ঢাকা , মঙ্গলবার, ২৩ এপ্রিল ২০২৪, ১০ বৈশাখ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
সংবাদ শিরোনাম
Logo ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনের মামলার রায়ে স্বতন্ত্র প্রার্থীর বিজয় Logo নাটোরের বাগাতিপাড়ায় গলায় ফাঁস দিয়ে গৃহবধূর আত্মহত্যা Logo খোকসায় প্রাণিসেবা সপ্তাহ সমাপনী অনুষ্ঠান অনুষ্ঠিত Logo তানোরে জমি জবর দখলের অভিযোগ Logo বাঘায় আগুনে ছাগল, টাকা–ঘর পুড়ে ১০ লক্ষ টাকার ক্ষতি Logo ভেড়ামারায় ক্ষতিগ্রস্থ পানবরজ এলাকা পরিদর্শন করলেন : এমপি কামারুল Logo ভেড়ামারায় জাইকা ও সরকারী অর্থায়নে শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে বেঞ্চ বিতরণ Logo নাটোরের সিংড়ায় কিশোরীকে হত্যার দায়ে এক ব্যক্তির মৃত্যুদন্ড Logo স্মার্ট গোপালগঞ্জ বিনির্মানে মুকসুদপুর পৌর এলাকার সার্বিক উন্নয়নের লক্ষ্যে ফোকাস গ্রুপ ডিসকাশনের আয়োজন Logo কুষ্টিয়ায় বৃষ্টির জন্য ইসতিসকার নামাজ আদায়
প্রতিনিধি নিয়োগ
দৈনিক সময়ের প্রত্যাশা পত্রিকার জন্য সারা দেশে জেলা ও উপজেলা পর্যায়ে প্রতিনিধি নিয়োগ করা হচ্ছে। আপনি আপনার এলাকায় সাংবাদিকতা পেশায় আগ্রহী হলে যোগাযোগ করুন।

