ঢাকা , বুধবার, ২২ মে ২০২৪, ৭ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
সংবাদ শিরোনাম
Logo পূর্বভাটদী মাদ্রাসার ম্যানেজিং কমিটির নির্বাচন বহাল রাখার দাবীতে সংবাদ সম্মেলন Logo বিভিন্ন অভিযোগ এনে ভোট বর্জন করলেন চেয়ারম্যান প্রার্থী Logo সালথা ও নগরকান্দা উপজেলা নির্বাচনী কেন্দ্র পরিদর্শন করলেন জেলা প্রশাসক ও পুলিশ সুপার Logo ভোটার ২৪৮০, এক ঘণ্টায় ভোট পড়েছে ১২টি, একটি বুথে শূন্য ভোট Logo নিরবছিন্ন বিদ্যুৎ নিশ্চিতে বিদ্যুৎ বিভাগের অনলাইন কর্মশালা Logo প্রিমিয়ার ডিভিশন ক্রিকেট লিগঃ শেখ রাসেল ক্রীড়া চক্রের বড় ব্যবধানে জয়লাভ Logo আলিপুরে আরসিসি ড্রেন নির্মাণ প্রকল্পের উদ্বোধন করলেন পৌর মেয়র Logo কেন্দ্রে শুধু ভোটার নেই, অন্য সব ঠিক আছে Logo নাটোরে চেয়ারম্যান প্রার্থীর প্রধান সমন্বয়কারীকে হাতুড়িপেটার অভিযোগ Logo ভূরুঙ্গামারীতে স্মার্টফোন কিনে না দেওয়ায় মাদ্রাসা ছাত্রীর আত্মহত্যা
প্রতিনিধি নিয়োগ
দৈনিক সময়ের প্রত্যাশা পত্রিকার জন্য সারা দেশে জেলা ও উপজেলা পর্যায়ে প্রতিনিধি নিয়োগ করা হচ্ছে। আপনি আপনার এলাকায় সাংবাদিকতা পেশায় আগ্রহী হলে যোগাযোগ করুন।

তানোরের চৈৎপুর জমি জবরদখলের অভিযোগ

রাজশাহীর তানোরের কলমা ইউনিয়নের (ইউপি) চৈতপুর মৌজায় প্রায় ৫ বিঘা ফসলি জমি জবরদখলের অভিযোগ উঠেছে। স্থানীয়রা জানান, কোনো কাজপত্র ছাড়াই গ্রামের প্রভাবশালী মতিউর রহমান জোরপুর্বক এসব জমি জবরদখলে মরিয়া হয়ে উঠেছে। এ ঘটনায় গ্রামবাসির মাঝে চরম উত্তেজনাকর পরিস্থিতি বিরাজ
করছে।
এ  ঘটনায় ২৪ এপ্রিল বুধবার চাঁপাইনবাবগঞ্জ সদর উপজেলার পাররামকৃষ্ণপুর  গ্রামের দুরুল হোদার পুত্র পলাশ উদ্দীন দিগর বাদি হয়ে তানোর উপজেলার চৈতপুর গ্রামের মৃত মমতাজ সোনারের পুত্র মতিউর রহমান মতিসহ ৪ জনকে বিবাদী করে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার কাছে লিখিত অভিযোগ করেছেন।
অভিযোগ সুত্রে জানা গেছে, উপজেলার কলমা ইউনিয়নের (ইউপি) জেল নম্বর ২৯ মৌজা চৈতপুর দাগ নম্বর ১২২ জমির পরিমান ৫০ শতক শ্রেণী পুকুর-কৃষি। উক্ত সম্পত্তির মালিক চৈতপুর গ্রামের আমেনা বেগম। তার নামে খাজনা-খারিজ করা আছে।
একই মৌজায় ১২১ নম্বর দাগে ৩৫ শতক সম্পত্তি একই গ্রামের সাগরী বেগমের নামে খাজনা-খারিজ করা আছে। একই মৌজায় ১২২ নম্বর দাগে ৩৩ শতক সম্পত্তি একই গ্রামের শিরিনা বেগমের নামে খাজনা-খারিজ করা আছে।একই মৌজায় ৭২ নম্বর দাগে ৩১ শতক ও ৭৩ নম্বর দাগে ২১ শতক সম্পত্তি একই গ্রামের পলাশের নামে খাজনা-খারিজ করা আছে। তাদের ৪ জনের নামে মোট ১৭০ শতক সম্পত্তি খাজনা-খারিজ করা আছে।
কিন্ত্ত  চৈতপুর গ্রামের মমতাজ আলী সোনারের পুত্র মতিউর রহমান, মৃত রবু  মন্ডলের পুত্র মফিজুল ইসলাম, মৃত খোকা মন্ডলের পুত্র মফিজ মন্ডল ও একই গ্রামের জমির মন্ডল। তারা সিন্ডিকেট সৃষ্টি করে মসজিদের নাম ভাঙিয়ে এসব জমি জবরদখল করেছে। এবিষয়ে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও)  মোস্তাফিজুর রহমান বলেন, অভিযোগ পাওয়া গেছে তদন্ত সাপেক্ষে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে। এবিষয়ে জানতে চাইলে মতিউর রহমান অভিযোগ অস্বীকার করে বলেন, জমি তাদের দখলে আছে যা হবার তা কোর্টে হবে।
Tag :
এই অথরের আরো সংবাদ দেখুন

