ঢাকা , রবিবার, ১৬ জুন ২০২৪, ২ আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
সংবাদ শিরোনাম
Logo উপজেলা নির্বাচন পরবর্তী হামলা-ভাংচুরের অভিযোগ, আসামী গ্রেপ্তারের দাবি Logo খাগড়াছড়িতে জেলা পুলিশের উদ্যোগে বৃক্ষরোপন কর্মসূচী উদ্বোধন Logo ঈদকে সামনে রেখে হাতিয়ার গুরুত্বপূর্ণ ঘাটে কোস্টগার্ডের নিরাপত্তার জোরদার Logo সদরপুর ক্যাডেট স্কিম মাদরাসায় কুরআনের সবক Logo বোয়ালমারীতে ট্রাকের সংঘর্ষে মোটরসাইকেল চালক নিহত Logo জাতীয় সাংবাদিক সংস্থা নাগরপুর উপজেলা ইউনিটের নতুন কার্যালয় উদ্বোধন Logo সদরপুরে ঠেঙ্গামারী আলিয়া মাদরাসা ও এতিমখানার শুভ উদ্বোধন Logo ডাকাত সর্দারকে গ্রেফতার করেছে র‌্যাব Logo নড়াইলে মোটরসাইকেলের বেপরোয়া গতি কেঁড়ে নিলো কিশোরের প্রাণ Logo ভুয়া পরিচয়ে চার বছর ধরে দন্ত চিকিৎসকের জেল ও জরিমানা
প্রতিনিধি নিয়োগ
দৈনিক সময়ের প্রত্যাশা পত্রিকার জন্য সারা দেশে জেলা ও উপজেলা পর্যায়ে প্রতিনিধি নিয়োগ করা হচ্ছে। আপনি আপনার এলাকায় সাংবাদিকতা পেশায় আগ্রহী হলে যোগাযোগ করুন।

ভোট নিয়ে চেয়ারম্যান মেম্বররা হয়, পরে তারা কোল সম্প্রদয়ের খোজ রাখে না!

বাংলাদেশের আদিবাসী একগোষ্ঠী ”কোল সম্প্রদায়”। যাদের জীবন কাঁটে বেদেদের মত, রাস্তায়-রাস্তায়। এদের কথা কেউ শোনে না। অন্যের জায়গায় তাদের বসবাস। ভোটের সময় নানা প্রলোভন দেখিয়ে উন্নয়নের আশ্বাস দিয়ে ভোট নেন। তাদের ভোটে চেয়ারম্যান মেম্বরা হয়, কিন্তু পরে জন প্রতিনিধিরা কোল সম্প্রদয়ের আর কোন খোজ খবর রাখে না । কোল সম্প্রদয় পুরুষের মতই মহিলারা ভিষণ পরিশ্রমী। কালের প্রবাহ তারা তাদের বৈচিত্রপূর্ণ জীবনের অনেক কিছু হারিয়ে ফেললেও ঐতিহ্যবাহী বাঁশ ও বেত শিল্পের পৈত্রিক পেশা আঁকড়ে ধরে আছে দু’মুঠো ভাতের জন্য।

এরা পুরুষের মতই মহিলারা ভিষণ পরিশ্রমী। কিন্তু মজুরী পাই অর্ধেক। এরা নিজেদের গোত্রের অল্প বয়সের ছেলে মেয়েদেরকে বিয়ে দেয়। এদের প্রিয় খাদ্য বাঁদুরের মাংস। তাদের নাচ গানেরও রয়েছে অনেক খ্যাতি। দু’মুঠো ভাতের জন্য তারা কাঁক ডাকা সকাল থেকে শুরু করে গভীর রাত পর্যন্ত পৈত্রিক কর্মে ব্যস্ত থাকে।

 

বিভিন্ন কারণে বর্তমান কোলেরা চরম মানবেতর জীবনযাপন করছে। ভেড়ামারা পৌর আদর্শ কলেজের কাছে ও এলাকা রেলওয়ে ষ্টেশনের সন্নিকটে সরকারী পরিত্যক্ত জায়গায় প্রায় ৫০টি পরিবার নিয়ে দীর্ঘদিন যাবৎ বসবাস করে আসছে। তারা বেত ও বাঁশের তৈরী বিভিন্ন জিনিসপত্র তৈরী করে গ্রামে- গ্রামে বিক্রি করে জীবিকা নির্বাহ করে থাকে। কোলদের রয়েছে ৭/৮ টি করে সন্তান। তাদের আহার যোগাতে ও ভবিষ্যৎ চিন্তা করে স্বামী স্ত্রী উভয়ই জীবন সংগ্রামে নেমেছে। আদিবাসী কোল সম্প্রদায় সকাল থেকে গভীর রাত পর্যন্ত কঠিন হাঁড় ভাঙা পরিশ্রম করে।

