ঢাকা , বৃহস্পতিবার, ১৮ এপ্রিল ২০২৪, ৫ বৈশাখ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
প্রতিনিধি নিয়োগ
দৈনিক সময়ের প্রত্যাশা পত্রিকার জন্য সারা দেশে জেলা ও উপজেলা পর্যায়ে প্রতিনিধি নিয়োগ করা হচ্ছে। আপনি আপনার এলাকায় সাংবাদিকতা পেশায় আগ্রহী হলে যোগাযোগ করুন।

চিকিৎসা দেওয়া হলো না গরীবের ডাক্তার হাসানের

প্রতি সোমবার নিজ এলাকায় অসহায় মানুষকে ফ্রি চিকিৎসা দিতেন ডাক্তার আবুল হাসান শেখ।  ১১ মার্চ সোমবার সকালে নিজে মোটরসাইকেল চালিয়ে এলাকায় ফিরছিলেন ফরিদপুরের আলফাডাঙ্গায়। সিরাজদিখান উপজেলার নিমতলা নামক এলাকায় ঢাকা-মাওয়া মহাসড়কে একটি প্রাইভেটকারে ধাক্কা দেয়। এ সময় হাসান ছিটকে পড়েন। চিকিৎসা দেওয়া হলো না হাসানের। দুর্ঘটনায় লাশ হয়ে ফিরলেন বাড়িতে।

 

আবুল হাসান আলফাডাঙ্গা উপজেলার বানা ইউনিয়নের আড়পাড়া গ্রামের শাহজাহান শেখের ছেলে। সোমবার রাতে নিজ এলাকায় একটি কবরস্থানে দাফন করা হয় তাকে। দুই বছর আগে হাসান রাজধানীর মগবাজার ডা. সিরাজুল ইসলাম মেডিকেল কলেজ থেকে এমবিবিএস পাশ করে ঢাকায় থাকতেন। পরিবারের মা-বাবা ছাড়াও ছোট চার বোন রয়েছে। প্রতি সোমবার নিজ এলাকায় রোগী দেখতেন তিনি।

 

একমাত্র ছেলেকে হারিয়ে মা-বাবা ও স্বজনদের আহাজারিতে সেখানে এক হৃদয় বিদারক দৃশ্যের অবতারণা হয় । আকস্মিক এই মৃত্যু কিছুতেই মেনে নিতে পারছেন না স্বজনরা।

 

বানা ইউনিয়নের ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক সাকিব হাসান বলেন, আমাদের খুব কাছের ছোট ভাই হাসান দুই বছর আগে ডাক্তার হয়ে এলাকায় মানুষের সেবা করতেন। নিয়মিত সোমবার রোগী দেখতেন। অসহায় রোগীদের ফ্রি চিকিৎসা দিতেন। তাঁর মৃত্যু আমরা কোনো ভাবেই মেনে নিতে পারছি না।

Tag :
এই অথরের আরো সংবাদ দেখুন

জনপ্রিয় সংবাদ
error: Content is protected !!

চিকিৎসা দেওয়া হলো না গরীবের ডাক্তার হাসানের

আপডেট টাইম : ১১:২১ পূর্বাহ্ন, বুধবার, ১৩ মার্চ ২০২৪

প্রতি সোমবার নিজ এলাকায় অসহায় মানুষকে ফ্রি চিকিৎসা দিতেন ডাক্তার আবুল হাসান শেখ।  ১১ মার্চ সোমবার সকালে নিজে মোটরসাইকেল চালিয়ে এলাকায় ফিরছিলেন ফরিদপুরের আলফাডাঙ্গায়। সিরাজদিখান উপজেলার নিমতলা নামক এলাকায় ঢাকা-মাওয়া মহাসড়কে একটি প্রাইভেটকারে ধাক্কা দেয়। এ সময় হাসান ছিটকে পড়েন। চিকিৎসা দেওয়া হলো না হাসানের। দুর্ঘটনায় লাশ হয়ে ফিরলেন বাড়িতে।

 

আবুল হাসান আলফাডাঙ্গা উপজেলার বানা ইউনিয়নের আড়পাড়া গ্রামের শাহজাহান শেখের ছেলে। সোমবার রাতে নিজ এলাকায় একটি কবরস্থানে দাফন করা হয় তাকে। দুই বছর আগে হাসান রাজধানীর মগবাজার ডা. সিরাজুল ইসলাম মেডিকেল কলেজ থেকে এমবিবিএস পাশ করে ঢাকায় থাকতেন। পরিবারের মা-বাবা ছাড়াও ছোট চার বোন রয়েছে। প্রতি সোমবার নিজ এলাকায় রোগী দেখতেন তিনি।

 

একমাত্র ছেলেকে হারিয়ে মা-বাবা ও স্বজনদের আহাজারিতে সেখানে এক হৃদয় বিদারক দৃশ্যের অবতারণা হয় । আকস্মিক এই মৃত্যু কিছুতেই মেনে নিতে পারছেন না স্বজনরা।

 

বানা ইউনিয়নের ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক সাকিব হাসান বলেন, আমাদের খুব কাছের ছোট ভাই হাসান দুই বছর আগে ডাক্তার হয়ে এলাকায় মানুষের সেবা করতেন। নিয়মিত সোমবার রোগী দেখতেন। অসহায় রোগীদের ফ্রি চিকিৎসা দিতেন। তাঁর মৃত্যু আমরা কোনো ভাবেই মেনে নিতে পারছি না।