ঢাকা , সোমবার, ২৭ মে ২০২৪, ১৩ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
সংবাদ শিরোনাম
Logo ফরিদপুর সদর উপজেলার শিবরামপুর এলাকায় অনুমোদনহীন ভেজাল গুড় কারখানায় অভিযান Logo কুমারখালীতে ভোটের দিনে প্রতিপক্ষের হামলা, আহত ব্যাক্তির মৃত্যু Logo কুষ্টিয়ায় হাতের রগ কাটা যুবকের ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার Logo ফরিদপুরে জাতীয় কবি কাজী নজরুল ইসলামের ‌১২৫ তম জন্মবার্ষিকী পালিত Logo কুষ্টিয়ায় শ্যালকের বিয়েতে গিয়ে দুলাভাইয়ের কারাদণ্ড Logo তানোরে কনিষ্ঠ প্রার্থীর সর্ববৃহৎ জয়, রাজনৈতিক অঙ্গনে চাঞ্চল্য Logo যশোরে পৃথক দুটি সড়ক দুর্ঘটনায় দুইজন নিহত Logo আমতলী উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে নারী ভাইস চেয়ারম্যান পদে জনপ্রিয়তায় এগিয়ে যুথী Logo হাতিয়ার সাবেক সংসদ সদস্য অধ্যাপক ওয়ালী উল্যাহর মৃত্যুতে স্মরণ সভা অনুষ্ঠিত Logo সুন্দরবন, বেনাপুল ও চিত্রা বন্ধ ট্রেন চালুর দাবিতে ভেড়ামারায় মানববন্ধন
প্রতিনিধি নিয়োগ
দৈনিক সময়ের প্রত্যাশা পত্রিকার জন্য সারা দেশে জেলা ও উপজেলা পর্যায়ে প্রতিনিধি নিয়োগ করা হচ্ছে। আপনি আপনার এলাকায় সাংবাদিকতা পেশায় আগ্রহী হলে যোগাযোগ করুন।

হাতিয়া উপজেলায় তিন পদেই বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় নির্বাচিত

উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে প্রথম ধাপে দেয়া তফসিল অনুযায়ী হাতিয়ায় নির্বাচন হওয়ার কথা ছিল ৮ মে। কিন্তু কোন প্রতিদ্বন্দ্বি প্রার্থী না থাকায় উপজেলা চেয়ারম্যান সহ তিনজনই বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় নির্বাচিত হয়েছেন।

মনোনয়ন পত্র প্রত্যাহারের শেষ দিনে সোমবার (২২ এপ্রিল) দুপুরে এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন জেলা সিনিয়র নির্বাচন কর্মকর্তা ও হাতিয়া উপজেলা পরিষদ নির্বাচন রিটার্নিং অফিসার মো: নওয়াবুল ইসলাম।

রিটার্নিং কর্মকর্তার সূত্রে জানা গেছে, হাতিয়া উপজেলা চেয়ারম্যান পদে উপজেলা আওয়ামী লীগের সদস্য আশিক আলী, ভাইস চেয়ারম্যান পদে বর্তমান ভাইস চেয়ারম্যান মো. কেফায়েত উল্যাহ ও মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান পদে সামছুন নাহার বেগম একক প্রার্থী হিসেবে রয়েছেন।

এর আগে ভাইস চেয়ারম্যান ও মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান পদে একটি করে মনোনয়ন পত্র জমা দেয়া হয়। শুধুমাত্র চেয়ারম্যান পদে আয়েশা ফেরদাউস ও মুসফিকুর রহমান মনোনয়ন পত্র দাখিল করেন। কিন্তু আজ সোমবার এই দুইজন মনোনয়ন পত্র প্রত্যাহার করায় আশিক আলী বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় নির্বাচিত হলেন।

জেলা সিনিয়র নির্বাচন কর্মকর্তা ও হাতিয়া উপজেলা পরিষদ নির্বাচন রিটার্নিং অফিসার মো. নওয়াবুল ইসলাম বলেন, আয়েশা ফেরদাউস ও মুসফিকুর রহমান স্বেচ্ছায় স্বজ্ঞানে মনোনয়নপত্র প্রত্যাহার করায় অন্য কোন প্রতিদ্বন্দ্বি প্রার্থী না থাকায় হাতিয়া উপজেলায় চেয়ারম্যান পদ সহ তিনটি পদেই বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় নির্বাচিত হয়েছেন।

