ঢাকা , বৃহস্পতিবার, ২০ জুন ২০২৪, ৬ আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
প্রতিনিধি নিয়োগ
দৈনিক সময়ের প্রত্যাশা পত্রিকার জন্য সারা দেশে জেলা ও উপজেলা পর্যায়ে প্রতিনিধি নিয়োগ করা হচ্ছে। আপনি আপনার এলাকায় সাংবাদিকতা পেশায় আগ্রহী হলে যোগাযোগ করুন।

প্রান্তিক জনকল্যাণ সংস্থা রাজবাড়ীসহ তিন জেলায় সামাজিক উন্নয়ন ও জনকল্যাণমূলক কার্যক্রমে অবদান রাখছে

-প্রান্তিক জনকল্যাণ সংস্থার সামাজিক ও জনকল্যাণমূলক কার্যক্রমের খন্ডচিত্র।

রাজবাড়ীসহ তিনটি জেলায় সামাজিক উন্নয়ন ও জনকল্যাণমূলক কার্যক্রমে ব্যাপক অবদান রাখছে পাংশার কশবামাজাইল ইউনিয়নের ভাতশালা গ্রাম থেকে যাত্রা শুরু করা স্বেচ্ছাসেবী সংগঠন ‘প্রান্তিক জনকল্যাণ সংস্থা’।

জানা যায়, “সবার জন্য ঈদ” প্রতিপাদ্যকে সামনে রেখে রাজবাড়ী, কুষ্টিয়া ও ঝিনাইদহ জেলার বিভিন্ন এলাকায় কয়েকশত অস্বচ্ছল পরিবারের মাঝে ঈদ আনন্দ সামগ্রী বিতরণ করে প্রান্তিক জনসাধারণের জীবনমান উন্নয়নের কাজে নিয়োজিত স্বেচ্ছাসেবী এ সংগঠনটি। পবিত্র ঈদ-উল-ফিতর উপলক্ষে গত ২০ ও ২১ শে এপ্রিল সংস্থার প্রতিনিধিরা রাজবাড়ী, কুষ্টিয়া ও ঝিনাইদহের বিভিন্ন এলাকায় ৩১৯টি অসহায় ও সুবিধাবঞ্চিত পরিবারের হাতে ঈদ সামগ্রী তুলে দেয়। যার প্রতিটি প্যাকেটে ছিল চাল, ডাল, সেমাই, চিনি, লবন, সাবান, পোলাউচাল ও গুঁড়ো দুধ।

যেসব এলাকায় ঈদ সামগ্রী বিতরণ করা হয় তার মধ্যে রয়েছে রাজবাড়ী জেলার পাংশা উপজেলার কশবামাজাইল, কলিমহর, সরিষা, পাট্টা, হাবাসপুর ও বাহাদুরপুর ইউনিয়ন। কালুখালী উপজেলার রতনদিয়া ও সাওরাইল ইউনিয়ন। বালিয়াকান্দি উপজেলার বহরপুর ইউনিয়ন। ঝিনাইদহ জেলার শৈলকুপা উপজেলার দিগনগর ও সারুটিয়া ইউনিয়ন এবং কুষ্টিয়া জেলার খোকসা উপজেলার বেতবাড়ীয়া ও জানিপুর ইউনিয়ন। পবিত্র রমজানে রোজা রেখে প্রচন্ড গরম উপেক্ষা করে সংগঠনটির স্বেচ্ছাসেবীরা উল্লেখিত এলাকায় বাড়ী বাড়ী গিয়ে অসহায় ও দুঃস্থ্য ব্যক্তিদের হাতে প্রয়োজনীয় ঈদ সামগ্রী প্রদান করে।