 

তারা তৈরী করছে বাঁশের বিভিন্ন সামগ্রী, যেমন শরপোস, ঝুড়ি, চালন, ফলের খাঁসি ইত্যাদি। এগুলো গ্রাম গঞ্জে বিক্রি করতে গিয়ে ন্যায্য মূল্য পাচ্ছে না। কথা হয় ভক্ত চন্দ্র বেদ, শ্রীমিত ভীম চন্দ্র বেদ ও গুরূপদ বেদের সাথে। তারা জানায়, বর্তমানে প্লাষ্টিকের তৈরি বিভিন্ন জিনিস বাজারে স্বস্তা দরে বিক্রি হচ্ছে। ফলে বাঁশের তৈরী বিভিন্ন জিনিসের কঁদর কমে গেছে। যার কারণে আয় রোজগারও কমে গেছে। এ কারণে আদিবাসী কোলো এই পৈত্রিক পেশার পাশাপাশি মহিলা পুরুষের মতই অনেকেই ক্ষেত মজুর কাজে নিয়োজিত হয়ে পরেছে।

 

কিন্তু এখানেও রয়েছে নানা রকম বৈষম্য। অনিতা রাণী, রূপা রাণী ও সৌভাগ্য রাণী জানায়, ক্ষোভের কথা। তারা বলে আমরা সারাদিন হাঁড় ভাঙা পরিশ্রম করি। কিন্তু আমাদের মজুরী জোটে পুরুষের মজুরীর চেয়ে অর্ধেক। এতে করে সংসার চলে না। ছেলেমেয়েদের লেখাপড়া শিখাবো কি দিয়ে?

 

কোল পট্টিতে লোক সংখ্যা প্রায় ৩শ’ জন। খোঁজ নিয়ে জানাযায় ভোটার লিষ্টে প্রায় দেড়শ জনের নাম রয়েছে। এরা মৌলিক অধিকার থেকে বঞ্চিত। মাথা গুজার ঠাঁই নেই তাদের। এরা হিন্দু ধর্মালম্বী। পূঁজা করার জন্য একটি মন্দির থাকলেও অর্থের অভাবে মন্দির সংস্কার করতে পারছে না।

 

 

নাঁচগান ও যাত্রাপালায় কোলের মেয়ে শাবানার ব্যাপক খ্যাতি রয়েছে। কেউ কেউ আবার সাপ ধরে সাপের খেলা দেখিয়ে অর্থ উপার্জন করে জীবন ধারণ করছে। পূর্বে এরা যাযাবর অবস্থায় বসবাস করতো। আলো রাণী, পদ্মা রাণী, চম্মা, ঝর্ণা, আঁখি, অঞ্জু ও জয়ন্তী রাণীসহ আরো অনেকেই চোঁখের জল ফেলে বলেন কেউ তাদের সাহায্য সহযোগিতা করে না। তাদের ভাস্য ভোটের সময় চেয়ারম্যান মেম্বর নানা প্রলোভন দেখিয়ে উন্নয়নের আশ্বাস দিয়ে ভোট নেন। কিন্তু ভোট শেষে কেউ আর তাদের খোঁজ রাখে না।

Tag :
এই অথরের আরো সংবাদ দেখুন

জনপ্রিয় সংবাদ

উপজেলা নির্বাচন পরবর্তী হামলা-ভাংচুরের অভিযোগ, আসামী গ্রেপ্তারের দাবি

error: Content is protected !!

ভোট নিয়ে চেয়ারম্যান মেম্বররা হয়, পরে তারা কোল সম্প্রদয়ের খোজ রাখে না!

আপডেট টাইম : ০৪:২১ অপরাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ৬ জুন ২০২৪

বাংলাদেশের আদিবাসী একগোষ্ঠী ”কোল সম্প্রদায়”। যাদের জীবন কাঁটে বেদেদের মত, রাস্তায়-রাস্তায়। এদের কথা কেউ শোনে না। অন্যের জায়গায় তাদের বসবাস। ভোটের সময় নানা প্রলোভন দেখিয়ে উন্নয়নের আশ্বাস দিয়ে ভোট নেন। তাদের ভোটে চেয়ারম্যান মেম্বরা হয়, কিন্তু পরে জন প্রতিনিধিরা কোল সম্প্রদয়ের আর কোন খোজ খবর রাখে না । কোল সম্প্রদয় পুরুষের মতই মহিলারা ভিষণ পরিশ্রমী। কালের প্রবাহ তারা তাদের বৈচিত্রপূর্ণ জীবনের অনেক কিছু হারিয়ে ফেললেও ঐতিহ্যবাহী বাঁশ ও বেত শিল্পের পৈত্রিক পেশা আঁকড়ে ধরে আছে দু’মুঠো ভাতের জন্য।

