ঢাকা , মঙ্গলবার, ২৩ এপ্রিল ২০২৪, ১০ বৈশাখ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
সংবাদ শিরোনাম
Logo ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনের মামলার রায়ে স্বতন্ত্র প্রার্থীর বিজয় Logo নাটোরের বাগাতিপাড়ায় গলায় ফাঁস দিয়ে গৃহবধূর আত্মহত্যা Logo খোকসায় প্রাণিসেবা সপ্তাহ সমাপনী অনুষ্ঠান অনুষ্ঠিত Logo তানোরে জমি জবর দখলের অভিযোগ Logo বাঘায় আগুনে ছাগল, টাকা–ঘর পুড়ে ১০ লক্ষ টাকার ক্ষতি Logo ভেড়ামারায় ক্ষতিগ্রস্থ পানবরজ এলাকা পরিদর্শন করলেন : এমপি কামারুল Logo ভেড়ামারায় জাইকা ও সরকারী অর্থায়নে শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে বেঞ্চ বিতরণ Logo নাটোরের সিংড়ায় কিশোরীকে হত্যার দায়ে এক ব্যক্তির মৃত্যুদন্ড Logo স্মার্ট গোপালগঞ্জ বিনির্মানে মুকসুদপুর পৌর এলাকার সার্বিক উন্নয়নের লক্ষ্যে ফোকাস গ্রুপ ডিসকাশনের আয়োজন Logo কুষ্টিয়ায় বৃষ্টির জন্য ইসতিসকার নামাজ আদায়
প্রতিনিধি নিয়োগ
দৈনিক সময়ের প্রত্যাশা পত্রিকার জন্য সারা দেশে জেলা ও উপজেলা পর্যায়ে প্রতিনিধি নিয়োগ করা হচ্ছে। আপনি আপনার এলাকায় সাংবাদিকতা পেশায় আগ্রহী হলে যোগাযোগ করুন।

কুষ্টিয়ার ২ আদম ব্যবসায়ীর বিরুদ্ধে রাজবাড়ীর আদালতে মামলা

ছেলে তানভীর আলম তুহীনকে ইতালিতে উচ্চ বেতনে চাকুরীর জন্য টাকা দিয়ে প্রতারণার শিকার হয়ে রাজবাড়ীর বিজ্ঞ আদালতে মামলা (নং সিআর ১০৫/২৪, ধারা-৪০৬/৪২০ দঃবিঃ) দায়ের করেছেন রাজবাড়ী জেলার পাংশা উপজেলার সরিষা ইউপির আন্দুলিয়া গ্রামের শাহ মো. রেজাউল আলম।

 

মামলার আসামীরা হলেন, কুষ্টিয়া জেলার মিরপুর থানার পুটিমারি গ্রামের কাবিজুর রহমানের ছেলে মো. তৌফিকুর রহমান ও কুষ্টিয়া সদর থানার মিল পাড়ার মৃত আবেদ আলীর ছেলে তাজমুল আলম তাজু। পাংশা উপজেলা খাদ্য নিয়ন্ত্রক একেএম শাহনেওয়াজ মামালাটি তদন্ত করছেন। তদন্ত কার্যক্রমের অংশ হিসেবে তিনি মামলার বাদী, আসামী ও স্বাক্ষীগণের নোটিশ প্রদান করেছেন।

মামলার বাদী শাহ মো. রেজাউল আলম জানান, তার ছেলে তানভীর আলম তুহীনকে ইতালিতে উচ্চ বেতনের চাকুরীর জন্য মো. তৌফিকুর রহমান ও তাজমুল আলম তাজুকে ৯লাখ টাকা দেওয়ার সিদ্ধান্ত হয়। সিদ্ধান্তের আলোকে প্রথম দফায় ২০২২ সালের ৪ মার্চ ৫ লাখ টাকা ও পরবর্তীতে দ্বিতীয় দফায় চলতি ২০২৪ সালের ২৬ জানুয়ারী ২ লাখ টাকা প্রদান করা হয়।

 

কথা থাকে যে, পরবর্তী ৬ মাসের মধ্যে মামলার আসামীগণ মামলার ১নং স্বাক্ষী তানভীর আলম তুহীনকে ইতালি দেশে পাঠিয়ে দিবে এবং ইতালি যাওয়ার পূর্ব মুহুর্তে বাকি ২ লাখ টাকা প্রদান করা হবে। কিন্তু নির্দিষ্ট সময় অতিবাহিত হওয়ার পরও আসামীরা তানভীর আলম তুহীনকে ইতালিতে না পাঠিয়ে ঘুরাতে থাকে। এক পর্যায়ে মামলার বাদী শাহ মো. রেজাউল আলম বুঝতে পারেন আসামীরা তার সাথে প্রতারণা করছে। টাকা ফেরত চাইলে অসধ আচরণ ও জীবন নাশের হুমকী প্রদর্শন করে তারা। আইনি প্রতিকারের আশায় তিনি বিজ্ঞ আদালতে মামলা দায়ের করেছেন।