প্রতি বছর প্রান্তিক জনকল্যাণ সংস্থার উপদেষ্টামন্ডলী এবং আজীবন সদস্যগণ সংস্থার যাকাত ফান্ডে তাদের যাকাতের কিছু অংশ প্রদান করে থাকেন। এবারে সংগৃহীত যাকাত এবং অনুদানের টাকা ঈদ সামগ্রী বাবদ ব্যয় করা ছাড়াও বেশির ভাগ অর্থ কাজে লাগিয়ে সংস্থাটি অসহায় হতদরিদ্র মানুষকে স্বাবলম্বী করার লক্ষ্যে খুব শীঘ্রই তাদেরকে গরু, ছাগল, অটোভ্যান ও সেলাই মেশিন প্রদান করবে।

ঈদ সামগ্রীপ্রাপ্ত অসহায় পরিবারের লোকজন ঈদ সামগ্রী পেয়ে অত্যন্ত আনন্দিত ও অভিভূত হয়। প্রান্তিক জনকল্যাণ সংস্থাকে তারা অন্তরের অন্তঃস্থল থেকে ধন্যবাদ দিয়েছেন এবং সংস্থাটি যেন আরও ভালো ভালো কাজ করে অসহায় প্রান্তিক মানুষের ভাগ্যোন্নয়নে সর্বদা ভূমিকা রাখতে পারে সেজন্য দোয়া করেছেন।
প্রান্তিক জনকল্যাণ সংস্থাটি একটি সম্পূর্ণ অরাজনৈতিক ও অলাভজনক প্রতিষ্ঠান যা ২০১৭ সালে দেশের প্রান্তিক জনগোষ্ঠীর সর্বময় কল্যাণের জন্য প্রতিষ্ঠিত হয়।

সংস্থাটি ব্যক্তি স্বার্থের উর্ধ্বে থেকে আলোকিত সমাজ গঠনে নানাবিধ জনকল্যাণমূলক কার্যক্রম পরিচালনা করে আসছে। মাদকমুক্ত সমাজ গঠন, দারিদ্র্য বিমোচন, বাল্য বিবাহ ও নারী নির্যাতনমুক্ত এবং শিক্ষাযুক্ত সমাজ গঠন এই সংস্থার মূল লক্ষ্য। এই সংস্থার অর্থের প্রধান উৎস হলো সংস্থার সদস্যদের নিকট থেকে সংগৃহীত যাকাত ও অনুদান, আজীবন সদস্য ও সাধারণ সদস্যদের নিয়মিত প্রদানকৃত সদস্য চাঁদা ও সমাজের দুইচার জন দানশীল ব্যক্তি কর্তৃক সম্পূর্র্ণ স্বেচ্ছায় প্রদানকৃত অনুদান। তবে দেশে বিদেশে অবস্থানরত প্রান্তিক জনকল্যাণ সংস্থার কয়েকজন নেতৃস্থানীয় সদস্যের ধারাবাহিক অনুদানই সংস্থার চালিকা শক্তি ও অর্থের প্রধান উৎস।

প্রান্তিক জনকল্যাণ সংস্থার আরও কয়েকটি গুরুত্বপূর্ণ লক্ষ্য ও উদ্দেশ্য হলো-(১) গরীব কৃষকদের প্রয়োজনীয় সময় সম্পূর্ণ সুদমুক্ত কর্জ প্রদানের মাধ্যমে আর্থিক সহযোগিতা করা, (২) দুঃস্থ্য ও বিধবা মহিলাদের উপার্জনক্ষম করার জন্য বিনামূল্যে সেলাই মেশিন, হাঁস-মুরগি ও গরু-ছাগল প্রভৃতি প্রদান করা, (৩) বৃক্ষরোপন কর্মসূচির মাধ্যমে পরিবেশ রক্ষা করা। সংস্থাটি আগামী পাঁচ বছরে দুইলাখ বৃক্ষরোপণের পরিকল্পনা করেছে, যা এলাকায় পরিবেশের ভারসাম্য রক্ষায় গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখবে বলে সংশ্লিস্টরা বিশ্বাস করেন, (৪) বেকার যুব সমাজের কর্মসংস্থানের লক্ষ্যে কম্পিউটার ট্রেনিংসহ বিভিন্ন কারিগরি প্রশিক্ষণের ব্যবস্থা করা, (৫) অসহায় রোগীদের সার্বিক সহযোগিতার ব্যবস্থা করা এবং এলাকার জনগণের মাঝে স্বাস্থ্য সচেতনতা সৃষ্টি করা, (৬) ক্রীড়া এবং সাংস্কৃতিক কার্যক্রম পরিচালনার মাধ্যমে যুব সমাজকে শারীরিক ও মানসিক বিকাশে সহায়তা করা।