এরা পুরুষের মতই মহিলারা ভিষণ পরিশ্রমী। কিন্তু মজুরী পাই অর্ধেক। এরা নিজেদের গোত্রের অল্প বয়সের ছেলে মেয়েদেরকে বিয়ে দেয়। এদের প্রিয় খাদ্য বাঁদুরের মাংস। তাদের নাচ গানেরও রয়েছে অনেক খ্যাতি। দু’মুঠো ভাতের জন্য তারা কাঁক ডাকা সকাল থেকে শুরু করে গভীর রাত পর্যন্ত পৈত্রিক কর্মে ব্যস্ত থাকে।

 

বিভিন্ন কারণে বর্তমান কোলেরা চরম মানবেতর জীবনযাপন করছে। ভেড়ামারা পৌর আদর্শ কলেজের কাছে ও এলাকা রেলওয়ে ষ্টেশনের সন্নিকটে সরকারী পরিত্যক্ত জায়গায় প্রায় ৫০টি পরিবার নিয়ে দীর্ঘদিন যাবৎ বসবাস করে আসছে। তারা বেত ও বাঁশের তৈরী বিভিন্ন জিনিসপত্র তৈরী করে গ্রামে- গ্রামে বিক্রি করে জীবিকা নির্বাহ করে থাকে। কোলদের রয়েছে ৭/৮ টি করে সন্তান। তাদের আহার যোগাতে ও ভবিষ্যৎ চিন্তা করে স্বামী স্ত্রী উভয়ই জীবন সংগ্রামে নেমেছে। আদিবাসী কোল সম্প্রদায় সকাল থেকে গভীর রাত পর্যন্ত কঠিন হাঁড় ভাঙা পরিশ্রম করে।

 

তারা তৈরী করছে বাঁশের বিভিন্ন সামগ্রী, যেমন শরপোস, ঝুড়ি, চালন, ফলের খাঁসি ইত্যাদি। এগুলো গ্রাম গঞ্জে বিক্রি করতে গিয়ে ন্যায্য মূল্য পাচ্ছে না। কথা হয় ভক্ত চন্দ্র বেদ, শ্রীমিত ভীম চন্দ্র বেদ ও গুরূপদ বেদের সাথে। তারা জানায়, বর্তমানে প্লাষ্টিকের তৈরি বিভিন্ন জিনিস বাজারে স্বস্তা দরে বিক্রি হচ্ছে। ফলে বাঁশের তৈরী বিভিন্ন জিনিসের কঁদর কমে গেছে। যার কারণে আয় রোজগারও কমে গেছে। এ কারণে আদিবাসী কোলো এই পৈত্রিক পেশার পাশাপাশি মহিলা পুরুষের মতই অনেকেই ক্ষেত মজুর কাজে নিয়োজিত হয়ে পরেছে।

 

কিন্তু এখানেও রয়েছে নানা রকম বৈষম্য। অনিতা রাণী, রূপা রাণী ও সৌভাগ্য রাণী জানায়, ক্ষোভের কথা। তারা বলে আমরা সারাদিন হাঁড় ভাঙা পরিশ্রম করি। কিন্তু আমাদের মজুরী জোটে পুরুষের মজুরীর চেয়ে অর্ধেক। এতে করে সংসার চলে না। ছেলেমেয়েদের লেখাপড়া শিখাবো কি দিয়ে?

 

কোল পট্টিতে লোক সংখ্যা প্রায় ৩শ’ জন। খোঁজ নিয়ে জানাযায় ভোটার লিষ্টে প্রায় দেড়শ জনের নাম রয়েছে। এরা মৌলিক অধিকার থেকে বঞ্চিত। মাথা গুজার ঠাঁই নেই তাদের। এরা হিন্দু ধর্মালম্বী। পূঁজা করার জন্য একটি মন্দির থাকলেও অর্থের অভাবে মন্দির সংস্কার করতে পারছে না।

 

 

নাঁচগান ও যাত্রাপালায় কোলের মেয়ে শাবানার ব্যাপক খ্যাতি রয়েছে। কেউ কেউ আবার সাপ ধরে সাপের খেলা দেখিয়ে অর্থ উপার্জন করে জীবন ধারণ করছে। পূর্বে এরা যাযাবর অবস্থায় বসবাস করতো। আলো রাণী, পদ্মা রাণী, চম্মা, ঝর্ণা, আঁখি, অঞ্জু ও জয়ন্তী রাণীসহ আরো অনেকেই চোঁখের জল ফেলে বলেন কেউ তাদের সাহায্য সহযোগিতা করে না। তাদের ভাস্য ভোটের সময় চেয়ারম্যান মেম্বর নানা প্রলোভন দেখিয়ে উন্নয়নের আশ্বাস দিয়ে ভোট নেন। কিন্তু ভোট শেষে কেউ আর তাদের খোঁজ রাখে না।