 

এ ব্যাপারে মঙ্গলবার (১৯ মার্চ) বিকালে তদন্ত কার্যক্রমের অগ্রগতি বিষয়ে জানতে চাইলে মামলার তদন্ত কর্মকর্তা পাংশা উপজেলা খাদ্য নিয়ন্ত্রক একেএম শাহনেওয়াজ বলেন, তদন্ত কার্যক্রম প্রক্রিয়াধীন রয়েছে। তদন্ত কার্যক্রমের অংশ হিসেবে মামলার বাদী, আসামী ও স্বাক্ষীগণের নোটিশ প্রদান করা হয়েছে বলে তিনি জানান।

Tag :
এই অথরের আরো সংবাদ দেখুন

জনপ্রিয় সংবাদ

ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনের মামলার রায়ে স্বতন্ত্র প্রার্থীর বিজয়

error: Content is protected !!

কুষ্টিয়ার ২ আদম ব্যবসায়ীর বিরুদ্ধে রাজবাড়ীর আদালতে মামলা

আপডেট টাইম : ০১:৪৯ অপরাহ্ন, বুধবার, ২০ মার্চ ২০২৪

ছেলে তানভীর আলম তুহীনকে ইতালিতে উচ্চ বেতনে চাকুরীর জন্য টাকা দিয়ে প্রতারণার শিকার হয়ে রাজবাড়ীর বিজ্ঞ আদালতে মামলা (নং সিআর ১০৫/২৪, ধারা-৪০৬/৪২০ দঃবিঃ) দায়ের করেছেন রাজবাড়ী জেলার পাংশা উপজেলার সরিষা ইউপির আন্দুলিয়া গ্রামের শাহ মো. রেজাউল আলম।

 

মামলার আসামীরা হলেন, কুষ্টিয়া জেলার মিরপুর থানার পুটিমারি গ্রামের কাবিজুর রহমানের ছেলে মো. তৌফিকুর রহমান ও কুষ্টিয়া সদর থানার মিল পাড়ার মৃত আবেদ আলীর ছেলে তাজমুল আলম তাজু। পাংশা উপজেলা খাদ্য নিয়ন্ত্রক একেএম শাহনেওয়াজ মামালাটি তদন্ত করছেন। তদন্ত কার্যক্রমের অংশ হিসেবে তিনি মামলার বাদী, আসামী ও স্বাক্ষীগণের নোটিশ প্রদান করেছেন।

মামলার বাদী শাহ মো. রেজাউল আলম জানান, তার ছেলে তানভীর আলম তুহীনকে ইতালিতে উচ্চ বেতনের চাকুরীর জন্য মো. তৌফিকুর রহমান ও তাজমুল আলম তাজুকে ৯লাখ টাকা দেওয়ার সিদ্ধান্ত হয়। সিদ্ধান্তের আলোকে প্রথম দফায় ২০২২ সালের ৪ মার্চ ৫ লাখ টাকা ও পরবর্তীতে দ্বিতীয় দফায় চলতি ২০২৪ সালের ২৬ জানুয়ারী ২ লাখ টাকা প্রদান করা হয়।

 

কথা থাকে যে, পরবর্তী ৬ মাসের মধ্যে মামলার আসামীগণ মামলার ১নং স্বাক্ষী তানভীর আলম তুহীনকে ইতালি দেশে পাঠিয়ে দিবে এবং ইতালি যাওয়ার পূর্ব মুহুর্তে বাকি ২ লাখ টাকা প্রদান করা হবে। কিন্তু নির্দিষ্ট সময় অতিবাহিত হওয়ার পরও আসামীরা তানভীর আলম তুহীনকে ইতালিতে না পাঠিয়ে ঘুরাতে থাকে। এক পর্যায়ে মামলার বাদী শাহ মো. রেজাউল আলম বুঝতে পারেন আসামীরা তার সাথে প্রতারণা করছে। টাকা ফেরত চাইলে অসধ আচরণ ও জীবন নাশের হুমকী প্রদর্শন করে তারা। আইনি প্রতিকারের আশায় তিনি বিজ্ঞ আদালতে মামলা দায়ের করেছেন।

 

এ ব্যাপারে মঙ্গলবার (১৯ মার্চ) বিকালে তদন্ত কার্যক্রমের অগ্রগতি বিষয়ে জানতে চাইলে মামলার তদন্ত কর্মকর্তা পাংশা উপজেলা খাদ্য নিয়ন্ত্রক একেএম শাহনেওয়াজ বলেন, তদন্ত কার্যক্রম প্রক্রিয়াধীন রয়েছে। তদন্ত কার্যক্রমের অংশ হিসেবে মামলার বাদী, আসামী ও স্বাক্ষীগণের নোটিশ প্রদান করা হয়েছে বলে তিনি জানান।