প্রান্তিক জনকল্যাণ সংস্থার পক্ষ থেকে গত দুই বছর যাবত বেশ কয়েকটি সমাজকল্যাণমূলক কাজ করা হয়েছে, যার মধ্যে উল্লেখযোগ্য হলো- করোনা ভাইরাসের সময় রোগাক্রান্ত, অভাবগ্রস্থ ও ক্ষতিগ্রস্থদের মানবিক সেবা প্রদান এবং চিকিৎসায় সাহায্য করা। সংস্থার সদস্য ও অন্যান্য দানশীল ব্যক্তিদের থেকে সংগৃহীত যাকাত ও অনুদানের অর্থ দিয়ে শতাধিক গরু-ছাগল ও বেশ কয়েকটি অটোভ্যান দরিদ্রদের মাঝে বিতরণ করা। গ্রামীণ প্রান্তিক কৃষকদের মাঝে সুদমুক্ত কর্জ বা ধারে টাকা বিতরণ। বিশুদ্ধ পানির জন্য এ পর্যন্ত ২৬টি টিউবয়েল দরিদ্রদের মাঝে বিতরণ করা হয়েছে।

২০১৭ সাল থেকে এ পর্যন্ত কয়েক হাজার বৃক্ষরোপণ করা হয়েছে। মাদকের ভয়াবহতার উপর বেশ কিছু ডকুমেন্টারি প্রদর্শন এবং মাদক বিরোধী র‌্যালী করা হয়েছে। ঈদুল ফিতর ও ঈদুল আযহায় দরিদ্রদের মাঝে ঈদ সামগ্রী ও কোরবানির মাংস বন্টন করা হয়েছে। প্রাথমিক ও মাধ্যমিক পরীক্ষায় সেরা ফলাফল অর্জনকারীদের মাঝে বৃত্তি ও ক্রেস্ট প্রদান করা হয়েছে। কেন্দ্রীয় পরীক্ষার ফলাফলের ভিত্তিতে শ্রেষ্ঠ বিদ্যালয় নির্ধারণ করে ক্রেস্ট প্রদান ও শিক্ষকগণের মধ্যে উপহার প্রদান করা হয়। জ্যেষ্ঠ নাগরিক ও অবসরপ্রাপ্ত শিক্ষকগণের মাঝে সম্মাননা ক্রেস্ট প্রদান করা হয়।

সম্প্রতি সংস্থাটির সাথে রাজবাড়ী ছাড়াও ঝিনাদহ, কুষ্টিয়া, ঢাকা, সিরাজগঞ্জ ও পটুয়াখালী জেলার সদস্যবৃন্দ যুক্ত রয়েছেন। প্রান্তিক জনকল্যাণ সংস্থার সূচনালগ্ন থেকেই এর সমস্ত কাজের সাথে ওতপ্রোতভাবে জড়িয়ে আছেন প্রধান উপদেষ্টা মতিউর রহমান জুয়েল, সভাপতি ডাঃ সৈয়দ আনওয়ারউজ্জামান, সিনিয়র সহসভাপতি অধ্যাপক কাজী মিনহাজুল আলম, সাধারণ সম্পাদক শাহ মুহাম্মদ রুহুল কবিরসহ অনেকে যাঁদের প্রত্যক্ষ দিক নির্দেশনায় প্রান্তিক জনকল্যাণ সংস্থা তার সামাজিক কাজের ব্যপ্তি বাড়িয়ে একদিন পৌঁছে যাবে দেশের সকল জেলায়।

শনিবার (৬ মে) সংস্থার প্রচার সম্পাদক কামরুজ্জামান সাচ্চু এসব তথ্য নিশ্চিত করেন।

 

Tag :
এই অথরের আরো সংবাদ দেখুন

জনপ্রিয় সংবাদ
error: Content is protected !!

