1. somoyerprotyasha@gmail.com : A.S.M. Murshid :
  2. letusikder@gmail.com : Litu Sikder : Litu Sikder
  3. mokterreporter@gmail.com : Mokter Hossain : Mokter Hossain
  4. tussharpress@gmail.com : Tusshar Bhattacharjee : Tusshar Bhattacharjee
নিখোঁজের ১৫ দিন পর কলেজছাত্রের লাশ উদ্ধার - দৈনিক সময়ের প্রত্যাশা ডটকম
রবিবার, ০২ অক্টোবর ২০২২, ০৬:২৪ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম :
পুলিশ ও গণমাধ্যমকর্মী একই সূত্রে গাঁথা ! সকলে মিলে এক সাথে একে অপরের সহযোগিতা নিয়ে কাজ করতে চাই- নড়াইলের পুলিশ সুপার চরভদ্রাসনে বিষাক্ত সাপে কামড়ের ৩দিন পর কৃষকের মৃত্যু ভেড়ামারায় ৯টি পুজা মন্ডপে দুর্গাপূজা শুরু ফরিদপুর শহর দর্জি শ্রমিক ইউনিয়নের মানববন্ধন অনুষ্ঠিত দেশ ব্যাপী কর্মসূচির অংশ হিসেবে  বাংলাদেশ অ্যাম্বুলেন্স মালিক কল্যাণ সমিতির মানববন্ধন অনুষ্ঠিত অক্টোবর সেবা সপ্তাহ উপলক্ষে লায়ন্স ক্লাব অফ ফরিদপুর উদ্যোগে বিস্তারিত কর্মসূচি গ্রহণ খোকসায় শারদীয় দূর্গা পূজার উদযাপন কমিটির সাথে মত বিনিময় সভা শ্রীশ্রী দুর্গা দেবীর শুভগমন উপলক্ষে শারদীয়া ধর্মীয় আলোচনা, বস্ত্র বিতরণ ও সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান  রহনপুর স্টেশন পরিদর্শন করলেন রেলপথ সচিব নলছিটিতে ব্যক্তিগত উদ্যোগে কবরস্থানের গেট সংস্কার

নিখোঁজের ১৫ দিন পর কলেজছাত্রের লাশ উদ্ধার

ডেস্ক রিপোর্টঃ
  • আপডেট টাইম : রবিবার, ২৯ নভেম্বর, ২০২০
  • ৫৮ বার পঠিত
প্রতীকী ছবি।

ঢাকার নবাবগঞ্জ উপজেলায় অপহরণের ১৫ দিন পর একটি পুকুর থেকে হৃদয় হোসেন (১৭) নামের এক কলেজছাত্রের লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ। অপহরণের ঘটনায় জড়িত থাকার অভিযোগে গ্রেপ্তার হৃদয় হোসেনের বন্ধু শাওন মোল্লার (১৯) তথ্যের ভিত্তিতে শনিবার দিবাগত রাত আড়াইটার দিকে উপজেলার ঘোষাইল গ্রামের একটি পুকুর থেকে লাশ উদ্ধার করা হয়।

নিহত হৃদয় হোসেন উপজেলার ঘোষাইল এলাকার সৌদিপ্রবাসী নজরুল ইসলামের ছেলে। সে শিকারিপাড়া তোফাজ্জল হোসেন চৌধুরী কলেজের একাদশ শ্রেণির ছাত্র ছিল। গ্রেপ্তার শাওন মোল্লা একই এলাকার সাইদুল মোল্লার ছেলে।

নিহত হৃদয়ের পারিবারিক সূত্রে জানা গেছে, ১৪ নভেম্বর বিকেলে হৃদয় ঘুরতে যাওয়ার কথা বলে বাসা থেকে বের হয়। রাত ১০টা বেজে গেলেও হৃদয় বাসায় না ফেরায় তার মা ফোন দিয়ে তার মুঠোফোন বন্ধ পান। বিভিন্ন জায়গায় খোঁজাখুঁজি করে সন্ধান না পাওয়ায় পরদিন ১৫ নভেম্বর নবাবগঞ্জ থানায় সাধারণ ডায়েরি করেন হৃদয়ের মা ময়না বেগম। ২২ নভেম্বর হৃদয়ের মুঠোফোন থেকে তার মায়ের মুঠোফোনে কল করে পাঁচ লাখ টাকা মুক্তিপণ দাবি করা হয়। বিষয়টি কাউকে জানালে হৃদয়কে হত্যার হুমকিও দেওয়া হয়। হৃদয়ের মা অপহরণকারীদের ১০ হাজার টাকা বিকাশ করে পাঠান। তিনি পুলিশকেও বিষয়টি জানান।

২৭ নভেম্বর পুনরায় টাকা পাঠাতে বললে ময়না বেগম বিষয়টি পুলিশকে জানান। তখন পুলিশের পরামর্শে ময়না বেগম টাকা পাঠান। তখন তথ্যপ্রযুক্তির সহায়তায় বিকাশ নম্বরটি ট্র্যাক করে উপজেলার বারুয়াখালী বাজারের একটি দোকানের সন্ধান পায় পুলিশ।

সন্ধ্যায় দোকান থেকে টাকা তুলতে এলে শাওন মোল্লা নামের এক যুবককে আটক করে পুলিশ। পরে শাওনের দেওয়া তথ্যের ভিত্তিতে ঘোষাইল গ্রামের মহিন ব্যাপারীর পরিত্যক্ত পুকুরের কচুরিপানার নিচ থেকে হৃদয়ের গলিত লাশ উদ্ধার করে পুলিশ।

ময়না বেগম বলেন, ‘পাঁচ লাখ টাকা দিতে না পারায় ওরা আমার ছেলেকে হত্যা করে। আমি আমার ছেলের হত্যাকাণ্ডের দ্রুত বিচার চাই। যারা আমার ছেলেকে হত্যা করেছে, তাদের ফাঁসি চাই।’

নবাবগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা সিরাজুল ইসলাম বলেন, এ ঘটনায় নিহত হৃদয়ের মা মায়না বেগম দুজনকে আসামি করে থানায় একটি মামলা করেছেন। শাওন মোল্লাকে আটক করে আদালতে পাঠানো হলে তিনি এ হত্যাকাণ্ডে জড়িত থাকার কথা স্বীকার করে জবানবন্দি দিয়েছেন। এ ঘটনায় জড়িত অপর আসামিকে গ্রেপ্তার করতে অভিযান চলছে।

Print Friendly, PDF & Email

নিউজটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published.

এ জাতীয় আরো খবর..

 

 

Copyright August, 2020-2022 @ somoyerprotyasha.com
Website Hosted by: Bdwebs.com
themesbazarsomoyerpr1
error: Content is protected !!