রাজশাহী-৪ আসনের এমপির বিরুদ্ধে অপপ্রচার জনমনে ক্ষোভ

রাজশাহী-৪ বাগমারা আসনের নবনির্বাচিত সাংসদ  ও  সাবেক মেয়র জননন্দিত রাজনৈতিক নেতা অধ্যক্ষ আবুল কালাম আজাদের বিরুদ্ধে অপপ্রচার ছড়ানোর অভিযোগ উঠেছে। স্থানীয়রা বলছে, রাজশাহী মহানগর আওয়ামী লীগের কতিপয় নেতার নেপথ্যে মদদে নৌকা বিরোধী একটি চক্র এমপি কালামের বিরুদ্ধে অসত্য, মানহানিকর ও কুরুচিপূর্ণ অপপ্রচার শুরু করেছে।
এ ঘটনায় স্থানীয় আওয়ামী লীগ ও সহযোগী সংগঠনের নেতা-কর্মীসহ সাধারণ মানুষ এসব অপপ্রচারের বিরুদ্ধে বিক্ষুব্ধ হয়ে উঠেছে। স্থানীয়রা বলছে, এমপি কালামকে রাজনৈতিকভাবে মোকাবেলা করতে ব্যর্থ হয়ে, প্রতিপক্ষ এসব ষড়যন্ত্রের আশ্রয় নিয়েছে। রাজনৈতিকভাবে এখন তারা এতোটা দেউলিয়া যে তাদের গোপণে ষড়যন্ত্রের আশ্রয় নিতে হচ্ছে।
জানা গেছে, বিগত ২০২৪ সালের ৭ জানুয়ারী জাতীয় সংসদ নির্বাচনে একটি শক্তিশালী নৌকা বিরোধী সিন্ডিকেট চক্র কাঁচি দিয়ে নৌকা কাটার চেষ্টা করে ব্যর্থ হয়েছে।নৌকার বিপক্ষে কাঁচি’র পক্ষে সক্রিয় ভূমিকায় থেকে বিভিন্ন মিথ্যা প্রোপাগাণ্ডা ছড়িয়ে রাজশাহী-৪ (বাগমারা) আসনের নির্বাচনকে বির্তকিত করার নান অপচেষ্টা করেও এমপি কালামের জনপ্রিয়তার কাছে পরাজিত  হয়েছে।। কিন্ত্ত তারা এখানো হাল ছাড়েননি, অপতৎপরতা চালিয়ে যাচ্ছেন। রাজশাহী-৪ (বাগমারা) আসনে বিপুল ভোটে জয়ী  হন নৌকার প্রার্থী অধ্যক্ষ আবুল কালাম আজাদ।
অপতৎপরতা চালিয়ে সদ্য নির্বাচিত এমপি আবুল কালাম আজাদকে সমালোচিত করতে একের পর এক মানহানিকর কুরুচিপূর্ণ  মিথ্যা তথ্য প্রচার করে যাচ্ছে চক্রটি। এরই ধারাবাহিকতায় একটি অডিও বিকৃত করে তার বরাত দিয়ে ইতোমধ্যে এমপি কালামের বিরুদ্ধে চক্রটির প্রধান প্রোপাগাণ্ডা ছড়াচ্ছেন বলেও অভিযোগ উঠেছে।
এদিকে বাগমারা আওয়ামী লীগের তৃণমুল বলছেন, নির্বাচনে পরাজিত হয়ে একজন নৌকা বিরোধী দলীয় পদের অধিকারী বিভিন্ন বিতর্কের জন্ম দিচ্ছেন। তারা নির্বাচিত এক সংসদ সদস্যের বিরুদ্ধে মিথ্যা গঠনতন্ত্র ও দলীয় প্রধানসহ হাইকমান্ডের নামে মিথ্যা অপবাদ ছড়িয়ে দিচ্ছেন। এটা বাগমারাবাসী মেনে নিবে না। তারা এমন অপতৎপরতা রুখে দিতেও বদ্ধপরিকর।
বাগমারা আওয়ামী লীগের নেতৃবৃন্দ বলছেন, গত ১৩ মার্চ বাগমারায় বঙ্গবন্ধু স্মৃতি জাদুঘর কমপ্লেক্সে উপজেলা আওয়ামী লীগের কার্যনির্বাহী কমিটির সভা হয়। এতে প্রধান অতিথির বক্তব্য দেন সদ্য নির্বাচিত এমপি আবুল কালাম আজাদ। ওই সভায় কোনো প্রকার বেফাঁস কথা বার্তা হয়নি। সেখানকার অডিও সুপার এডিট করে বাজারে ছাড়া হচ্ছে। এসব চক্রান্ত করে লাভ নাই বলেও হুশিয়ারি দেন তাঁরা।
উক্ত অনুষ্ঠানে উপজেলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি জাহাঙ্গীর আলমের সভাপতিত্বে এবং সাধারণ সম্পাদক গোলাম সারওয়ার আবুলের সঞ্চালনায় ওই সভায় জেলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি অ্যাডভোকেট ইব্রাহিম হোসেন, জাকিরুল ইসলাম সান্টুসহ কার্যনির্বাহী কমিটির সদস্য ও সহযোগী সংগঠনের নেতারা উপস্থিত ছিলেন। নেতারা বলেন যে মিথ্যা প্রোপাগাণ্ডা ছড়ানো হচ্ছে সেটা ঠিক না। আমরা এর তীব্র নিন্দা প্রতিবাদ জানাই।
এবিষয়ে বাগমারা উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক গোলাম সারওয়ার আবুল বলেন, বাগমারা উপজেলা আওয়ামী লীগ এখন সুসংগঠিত ও সংঘবদ্ধ। দু- একজন যারা নির্বাচনেও নৌকার বিপক্ষে ছিলেন তারাই বর্তমানে নির্বাচিত নৌকার প্রার্থী অধ্যক্ষ আবুল কালাম আজাদের বিরুদ্ধে মিথ্যাচার করছেন। তাঁর প্রতিটি প্রোগ্রামে আমিও থাকি, কোথাও কোনো জায়গায় তিনি দলের বিরুদ্ধে কথা বা বেফাঁস মন্তব্য করেন না। এটা অপপ্রচার মাত্র।
আমরা বাগমারাবাসী এর তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানাই। ঘটনায় উপজেলার একজন কাঁচি প্রতীকের ভোট করা নৌকা বিরোধী নেতা জড়িত আছেন বলে আমরা মনে করছি। বিষয়টি আমরা সাংগঠনিকভাবে দেখবো। গুরুত্বপূর্ণ পদে থেকে প্রোপাগাণ্ডে মদত দেওয়া ওই ব্যক্তির উচিত নয় বলে তিনি মনে করেন।
এবিষয়ে রাজশাহী জেলা আওয়ামী শ্রম বিষয়ক সম্পাদক মাহাবুর রহমান বলেন, যারা গত জাতীয় নির্বাচনে নৌকার বিরুদ্ধে কাজ করেছেন তারাই এখন অপপ্রচারে লিপ্ত হয়েছেন। এসব অপপ্রচার করে লাভ নাই। বাগমারাবাসীসহ দলীয় নেতৃবৃন্দ জানেন সব। আমরা এসব অপপ্রচার নিয়ে চিন্তিত না। বরং এসব অপপ্রচার কারীদের দাঁতভাঙা জবাব দেওয়া হবে।
এবিষয়ে কথা বলতে রাজশাহী জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি এবং বাগমারা উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান অনিল কুমার সরকারকে ফোন দেওয়া হলে তিনি ফোন রিসিভ করেননি। তাই তাঁর বক্তব্য নেওয়া সম্ভব হয়নি।#
Tag :
এই অথরের আরো সংবাদ দেখুন