প্রান্তিক জনকল্যাণ সংস্থা রাজবাড়ীসহ তিন জেলায় সামাজিক উন্নয়ন ও জনকল্যাণমূলক কার্যক্রমে অবদান রাখছে

আপডেট টাইম : ১২:৪৭ অপরাহ্ন, রবিবার, ৭ মে ২০২৩

রাজবাড়ীসহ তিনটি জেলায় সামাজিক উন্নয়ন ও জনকল্যাণমূলক কার্যক্রমে ব্যাপক অবদান রাখছে পাংশার কশবামাজাইল ইউনিয়নের ভাতশালা গ্রাম থেকে যাত্রা শুরু করা স্বেচ্ছাসেবী সংগঠন ‘প্রান্তিক জনকল্যাণ সংস্থা’।

জানা যায়, “সবার জন্য ঈদ” প্রতিপাদ্যকে সামনে রেখে রাজবাড়ী, কুষ্টিয়া ও ঝিনাইদহ জেলার বিভিন্ন এলাকায় কয়েকশত অস্বচ্ছল পরিবারের মাঝে ঈদ আনন্দ সামগ্রী বিতরণ করে প্রান্তিক জনসাধারণের জীবনমান উন্নয়নের কাজে নিয়োজিত স্বেচ্ছাসেবী এ সংগঠনটি। পবিত্র ঈদ-উল-ফিতর উপলক্ষে গত ২০ ও ২১ শে এপ্রিল সংস্থার প্রতিনিধিরা রাজবাড়ী, কুষ্টিয়া ও ঝিনাইদহের বিভিন্ন এলাকায় ৩১৯টি অসহায় ও সুবিধাবঞ্চিত পরিবারের হাতে ঈদ সামগ্রী তুলে দেয়। যার প্রতিটি প্যাকেটে ছিল চাল, ডাল, সেমাই, চিনি, লবন, সাবান, পোলাউচাল ও গুঁড়ো দুধ।

যেসব এলাকায় ঈদ সামগ্রী বিতরণ করা হয় তার মধ্যে রয়েছে রাজবাড়ী জেলার পাংশা উপজেলার কশবামাজাইল, কলিমহর, সরিষা, পাট্টা, হাবাসপুর ও বাহাদুরপুর ইউনিয়ন। কালুখালী উপজেলার রতনদিয়া ও সাওরাইল ইউনিয়ন। বালিয়াকান্দি উপজেলার বহরপুর ইউনিয়ন। ঝিনাইদহ জেলার শৈলকুপা উপজেলার দিগনগর ও সারুটিয়া ইউনিয়ন এবং কুষ্টিয়া জেলার খোকসা উপজেলার বেতবাড়ীয়া ও জানিপুর ইউনিয়ন। পবিত্র রমজানে রোজা রেখে প্রচন্ড গরম উপেক্ষা করে সংগঠনটির স্বেচ্ছাসেবীরা উল্লেখিত এলাকায় বাড়ী বাড়ী গিয়ে অসহায় ও দুঃস্থ্য ব্যক্তিদের হাতে প্রয়োজনীয় ঈদ সামগ্রী প্রদান করে।

প্রতি বছর প্রান্তিক জনকল্যাণ সংস্থার উপদেষ্টামন্ডলী এবং আজীবন সদস্যগণ সংস্থার যাকাত ফান্ডে তাদের যাকাতের কিছু অংশ প্রদান করে থাকেন। এবারে সংগৃহীত যাকাত এবং অনুদানের টাকা ঈদ সামগ্রী বাবদ ব্যয় করা ছাড়াও বেশির ভাগ অর্থ কাজে লাগিয়ে সংস্থাটি অসহায় হতদরিদ্র মানুষকে স্বাবলম্বী করার লক্ষ্যে খুব শীঘ্রই তাদেরকে গরু, ছাগল, অটোভ্যান ও সেলাই মেশিন প্রদান করবে।

