ঢাকা , বৃহস্পতিবার, ১৮ এপ্রিল ২০২৪, ৫ বৈশাখ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
প্রতিনিধি নিয়োগ
দৈনিক সময়ের প্রত্যাশা পত্রিকার জন্য সারা দেশে জেলা ও উপজেলা পর্যায়ে প্রতিনিধি নিয়োগ করা হচ্ছে। আপনি আপনার এলাকায় সাংবাদিকতা পেশায় আগ্রহী হলে যোগাযোগ করুন।

কুষ্টিয়ায় তুচ্ছ বিষয়কে কেন্দ্র করে যুবককে কুপিয়ে হত্যা

কুষ্টিয়ার ভেড়ামারায় তুচ্ছ বিষয়কে কেন্দ্র করে তামিম (২১) নামের যুবককে কুপিয়ে হত্যা করা হয়েছে এই মর্মে নিহতর পিতা বাদী হয়ে থানায় মামলা।

রোববার (৩১ মার্চ) রাত দেড়টার সময় রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তামিম মারা যায়।

নিহত তামিম ভেড়ামারা উপজেলার মোকারিমপুর ইউনিয়নের ৯ নম্বর ওয়ার্ডের ক্ষেমিড়দিয়া মুন্সিপাড়া গ্রামের রং মিস্ত্রি শাহীন আলীর ছেলে।

পুলিশ, নিহতের পরিবার ও স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, পূর্বশত্রুতা ও  কাজে শ্রমিকদের পারিশ্রমিক দেওয়াকে কেন্দ্র করে তামিমের সঙ্গে প্রতিপক্ষের আমজাদ, শাহীন ও মোমিনের বাগবিতণ্ডা ও মারামারি হয়।

এ ঘটনায় ২৩ মার্চ ভেড়ামারা থানায় প্রতিপক্ষের বিরুদ্ধে লিখিত অভিযোগ দায়ের করেন তামিম।

থানায় অভিযোগ দেওয়ায় ক্ষিপ্ত হয়ে ২৬ মার্চ রাতে তামিমের ওপর হামলা চালায় আমজাদ, শাহীন, মোমিন ও তাদের লোকজন। এতে গুরুতর আহত অবস্থায় উদ্ধার করে প্রথমে ভেড়ামারা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স ও পরে কুষ্টিয়া জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। অবস্থা আশংকাজনক হওয়ায় তাকে রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে রেফার্ড করা হয়।

সেখানে চিকিৎসাধীন অবস্থায় ৩১মার্চ রবিবার রাত দেড়টার সময় চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন।

স্থানীয় ইউপি সদস্য আশরাফুল ইসলাম বলেন, তামাকের কাজের পারিশ্রমিক নিয়ে তামিমের সঙ্গে প্রতিপক্ষের বাগবিতণ্ডা ও মারামারি হয়। পরে আমজাদ, শাহীন ও তাদের লোকজন তামিমের ওপর সন্ত্রাসী হামলা করে। হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তামিম মারা গেছে।

মোকারিমপুর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আব্দুস সামাদ  বলেন, তামাকের কাজের পারিশ্রমিক নিয়ে মারামারি হয়। পরে প্রতিপক্ষের লোকজনদের কুড়ালের আঘাতে তামিমের মাথার খুলি ভেঙে যায়। রাজশাহীতে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তার মৃত্যু হয়েছে।

এ বিষয়ে ভেড়ামারা থানা পুলিশের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) জহুরুল ইসলাম  বলেন, তুচ্ছ বিষয়কে কেন্দ্র করে হত্যার ঘটনা ঘটেছে। বর্তমানে পরিস্থিতি স্বাভাবিক রয়েছে। ওই এলাকায় অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে। হামলার ঘটনায় মামলা হয়েছে। আসামিরা সবাই পলাতক রয়েছে। জড়িতদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

Tag :
এই অথরের আরো সংবাদ দেখুন

জনপ্রিয় সংবাদ
error: Content is protected !!

কুষ্টিয়ায় তুচ্ছ বিষয়কে কেন্দ্র করে যুবককে কুপিয়ে হত্যা

আপডেট টাইম : ০৪:৩৯ অপরাহ্ন, সোমবার, ১ এপ্রিল ২০২৪

কুষ্টিয়ার ভেড়ামারায় তুচ্ছ বিষয়কে কেন্দ্র করে তামিম (২১) নামের যুবককে কুপিয়ে হত্যা করা হয়েছে এই মর্মে নিহতর পিতা বাদী হয়ে থানায় মামলা।

রোববার (৩১ মার্চ) রাত দেড়টার সময় রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তামিম মারা যায়।

নিহত তামিম ভেড়ামারা উপজেলার মোকারিমপুর ইউনিয়নের ৯ নম্বর ওয়ার্ডের ক্ষেমিড়দিয়া মুন্সিপাড়া গ্রামের রং মিস্ত্রি শাহীন আলীর ছেলে।

পুলিশ, নিহতের পরিবার ও স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, পূর্বশত্রুতা ও  কাজে শ্রমিকদের পারিশ্রমিক দেওয়াকে কেন্দ্র করে তামিমের সঙ্গে প্রতিপক্ষের আমজাদ, শাহীন ও মোমিনের বাগবিতণ্ডা ও মারামারি হয়।

এ ঘটনায় ২৩ মার্চ ভেড়ামারা থানায় প্রতিপক্ষের বিরুদ্ধে লিখিত অভিযোগ দায়ের করেন তামিম।

থানায় অভিযোগ দেওয়ায় ক্ষিপ্ত হয়ে ২৬ মার্চ রাতে তামিমের ওপর হামলা চালায় আমজাদ, শাহীন, মোমিন ও তাদের লোকজন। এতে গুরুতর আহত অবস্থায় উদ্ধার করে প্রথমে ভেড়ামারা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স ও পরে কুষ্টিয়া জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। অবস্থা আশংকাজনক হওয়ায় তাকে রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে রেফার্ড করা হয়।

সেখানে চিকিৎসাধীন অবস্থায় ৩১মার্চ রবিবার রাত দেড়টার সময় চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন।

স্থানীয় ইউপি সদস্য আশরাফুল ইসলাম বলেন, তামাকের কাজের পারিশ্রমিক নিয়ে তামিমের সঙ্গে প্রতিপক্ষের বাগবিতণ্ডা ও মারামারি হয়। পরে আমজাদ, শাহীন ও তাদের লোকজন তামিমের ওপর সন্ত্রাসী হামলা করে। হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তামিম মারা গেছে।

মোকারিমপুর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আব্দুস সামাদ  বলেন, তামাকের কাজের পারিশ্রমিক নিয়ে মারামারি হয়। পরে প্রতিপক্ষের লোকজনদের কুড়ালের আঘাতে তামিমের মাথার খুলি ভেঙে যায়। রাজশাহীতে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তার মৃত্যু হয়েছে।

এ বিষয়ে ভেড়ামারা থানা পুলিশের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) জহুরুল ইসলাম  বলেন, তুচ্ছ বিষয়কে কেন্দ্র করে হত্যার ঘটনা ঘটেছে। বর্তমানে পরিস্থিতি স্বাভাবিক রয়েছে। ওই এলাকায় অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে। হামলার ঘটনায় মামলা হয়েছে। আসামিরা সবাই পলাতক রয়েছে। জড়িতদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।