জনপ্রিয় সংবাদ

ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনের মামলার রায়ে স্বতন্ত্র প্রার্থীর বিজয়

error: Content is protected !!

রাজশাহী-৪ আসনের এমপির বিরুদ্ধে অপপ্রচার জনমনে ক্ষোভ

আপডেট টাইম : ০৩:৫৯ অপরাহ্ন, রবিবার, ১৭ মার্চ ২০২৪
রাজশাহী-৪ বাগমারা আসনের নবনির্বাচিত সাংসদ  ও  সাবেক মেয়র জননন্দিত রাজনৈতিক নেতা অধ্যক্ষ আবুল কালাম আজাদের বিরুদ্ধে অপপ্রচার ছড়ানোর অভিযোগ উঠেছে। স্থানীয়রা বলছে, রাজশাহী মহানগর আওয়ামী লীগের কতিপয় নেতার নেপথ্যে মদদে নৌকা বিরোধী একটি চক্র এমপি কালামের বিরুদ্ধে অসত্য, মানহানিকর ও কুরুচিপূর্ণ অপপ্রচার শুরু করেছে।
এ ঘটনায় স্থানীয় আওয়ামী লীগ ও সহযোগী সংগঠনের নেতা-কর্মীসহ সাধারণ মানুষ এসব অপপ্রচারের বিরুদ্ধে বিক্ষুব্ধ হয়ে উঠেছে। স্থানীয়রা বলছে, এমপি কালামকে রাজনৈতিকভাবে মোকাবেলা করতে ব্যর্থ হয়ে, প্রতিপক্ষ এসব ষড়যন্ত্রের আশ্রয় নিয়েছে। রাজনৈতিকভাবে এখন তারা এতোটা দেউলিয়া যে তাদের গোপণে ষড়যন্ত্রের আশ্রয় নিতে হচ্ছে।
জানা গেছে, বিগত ২০২৪ সালের ৭ জানুয়ারী জাতীয় সংসদ নির্বাচনে একটি শক্তিশালী নৌকা বিরোধী সিন্ডিকেট চক্র কাঁচি দিয়ে নৌকা কাটার চেষ্টা করে ব্যর্থ হয়েছে।নৌকার বিপক্ষে কাঁচি’র পক্ষে সক্রিয় ভূমিকায় থেকে বিভিন্ন মিথ্যা প্রোপাগাণ্ডা ছড়িয়ে রাজশাহী-৪ (বাগমারা) আসনের নির্বাচনকে বির্তকিত করার নান অপচেষ্টা করেও এমপি কালামের জনপ্রিয়তার কাছে পরাজিত  হয়েছে।। কিন্ত্ত তারা এখানো হাল ছাড়েননি, অপতৎপরতা চালিয়ে যাচ্ছেন। রাজশাহী-৪ (বাগমারা) আসনে বিপুল ভোটে জয়ী  হন নৌকার প্রার্থী অধ্যক্ষ আবুল কালাম আজাদ।
অপতৎপরতা চালিয়ে সদ্য নির্বাচিত এমপি আবুল কালাম আজাদকে সমালোচিত করতে একের পর এক মানহানিকর কুরুচিপূর্ণ  মিথ্যা তথ্য প্রচার করে যাচ্ছে চক্রটি। এরই ধারাবাহিকতায় একটি অডিও বিকৃত করে তার বরাত দিয়ে ইতোমধ্যে এমপি কালামের বিরুদ্ধে চক্রটির প্রধান প্রোপাগাণ্ডা ছড়াচ্ছেন বলেও অভিযোগ উঠেছে।
এদিকে বাগমারা আওয়ামী লীগের তৃণমুল বলছেন, নির্বাচনে পরাজিত হয়ে একজন নৌকা বিরোধী দলীয় পদের অধিকারী বিভিন্ন বিতর্কের জন্ম দিচ্ছেন। তারা নির্বাচিত এক সংসদ সদস্যের বিরুদ্ধে মিথ্যা গঠনতন্ত্র ও দলীয় প্রধানসহ হাইকমান্ডের নামে মিথ্যা অপবাদ ছড়িয়ে দিচ্ছেন। এটা বাগমারাবাসী মেনে নিবে না। তারা এমন অপতৎপরতা রুখে দিতেও বদ্ধপরিকর।