ঈদ সামগ্রীপ্রাপ্ত অসহায় পরিবারের লোকজন ঈদ সামগ্রী পেয়ে অত্যন্ত আনন্দিত ও অভিভূত হয়। প্রান্তিক জনকল্যাণ সংস্থাকে তারা অন্তরের অন্তঃস্থল থেকে ধন্যবাদ দিয়েছেন এবং সংস্থাটি যেন আরও ভালো ভালো কাজ করে অসহায় প্রান্তিক মানুষের ভাগ্যোন্নয়নে সর্বদা ভূমিকা রাখতে পারে সেজন্য দোয়া করেছেন।
প্রান্তিক জনকল্যাণ সংস্থাটি একটি সম্পূর্ণ অরাজনৈতিক ও অলাভজনক প্রতিষ্ঠান যা ২০১৭ সালে দেশের প্রান্তিক জনগোষ্ঠীর সর্বময় কল্যাণের জন্য প্রতিষ্ঠিত হয়।

সংস্থাটি ব্যক্তি স্বার্থের উর্ধ্বে থেকে আলোকিত সমাজ গঠনে নানাবিধ জনকল্যাণমূলক কার্যক্রম পরিচালনা করে আসছে। মাদকমুক্ত সমাজ গঠন, দারিদ্র্য বিমোচন, বাল্য বিবাহ ও নারী নির্যাতনমুক্ত এবং শিক্ষাযুক্ত সমাজ গঠন এই সংস্থার মূল লক্ষ্য। এই সংস্থার অর্থের প্রধান উৎস হলো সংস্থার সদস্যদের নিকট থেকে সংগৃহীত যাকাত ও অনুদান, আজীবন সদস্য ও সাধারণ সদস্যদের নিয়মিত প্রদানকৃত সদস্য চাঁদা ও সমাজের দুইচার জন দানশীল ব্যক্তি কর্তৃক সম্পূর্র্ণ স্বেচ্ছায় প্রদানকৃত অনুদান। তবে দেশে বিদেশে অবস্থানরত প্রান্তিক জনকল্যাণ সংস্থার কয়েকজন নেতৃস্থানীয় সদস্যের ধারাবাহিক অনুদানই সংস্থার চালিকা শক্তি ও অর্থের প্রধান উৎস।

প্রান্তিক জনকল্যাণ সংস্থার আরও কয়েকটি গুরুত্বপূর্ণ লক্ষ্য ও উদ্দেশ্য হলো-(১) গরীব কৃষকদের প্রয়োজনীয় সময় সম্পূর্ণ সুদমুক্ত কর্জ প্রদানের মাধ্যমে আর্থিক সহযোগিতা করা, (২) দুঃস্থ্য ও বিধবা মহিলাদের উপার্জনক্ষম করার জন্য বিনামূল্যে সেলাই মেশিন, হাঁস-মুরগি ও গরু-ছাগল প্রভৃতি প্রদান করা, (৩) বৃক্ষরোপন কর্মসূচির মাধ্যমে পরিবেশ রক্ষা করা। সংস্থাটি আগামী পাঁচ বছরে দুইলাখ বৃক্ষরোপণের পরিকল্পনা করেছে, যা এলাকায় পরিবেশের ভারসাম্য রক্ষায় গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখবে বলে সংশ্লিস্টরা বিশ্বাস করেন, (৪) বেকার যুব সমাজের কর্মসংস্থানের লক্ষ্যে কম্পিউটার ট্রেনিংসহ বিভিন্ন কারিগরি প্রশিক্ষণের ব্যবস্থা করা, (৫) অসহায় রোগীদের সার্বিক সহযোগিতার ব্যবস্থা করা এবং এলাকার জনগণের মাঝে স্বাস্থ্য সচেতনতা সৃষ্টি করা, (৬) ক্রীড়া এবং সাংস্কৃতিক কার্যক্রম পরিচালনার মাধ্যমে যুব সমাজকে শারীরিক ও মানসিক বিকাশে সহায়তা করা।

