ঢাকা , বৃহস্পতিবার, ০৯ ফেব্রুয়ারী ২০২৩, ২৬ মাঘ ১৪২৯ বঙ্গাব্দ
সংবাদ শিরোনাম
খোকসায় মিম্মার উচ্চ শিক্ষার সহযোগিতায় এগিয়ে এলেন খোকসার মানবিক ইউএনও রিপন বিশ্বাস বিট ও কমিউনিটি পুলিশিং এর মাধ্যমে আইনের শাসন মানুষের দোরগোড়ায় পৌছে দেওয়ার সরকারের লক্ষ্যঃ -এসপি মোঃ খায়রুল আলম। পদ্মায় স্পিড বোট দুর্ঘটনায় নদীতে ভেসে উঠল আরও দুটি লাশঃ দুর্ঘটনাস্থল পরিদর্শন করলেন ডিসি কুষ্টিয়ায় ছুরিকাঘাতে ব্যবসায়ী খুন মাগুরা ডুমুরশিয়া ডি.সি মাধ্যমিক বিদ্যালয়ে ৬২ তম বার্ষিক পুরস্কার বিতরণ অনুষ্ঠান মধুখালীতে ট্রেনে কাটা পড়ে একজনের মৃত্যু সালথায় স্কয়ার প্রি- ক্যাডেট স্কুলে বার্ষিক ক্রীড়া প্রতিযোগিতার পুরস্কার বিতরণ জসিম পল্লী মেলায় শান্তু নাট্য দল ও মুরারীদহ যুবসমাজ উন্নয়ন সংঘর পরিবেশনা ৯৭ তম আলিপুর সরকারি  প্রাথমিক বিদ্যালয়ের বার্ষিক ক্রীড়া প্রতিযোগিতা ও পুরস্কার বিতরণ অনুষ্ঠিত ৩৭ ঘণ্টা পর ধংসস্তূপ থেকে উদ্ধার রিংকু

নড়াইলে ক্লিনিক মালিক ও ডাক্তারের নামে মামলা, সিভিল সার্জন কে প্রতিবেদন দাখিলের নির্দেশ আদালতের

নড়াইলের একটি ক্লিনিকে নিম্নমানের সামগ্রী ব্যবহার করে অপারশন করা,চিকিৎিসকের গাফিলতিতে প্রসূতি মায়ের জীবন সংকটাপন্ন হওয়ার অভিযােগে আদালতে মামলা হয়েছে। নড়াইল সদর হাসপাতালের সিনিয়র কনসালটেন্ট  ডা.মাে.আকরাম হােসেন সহ ইমন ক্লিনিকের মালিক মাে.সারােয়ার হােসেন ও তার স্ত্রী শিল্পী বেগমের নামে মামলা দায়ের করেন ভূক্তভােগী প্রসূতি ঝুমা বেগমের স্বামী মাহফুজ নুর রিপন।
২৫ জানুয়ারী নড়াইল সদর নালিশী আদালতে মামলাটি দায়ের করা হয়। নালিশী আদালতের বিচারক  সিনিয়র চীফ জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আমাতুল মাের্শেদা আগামী ২৫ ফব্রুয়ারী সিভিল সার্জনকে প্রতিবেদন দাখিলের জন্য বলেছেন।
মামলায় বলা হয়,২৪ ডিসেম্বর ইমন ক্লিনিক সিজার অপারেশন করাতে যান সন্তান সম্ভাবা মা ঝুমা বেগম। অপারেশন করেন সদর হাসপাতালের চিকিৎসক ডা.মাে. আকরাম হােসেন।
ঐ অপারেশনে নিম্নমানের সূতা এবং সামগ্রী ব্যবহার করায়  রােগীর তলপেট ফেটে রক্ত বের হয়ে জরায়ূ এবং প্রস্রাবের নালীতে পচন ধরে।অবস্থা খারাপ হলে খুলনায় নিয়ে ২য় দফা অপারেশন করে জরায়ু কেটে ফেলা হয়। এই ভুল চিকিৎসায় চিকিৎসক ও ক্লিনিক মালিকরা যুক্ত।
নিম্নমানের সামগ্রী ব্যবহার এবং চিকিৎসকের গাফিলতির ফলে ৪ লক্ষ টাকা খরচ সহ স্ত্রীর জীবন বিপন্ন হওয়ায় আদালতের কাছে উপযুক্ত শাস্তি দাবী করেছেন মামলার বাদী মাহফুজ নুর রিপন। মামলার স্বাক্ষী হিসেবে খুলনার গাইনী বিশেষজ্ঞ চিকিৎসক ডা.শামছুনাহার লাকী,নড়াইল সদর হাসপাতালের চিকিৎসক ডা.সুব্রত কুমার বাগচী সহ ৫ জনকে উল্লেখ করা হয়েছে।
এ প্রসঙ্গে ইমন সার্জিক্যাল ক্লিনিকের মালিক মাে.সরােয়ার হােসেন ও তার স্ত্রী শিল্পী বেগম বলেন,আমাদের ক্লিনিকে আমরা যথাযথভাবে চেষ্টা করি রােগী সুস্থ করার জন্য। এখান থেকে চলে গিয়ে রােগীরা অসচেতনভাবে অনেক কাজ করে যাতে তাদের অন্য কােন সমস্যা তৈরী হতে পারে এতে আমাদের কােন দায় নেই।
মামলার অপর আসামী সদর হাসপাতালের সিনিয়র কনসালটেন্ট ডা.মাে.আকরাম হােসেন বলেন,আমি তাে অপারেশন ভালােভাবেই করলাম,ঘটনাতাে অনেকদিন পরের,এরপর তারা সদর হাসপাতালে ভর্তি হয়ছে,খুলনায় চিকিৎসা নিয়ছে,কােথা থেকে কি হয়েছে আমি বুঝতে পারলাম না।
এদিকে জেলায় সদ্য যােগদান কারী সিভিল সার্জন ডা.নাসিমা আকতারের সাথে এ ব্যাপারে কথা বললে তিনি জানান,এ বিষয়ে আমি তেমন কিছুই জানিনা।আমি ছুটিতে আছি, বুধবার(২৭ জানুয়ারী) নড়াইলে জয়েন করে এ ব্যাপারে কথা বলতে পারবাে।
Tag :