পূর্বভাটদী মাদ্রাসার ম্যানেজিং কমিটির নির্বাচন বহাল রাখার দাবীতে সংবাদ সম্মেলন

error: Content is protected !!

তানোরের চৈৎপুর জমি জবরদখলের অভিযোগ

আপডেট টাইম : ০৫:১৮ অপরাহ্ন, বুধবার, ২৪ এপ্রিল ২০২৪
রাজশাহীর তানোরের কলমা ইউনিয়নের (ইউপি) চৈতপুর মৌজায় প্রায় ৫ বিঘা ফসলি জমি জবরদখলের অভিযোগ উঠেছে। স্থানীয়রা জানান, কোনো কাজপত্র ছাড়াই গ্রামের প্রভাবশালী মতিউর রহমান জোরপুর্বক এসব জমি জবরদখলে মরিয়া হয়ে উঠেছে। এ ঘটনায় গ্রামবাসির মাঝে চরম উত্তেজনাকর পরিস্থিতি বিরাজ
করছে।
এ  ঘটনায় ২৪ এপ্রিল বুধবার চাঁপাইনবাবগঞ্জ সদর উপজেলার পাররামকৃষ্ণপুর  গ্রামের দুরুল হোদার পুত্র পলাশ উদ্দীন দিগর বাদি হয়ে তানোর উপজেলার চৈতপুর গ্রামের মৃত মমতাজ সোনারের পুত্র মতিউর রহমান মতিসহ ৪ জনকে বিবাদী করে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার কাছে লিখিত অভিযোগ করেছেন।
অভিযোগ সুত্রে জানা গেছে, উপজেলার কলমা ইউনিয়নের (ইউপি) জেল নম্বর ২৯ মৌজা চৈতপুর দাগ নম্বর ১২২ জমির পরিমান ৫০ শতক শ্রেণী পুকুর-কৃষি। উক্ত সম্পত্তির মালিক চৈতপুর গ্রামের আমেনা বেগম। তার নামে খাজনা-খারিজ করা আছে।
একই মৌজায় ১২১ নম্বর দাগে ৩৫ শতক সম্পত্তি একই গ্রামের সাগরী বেগমের নামে খাজনা-খারিজ করা আছে। একই মৌজায় ১২২ নম্বর দাগে ৩৩ শতক সম্পত্তি একই গ্রামের শিরিনা বেগমের নামে খাজনা-খারিজ করা আছে।একই মৌজায় ৭২ নম্বর দাগে ৩১ শতক ও ৭৩ নম্বর দাগে ২১ শতক সম্পত্তি একই গ্রামের পলাশের নামে খাজনা-খারিজ করা আছে। তাদের ৪ জনের নামে মোট ১৭০ শতক সম্পত্তি খাজনা-খারিজ করা আছে।
কিন্ত্ত  চৈতপুর গ্রামের মমতাজ আলী সোনারের পুত্র মতিউর রহমান, মৃত রবু  মন্ডলের পুত্র মফিজুল ইসলাম, মৃত খোকা মন্ডলের পুত্র মফিজ মন্ডল ও একই গ্রামের জমির মন্ডল। তারা সিন্ডিকেট সৃষ্টি করে মসজিদের নাম ভাঙিয়ে এসব জমি জবরদখল করেছে। এবিষয়ে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও)  মোস্তাফিজুর রহমান বলেন, অভিযোগ পাওয়া গেছে তদন্ত সাপেক্ষে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে। এবিষয়ে জানতে চাইলে মতিউর রহমান অভিযোগ অস্বীকার করে বলেন, জমি তাদের দখলে আছে যা হবার তা কোর্টে হবে।