প্রান্তিক জনকল্যাণ সংস্থার পক্ষ থেকে গত দুই বছর যাবত বেশ কয়েকটি সমাজকল্যাণমূলক কাজ করা হয়েছে, যার মধ্যে উল্লেখযোগ্য হলো- করোনা ভাইরাসের সময় রোগাক্রান্ত, অভাবগ্রস্থ ও ক্ষতিগ্রস্থদের মানবিক সেবা প্রদান এবং চিকিৎসায় সাহায্য করা। সংস্থার সদস্য ও অন্যান্য দানশীল ব্যক্তিদের থেকে সংগৃহীত যাকাত ও অনুদানের অর্থ দিয়ে শতাধিক গরু-ছাগল ও বেশ কয়েকটি অটোভ্যান দরিদ্রদের মাঝে বিতরণ করা। গ্রামীণ প্রান্তিক কৃষকদের মাঝে সুদমুক্ত কর্জ বা ধারে টাকা বিতরণ। বিশুদ্ধ পানির জন্য এ পর্যন্ত ২৬টি টিউবয়েল দরিদ্রদের মাঝে বিতরণ করা হয়েছে।

২০১৭ সাল থেকে এ পর্যন্ত কয়েক হাজার বৃক্ষরোপণ করা হয়েছে। মাদকের ভয়াবহতার উপর বেশ কিছু ডকুমেন্টারি প্রদর্শন এবং মাদক বিরোধী র‌্যালী করা হয়েছে। ঈদুল ফিতর ও ঈদুল আযহায় দরিদ্রদের মাঝে ঈদ সামগ্রী ও কোরবানির মাংস বন্টন করা হয়েছে। প্রাথমিক ও মাধ্যমিক পরীক্ষায় সেরা ফলাফল অর্জনকারীদের মাঝে বৃত্তি ও ক্রেস্ট প্রদান করা হয়েছে। কেন্দ্রীয় পরীক্ষার ফলাফলের ভিত্তিতে শ্রেষ্ঠ বিদ্যালয় নির্ধারণ করে ক্রেস্ট প্রদান ও শিক্ষকগণের মধ্যে উপহার প্রদান করা হয়। জ্যেষ্ঠ নাগরিক ও অবসরপ্রাপ্ত শিক্ষকগণের মাঝে সম্মাননা ক্রেস্ট প্রদান করা হয়।

সম্প্রতি সংস্থাটির সাথে রাজবাড়ী ছাড়াও ঝিনাদহ, কুষ্টিয়া, ঢাকা, সিরাজগঞ্জ ও পটুয়াখালী জেলার সদস্যবৃন্দ যুক্ত রয়েছেন। প্রান্তিক জনকল্যাণ সংস্থার সূচনালগ্ন থেকেই এর সমস্ত কাজের সাথে ওতপ্রোতভাবে জড়িয়ে আছেন প্রধান উপদেষ্টা মতিউর রহমান জুয়েল, সভাপতি ডাঃ সৈয়দ আনওয়ারউজ্জামান, সিনিয়র সহসভাপতি অধ্যাপক কাজী মিনহাজুল আলম, সাধারণ সম্পাদক শাহ মুহাম্মদ রুহুল কবিরসহ অনেকে যাঁদের প্রত্যক্ষ দিক নির্দেশনায় প্রান্তিক জনকল্যাণ সংস্থা তার সামাজিক কাজের ব্যপ্তি বাড়িয়ে একদিন পৌঁছে যাবে দেশের সকল জেলায়।

শনিবার (৬ মে) সংস্থার প্রচার সম্পাদক কামরুজ্জামান সাচ্চু এসব তথ্য নিশ্চিত করেন।