বাগমারা আওয়ামী লীগের নেতৃবৃন্দ বলছেন, গত ১৩ মার্চ বাগমারায় বঙ্গবন্ধু স্মৃতি জাদুঘর কমপ্লেক্সে উপজেলা আওয়ামী লীগের কার্যনির্বাহী কমিটির সভা হয়। এতে প্রধান অতিথির বক্তব্য দেন সদ্য নির্বাচিত এমপি আবুল কালাম আজাদ। ওই সভায় কোনো প্রকার বেফাঁস কথা বার্তা হয়নি। সেখানকার অডিও সুপার এডিট করে বাজারে ছাড়া হচ্ছে। এসব চক্রান্ত করে লাভ নাই বলেও হুশিয়ারি দেন তাঁরা।
উক্ত অনুষ্ঠানে উপজেলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি জাহাঙ্গীর আলমের সভাপতিত্বে এবং সাধারণ সম্পাদক গোলাম সারওয়ার আবুলের সঞ্চালনায় ওই সভায় জেলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি অ্যাডভোকেট ইব্রাহিম হোসেন, জাকিরুল ইসলাম সান্টুসহ কার্যনির্বাহী কমিটির সদস্য ও সহযোগী সংগঠনের নেতারা উপস্থিত ছিলেন। নেতারা বলেন যে মিথ্যা প্রোপাগাণ্ডা ছড়ানো হচ্ছে সেটা ঠিক না। আমরা এর তীব্র নিন্দা প্রতিবাদ জানাই।
এবিষয়ে বাগমারা উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক গোলাম সারওয়ার আবুল বলেন, বাগমারা উপজেলা আওয়ামী লীগ এখন সুসংগঠিত ও সংঘবদ্ধ। দু- একজন যারা নির্বাচনেও নৌকার বিপক্ষে ছিলেন তারাই বর্তমানে নির্বাচিত নৌকার প্রার্থী অধ্যক্ষ আবুল কালাম আজাদের বিরুদ্ধে মিথ্যাচার করছেন। তাঁর প্রতিটি প্রোগ্রামে আমিও থাকি, কোথাও কোনো জায়গায় তিনি দলের বিরুদ্ধে কথা বা বেফাঁস মন্তব্য করেন না। এটা অপপ্রচার মাত্র।
আমরা বাগমারাবাসী এর তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানাই। ঘটনায় উপজেলার একজন কাঁচি প্রতীকের ভোট করা নৌকা বিরোধী নেতা জড়িত আছেন বলে আমরা মনে করছি। বিষয়টি আমরা সাংগঠনিকভাবে দেখবো। গুরুত্বপূর্ণ পদে থেকে প্রোপাগাণ্ডে মদত দেওয়া ওই ব্যক্তির উচিত নয় বলে তিনি মনে করেন।
এবিষয়ে রাজশাহী জেলা আওয়ামী শ্রম বিষয়ক সম্পাদক মাহাবুর রহমান বলেন, যারা গত জাতীয় নির্বাচনে নৌকার বিরুদ্ধে কাজ করেছেন তারাই এখন অপপ্রচারে লিপ্ত হয়েছেন। এসব অপপ্রচার করে লাভ নাই। বাগমারাবাসীসহ দলীয় নেতৃবৃন্দ জানেন সব। আমরা এসব অপপ্রচার নিয়ে চিন্তিত না। বরং এসব অপপ্রচার কারীদের দাঁতভাঙা জবাব দেওয়া হবে।
এবিষয়ে কথা বলতে রাজশাহী জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি এবং বাগমারা উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান অনিল কুমার সরকারকে ফোন দেওয়া হলে তিনি ফোন রিসিভ করেননি। তাই তাঁর বক্তব্য নেওয়া সম্ভব হয়নি।#