ঢাকা , বৃহস্পতিবার, ২০ জুন ২০২৪, ৬ আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
প্রতিনিধি নিয়োগ
দৈনিক সময়ের প্রত্যাশা পত্রিকার জন্য সারা দেশে জেলা ও উপজেলা পর্যায়ে প্রতিনিধি নিয়োগ করা হচ্ছে। আপনি আপনার এলাকায় সাংবাদিকতা পেশায় আগ্রহী হলে যোগাযোগ করুন।

পাংশায় চন্দনা রেগুলেটর-পদ্মা নদীর উৎসমুখ পর্যন্ত পুনঃখনন প্রকল্পের উদ্বোধন

পাংশায় সোমবার সকালে চন্দনা রেগুলেট থেকে পদ্মা নদীর উৎসমুখ পর্যন্ত চন্দনা নদীর পুনঃখনন প্রকল্পের উদ্বোধন করেন কালিকাপুর ইউপির চেয়ারম্যান আতিউর রহমান নবাব ও হাবাসপুর ইউপি আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ফজলুল হক বিশ্বাস।

রাজবাড়ী জেলার পাংশায় সোমবার ২২ ফেব্রæয়ারী সকালে চন্দনা রেগুলেটর থেকে পদ্মা নদীর উৎসমুখ পর্যন্ত চন্দনা নদীর পুনঃখনন প্রকল্পের উদ্বোধন করা হয়েছে।

সোমবার সকাল সাড়ে ১০টার দিকে প্রকল্পের উদ্বোধন করেন কালুখালী উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি, কালিকাপুর ইউপির চেয়ারম্যান আতিউর রহমান নবাব ও পাংশার হাবাসপুর ইউপি আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ফজলুল হক বিশ্বাস। এ সময় অন্যান্যের মধ্যে আবু সাল্লেক, আব্দুল মতিন, আবুল কাশেম, সেলিম, মুসা ও মন্টুসহ পানি উন্নয়ন বোর্ডের কর্মকর্তাবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।

জানা যায়, চন্দনা-বারাশিয়া নদী খনন প্রকল্পের আওতায় চন্দনা নদীর পদ্মার উৎসমুখ থেকে চন্দনা রেগুলেটর পর্যন্ত ১কোটি ২২লাখ টাকা ব্যয়ে ২হাজার ১শ মিটার চন্দনা নদীর পুনঃখনন প্রকল্পের বরাদ্দ হয়েছে। পানি উন্নয়ন বোর্ডের তত্ত¡াবধানে প্রকল্প বাস্তবায়ন হবে। সোমবার আনুষ্ঠানিক ভাবে প্রকল্পের উদ্বোধন করা হয়।

কালিকাপুর ইউপি চেয়ারম্যান আতিউর রহমান নবাব ও হাবাসপুর ইউপি আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ফজলুল হক বিশ্বাস বলেন, চর পড়ে নদী সংকীর্ণ এবং পানি শূন্য হয়ে পড়েছে। চন্দনা নদী পুনঃখননের ফলে নদীর গভীরতা হবে। ফলে নদীতে পানি থাকবে।

Tag :
এই অথরের আরো সংবাদ দেখুন

জনপ্রিয় সংবাদ
error: Content is protected !!

পাংশায় চন্দনা রেগুলেটর-পদ্মা নদীর উৎসমুখ পর্যন্ত পুনঃখনন প্রকল্পের উদ্বোধন

আপডেট টাইম : ০৯:৫৯ অপরাহ্ন, সোমবার, ২২ ফেব্রুয়ারী ২০২১

রাজবাড়ী জেলার পাংশায় সোমবার ২২ ফেব্রæয়ারী সকালে চন্দনা রেগুলেটর থেকে পদ্মা নদীর উৎসমুখ পর্যন্ত চন্দনা নদীর পুনঃখনন প্রকল্পের উদ্বোধন করা হয়েছে।

সোমবার সকাল সাড়ে ১০টার দিকে প্রকল্পের উদ্বোধন করেন কালুখালী উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি, কালিকাপুর ইউপির চেয়ারম্যান আতিউর রহমান নবাব ও পাংশার হাবাসপুর ইউপি আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ফজলুল হক বিশ্বাস। এ সময় অন্যান্যের মধ্যে আবু সাল্লেক, আব্দুল মতিন, আবুল কাশেম, সেলিম, মুসা ও মন্টুসহ পানি উন্নয়ন বোর্ডের কর্মকর্তাবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।

জানা যায়, চন্দনা-বারাশিয়া নদী খনন প্রকল্পের আওতায় চন্দনা নদীর পদ্মার উৎসমুখ থেকে চন্দনা রেগুলেটর পর্যন্ত ১কোটি ২২লাখ টাকা ব্যয়ে ২হাজার ১শ মিটার চন্দনা নদীর পুনঃখনন প্রকল্পের বরাদ্দ হয়েছে। পানি উন্নয়ন বোর্ডের তত্ত¡াবধানে প্রকল্প বাস্তবায়ন হবে। সোমবার আনুষ্ঠানিক ভাবে প্রকল্পের উদ্বোধন করা হয়।

কালিকাপুর ইউপি চেয়ারম্যান আতিউর রহমান নবাব ও হাবাসপুর ইউপি আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ফজলুল হক বিশ্বাস বলেন, চর পড়ে নদী সংকীর্ণ এবং পানি শূন্য হয়ে পড়েছে। চন্দনা নদী পুনঃখননের ফলে নদীর গভীরতা হবে। ফলে নদীতে পানি থাকবে।