাসপাতালে যাওয়ার কথা বলে এবং থানার পুলিশকে খবর দেয়।
পুলিশ এসে তাদেরকে হাসপাতাল হতে থানায় নিয়ে যায়। সেখানে ওসি, এলাকার কাউন্সিলর ও আরো অফিসার ছিল। ওসি তাদের কাছ থেকে  ঘটনা শুনে একটি লিখিত অভিযোগও নেন। পরে বেলা ৩ টার দিকে আমাদের ছেড়ে দিলে আমরা বাড়িতে চলে আসি।
থানায় অভিযোগ দেয়া শিশুটির বড় বোন জানান, আমরা লোক লজ্জার ভয় এবং ছোট বোনের ভবিষ্যৎ চিন্তা করে অনেকটা চুপচাপ হয়ে গিয়েছিলাম। কিন্তু সিরাজ ও তার লোকজন আমাদের সাথে প্রতারনা করেছে। আমরা এ ঘটনার সুষ্ঠু বিচার চাই।
এ প্রসঙ্গে গোয়ালন্দ ঘাট থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) প্রানবন্ধু চন্দ্র বিশ্বাস বলেন, আমরা অভিযোগ পেয়ে আসামিকে গ্রেফতার করতে গিয়েছিলাম। কিন্তু ভিকটিমের পরিবার হতেই আমাদের বাঁধা দেয়া হয়। তারা মামলা রুজু করায় আগ্রহী নয়। শুনলাম তারা  ৫ লাখ টাকা ক্ষতিপূরন দাবি করেছে। অভিযুক্ত সিরাজ ৭০ হাজার টাকা পর্যন্ত দিতে চেয়েছে। এ নিয়ে দেনদরবার চলছে। তবে ভিকটিমের পরিবার চাইলে আমরা মামলা রুজু ও আসামি গ্রেফতার করব।