৬ষ্ঠ উপজেলা নির্বাচনের প্রথম ধাপে যে কয়টি উপজেলায় নির্বাচন অনুষ্ঠিত হচ্ছে তার মধ্যে একটি হচ্ছে নোয়াখালীর হাতিয়া উপজেলা। এই উপজেলা ১১টি ইউনিয়ন ও একটি পৌরসভা নিয়ে গঠিত। এতে প্রায় ৩ লাখ পনের হাজার ভোটার রয়েছে।

Tag :
এই অথরের আরো সংবাদ দেখুন

ফরিদপুর সদর উপজেলার শিবরামপুর এলাকায় অনুমোদনহীন ভেজাল গুড় কারখানায় অভিযান

error: Content is protected !!

হাতিয়া উপজেলায় তিন পদেই বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় নির্বাচিত

আপডেট টাইম : ০৯:৫৯ অপরাহ্ন, সোমবার, ২২ এপ্রিল ২০২৪

উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে প্রথম ধাপে দেয়া তফসিল অনুযায়ী হাতিয়ায় নির্বাচন হওয়ার কথা ছিল ৮ মে। কিন্তু কোন প্রতিদ্বন্দ্বি প্রার্থী না থাকায় উপজেলা চেয়ারম্যান সহ তিনজনই বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় নির্বাচিত হয়েছেন।

মনোনয়ন পত্র প্রত্যাহারের শেষ দিনে সোমবার (২২ এপ্রিল) দুপুরে এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন জেলা সিনিয়র নির্বাচন কর্মকর্তা ও হাতিয়া উপজেলা পরিষদ নির্বাচন রিটার্নিং অফিসার মো: নওয়াবুল ইসলাম।

রিটার্নিং কর্মকর্তার সূত্রে জানা গেছে, হাতিয়া উপজেলা চেয়ারম্যান পদে উপজেলা আওয়ামী লীগের সদস্য আশিক আলী, ভাইস চেয়ারম্যান পদে বর্তমান ভাইস চেয়ারম্যান মো. কেফায়েত উল্যাহ ও মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান পদে সামছুন নাহার বেগম একক প্রার্থী হিসেবে রয়েছেন।

এর আগে ভাইস চেয়ারম্যান ও মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান পদে একটি করে মনোনয়ন পত্র জমা দেয়া হয়। শুধুমাত্র চেয়ারম্যান পদে আয়েশা ফেরদাউস ও মুসফিকুর রহমান মনোনয়ন পত্র দাখিল করেন। কিন্তু আজ সোমবার এই দুইজন মনোনয়ন পত্র প্রত্যাহার করায় আশিক আলী বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় নির্বাচিত হলেন।

জেলা সিনিয়র নির্বাচন কর্মকর্তা ও হাতিয়া উপজেলা পরিষদ নির্বাচন রিটার্নিং অফিসার মো. নওয়াবুল ইসলাম বলেন, আয়েশা ফেরদাউস ও মুসফিকুর রহমান স্বেচ্ছায় স্বজ্ঞানে মনোনয়নপত্র প্রত্যাহার করায় অন্য কোন প্রতিদ্বন্দ্বি প্রার্থী না থাকায় হাতিয়া উপজেলায় চেয়ারম্যান পদ সহ তিনটি পদেই বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় নির্বাচিত হয়েছেন।

৬ষ্ঠ উপজেলা নির্বাচনের প্রথম ধাপে যে কয়টি উপজেলায় নির্বাচন অনুষ্ঠিত হচ্ছে তার মধ্যে একটি হচ্ছে নোয়াখালীর হাতিয়া উপজেলা। এই উপজেলা ১১টি ইউনিয়ন ও একটি পৌরসভা নিয়ে গঠিত। এতে প্রায় ৩ লাখ পনের হাজার ভোটার রয়েছে।