1. somoyerprotyasha@gmail.com : A.S.M. Murshid :
  2. letusikder@gmail.com : Litu Sikder : Litu Sikder
  3. mokterreporter@gmail.com : Mokter Hossain : Mokter Hossain
  4. tussharpress@gmail.com : Tusshar Bhattacharjee : Tusshar Bhattacharjee
নির্বাচনে ভাই হেরে যাওয়ায় মাদ্রাসা ভেঙে নিলেন ইউপি চেয়ারম্যান - দৈনিক সময়ের প্রত্যাশা ডটকম
সোমবার, ০৪ জুলাই ২০২২, ০৭:০৯ অপরাহ্ন
শিরোনাম :
ফরিদপুরের আলফাডাঙ্গায় নানা দুর্নীতির দায়ে চাকুরিচ্যুত জেলা রেজিস্ট্রার ফজলার রহমানের বিরুদ্ধে মানববন্ধন অনুষ্ঠিত এবার ফরিদপুরে গৃহবধূকে গণধর্ষণের অভিযোগ ভাবিকে হত্যার দায়ে দেবরের যাবজ্জীবন আলফাডাঙ্গাবাসীর নজর কেড়েছে ‘সানি’ সাবেক জেলা রেজিস্ট্রারের বিরুদ্ধে মানববন্ধন গোমস্তাপুরে জাতীয় শিক্ষা সপ্তাহ ও বঙ্গবন্ধু সৃজনশীল মেধা অন্বেষণ অনুষ্ঠিত ছেলের জন্য পাত্রী দেখানোর কথা বলে ডেকে এনে মাকে গণধর্ষণের অভিযোগ সালথায় বঙ্গবন্ধু সৃজনশীল মেধা অন্বেষণ ও জাতীয় শিক্ষা সপ্তাহে পুরস্কার বিতরণ বোয়ালমারীতে ১০ ভিক্ষুক পেল ১০ ছাগল ফরিদপুরে  অ্যাক্রোবেটিক প্রদর্শনী অনুষ্ঠিত

নির্বাচনে ভাই হেরে যাওয়ায় মাদ্রাসা ভেঙে নিলেন ইউপি চেয়ারম্যান

কুয়াকাটা (পটুয়াখালী) প্রতিনিধিঃ
  • আপডেট টাইম : শনিবার, ৯ জানুয়ারী, ২০২১
  • ১২১ বার পঠিত

কুয়াকাটা পৌর নির্বাচনে মেয়রপদে ভাই হেরে যাওয়ার জেরে মাদ্রাসা ভেঙে নিয়ে গেলেন ইউপি চেয়ারম্যান। কুয়াকাটার পার্শ্ববর্তী লতাচাপলী ইউনিয়নের খাজুরা এলাকার বাহামকান্দা গ্রামে এ ঘটনা ঘটেছে।

শনিবার সকাল ৭টার দিকে টিনের ঘরের ওই মাদ্রাসাটি ভেঙে একই গ্রামের অন্যত্র স্থাপনের উদ্যোগ নেওয়ায় স্থানীয় লোকজনের মধ্যে মিশ্র প্রতিক্রিয়া দেখা দেয়।

স্থানীয়রা জানান, ওই এলাকার হামেদ গাজী নামে জনৈক ব্যক্তি খাজুরা বাহামকান্দা খাইরুন্নেছা মডেল মাদ্রাসার অনুকূলে ৩০ শতক জমি দান করেন। ১৫ দিন আগে দানকৃত জমিতে স্থানীয় এক মৎস্য ব্যবসায়ীর আর্থিক সহায়তায় একটি টিনের ঘর তুলে মাদ্রাসার নির্মাণ কাজ সম্পন্ন করা হয়।

দাতা হামেদ গাজী বলেন, কুয়াকাটা পৌরসভা নির্বাচনে আ. বারেক মোল্লা হেরে যাওয়ায় তার ভাই লতাচাপলী ইউপি চেয়ারম্যান আনছার উদ্দিন মোল্লা উড়ে এসে জুড়ে বসে মাদ্রাসার সভাপতি হন। এরপর স্বেচ্ছাচারী আচরণ শুরু করেন। এ নিয়ে দ্বন্দ্ব দেখা দিলে কোনো আলাপ-আলোচনা না করেই শনিবার সকালে আনছার মোল্লার নির্দেশে মাদ্রাসাটি তার লোক সালাম গাজী ও মজিদ মাঝির নেতৃত্বে ভেঙে নিয়ে যায়।

এ বিষয়ে অভিযুক্ত মজিদ মাঝি বলেন, মাদ্রাসার জন্য জমি দিয়ে হামেদ গাজী তার নিজের কর্তৃত্ব বজায় রাখার চেষ্টা করেছেন।

এ ব্যাপারে আনছার উদ্দিন মোল্লা বলেন, পৌর নির্বাচনে আমাদের প্রতিপক্ষ দাতা হামেদ গাজীর পছন্দের শিক্ষক নিয়োগ নিয়ে মতবিরোধ দেখা দেওয়ায় মাদ্রাসাটি অন্যত্র স্থানান্তর করা হয়েছে।

এ ব্যাপারে মহিপুর থানার ওসি মো. মনিরুজ্জামান ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে বলেন, খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে পুলিশ পাঠানো হয়েছিল। তবে কোনো পক্ষই লিখিত অভিযোগ দেয়নি, অভিযোগ পেলে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

Print Friendly, PDF & Email

নিউজটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published.

এ জাতীয় আরো খবর..

 

 

Copyright August, 2020-2022 @ somoyerprotyasha.com
Website Hosted by: Bdwebs.com
themesbazarsomoyerpr1
error: Content is protected !!