এই অথরের আরো সংবাদ দেখুন

জনপ্রিয় সংবাদ

খোকসায় মিম্মার উচ্চ শিক্ষার সহযোগিতায় এগিয়ে এলেন খোকসার মানবিক ইউএনও রিপন বিশ্বাস

error: Content is protected !!

নড়াইলে ক্লিনিক মালিক ও ডাক্তারের নামে মামলা, সিভিল সার্জন কে প্রতিবেদন দাখিলের নির্দেশ আদালতের

আপডেট টাইম : ০৬:৪১ অপরাহ্ন, মঙ্গলবার, ২৬ জানুয়ারী ২০২১
নড়াইলের একটি ক্লিনিকে নিম্নমানের সামগ্রী ব্যবহার করে অপারশন করা,চিকিৎিসকের গাফিলতিতে প্রসূতি মায়ের জীবন সংকটাপন্ন হওয়ার অভিযােগে আদালতে মামলা হয়েছে। নড়াইল সদর হাসপাতালের সিনিয়র কনসালটেন্ট  ডা.মাে.আকরাম হােসেন সহ ইমন ক্লিনিকের মালিক মাে.সারােয়ার হােসেন ও তার স্ত্রী শিল্পী বেগমের নামে মামলা দায়ের করেন ভূক্তভােগী প্রসূতি ঝুমা বেগমের স্বামী মাহফুজ নুর রিপন।
২৫ জানুয়ারী নড়াইল সদর নালিশী আদালতে মামলাটি দায়ের করা হয়। নালিশী আদালতের বিচারক  সিনিয়র চীফ জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আমাতুল মাের্শেদা আগামী ২৫ ফব্রুয়ারী সিভিল সার্জনকে প্রতিবেদন দাখিলের জন্য বলেছেন।
মামলায় বলা হয়,২৪ ডিসেম্বর ইমন ক্লিনিক সিজার অপারেশন করাতে যান সন্তান সম্ভাবা মা ঝুমা বেগম। অপারেশন করেন সদর হাসপাতালের চিকিৎসক ডা.মাে. আকরাম হােসেন।
ঐ অপারেশনে নিম্নমানের সূতা এবং সামগ্রী ব্যবহার করায়  রােগীর তলপেট ফেটে রক্ত বের হয়ে জরায়ূ এবং প্রস্রাবের নালীতে পচন ধরে।অবস্থা খারাপ হলে খুলনায় নিয়ে ২য় দফা অপারেশন করে জরায়ু কেটে ফেলা হয়। এই ভুল চিকিৎসায় চিকিৎসক ও ক্লিনিক মালিকরা যুক্ত।
নিম্নমানের সামগ্রী ব্যবহার এবং চিকিৎসকের গাফিলতির ফলে ৪ লক্ষ টাকা খরচ সহ স্ত্রীর জীবন বিপন্ন হওয়ায় আদালতের কাছে উপযুক্ত শাস্তি দাবী করেছেন মামলার বাদী মাহফুজ নুর রিপন। মামলার স্বাক্ষী হিসেবে খুলনার গাইনী বিশেষজ্ঞ চিকিৎসক ডা.শামছুনাহার লাকী,নড়াইল সদর হাসপাতালের চিকিৎসক ডা.সুব্রত কুমার বাগচী সহ ৫ জনকে উল্লেখ করা হয়েছে।
এ প্রসঙ্গে ইমন সার্জিক্যাল ক্লিনিকের মালিক মাে.সরােয়ার হােসেন ও তার স্ত্রী শিল্পী বেগম বলেন,আমাদের ক্লিনিকে আমরা যথাযথভাবে চেষ্টা করি রােগী সুস্থ করার জন্য। এখান থেকে চলে গিয়ে রােগীরা অসচেতনভাবে অনেক কাজ করে যাতে তাদের অন্য কােন সমস্যা তৈরী হতে পারে এতে আমাদের কােন দায় নেই।
মামলার অপর আসামী সদর হাসপাতালের সিনিয়র কনসালটেন্ট ডা.মাে.আকরাম হােসেন বলেন,আমি তাে অপারেশন ভালােভাবেই করলাম,ঘটনাতাে অনেকদিন পরের,এরপর তারা সদর হাসপাতালে ভর্তি হয়ছে,খুলনায় চিকিৎসা নিয়ছে,কােথা থেকে কি হয়েছে আমি বুঝতে পারলাম না।
এদিকে জেলায় সদ্য যােগদান কারী সিভিল সার্জন ডা.নাসিমা আকতারের সাথে এ ব্যাপারে কথা বললে তিনি জানান,এ বিষয়ে আমি তেমন কিছুই জানিনা।আমি ছুটিতে আছি, বুধবার(২৭ জানুয়ারী) নড়াইলে জয়েন করে এ ব্যাপারে কথা বলতে পারবাে।