ঢাকা , রবিবার, ১৬ জুন ২০২৪, ১ আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
সংবাদ শিরোনাম
Logo উপজেলা নির্বাচন পরবর্তী হামলা-ভাংচুরের অভিযোগ, আসামী গ্রেপ্তারের দাবি Logo খাগড়াছড়িতে জেলা পুলিশের উদ্যোগে বৃক্ষরোপন কর্মসূচী উদ্বোধন Logo ঈদকে সামনে রেখে হাতিয়ার গুরুত্বপূর্ণ ঘাটে কোস্টগার্ডের নিরাপত্তার জোরদার Logo সদরপুর ক্যাডেট স্কিম মাদরাসায় কুরআনের সবক Logo বোয়ালমারীতে ট্রাকের সংঘর্ষে মোটরসাইকেল চালক নিহত Logo জাতীয় সাংবাদিক সংস্থা নাগরপুর উপজেলা ইউনিটের নতুন কার্যালয় উদ্বোধন Logo সদরপুরে ঠেঙ্গামারী আলিয়া মাদরাসা ও এতিমখানার শুভ উদ্বোধন Logo ডাকাত সর্দারকে গ্রেফতার করেছে র‌্যাব Logo নড়াইলে মোটরসাইকেলের বেপরোয়া গতি কেঁড়ে নিলো কিশোরের প্রাণ Logo ভুয়া পরিচয়ে চার বছর ধরে দন্ত চিকিৎসকের জেল ও জরিমানা
প্রতিনিধি নিয়োগ
দৈনিক সময়ের প্রত্যাশা পত্রিকার জন্য সারা দেশে জেলা ও উপজেলা পর্যায়ে প্রতিনিধি নিয়োগ করা হচ্ছে। আপনি আপনার এলাকায় সাংবাদিকতা পেশায় আগ্রহী হলে যোগাযোগ করুন।

সালথায় তিন বাড়িতে দুর্ধর্ষ ডাকাতিঃ নগদ টাকা ও স্বর্ণালংকার লুট

ফরিদপুরের সালথায় পাশাপাশি তিন বাড়িতে দুর্ধর্ষ ডাকাতির ঘটনা ঘটেছে। ডাকাতদল ভুক্তভোগী পরিবারের সদস্যদের হাত-পা ও মুখ গামছা দিয়ে বেঁধে রেখে নগদ টাকা এবং স্বর্ণালংকারসহ মালামল লুট করে নিয়ে বলে জানা গেছে। রবিবার (১৭ ডিসেম্বর) গভীর রাতে উপজেলার গট্টি ইউনিয়নের দিয়াপাড়া গ্রামের বিজিবি সদস্য কাজী সাইদুল হক নিলু, মো. সোহেল মাতুব্বর ও মো. রবিউল হাসান রবিনের বাড়িতে এই ডাকাতির ঘটনা ঘটে।

 

ভুক্তভোগী সোহেল মাতুব্বরের স্ত্রী নার্গিস সুলতানা বলেন, ঘটনার রাতে আমার স্বামী বাড়িতে ছিলেন না। তিনি আটরশি দরবার শরিফে ছিলেন। বাড়িতে আমি আর আমার সন্তান ছিলাম। রাত আনুমানিক আড়াইটার আমাদের বাথরুমের ভেন্টিলেটার ও টিনের চালা টেকে ৫-৬ জনের মুখোশধারী ডাকাতদল ঘরে প্রবেশ করে। তারা প্রথমে আমাদের দুজনের হাত-পা ও মুখ গামছা দিয়ে বেঁধে ফেলে। পরে ডাকাতদল ঘরের ভেতরে আলমারিতে থাকা নগদ ৪ লাখ টাকা, ১.৫ ওজনের স্বর্ণালংকার, ৬.৫ ভরি ওজনের রুপার চেইন ও নুপুর, মোবাইল ও টিভি লুট করে নিয়ে যায়।

 

আরেক ভুক্তভোগী বিজিবি সদস্য কাজী সাইদুল হক নিলুর স্ত্রী জুলিয়া বেগম বলেন, আমার স্বামী বাড়িতে ছিলেন না। বাড়িতে আমি আর আমার শাশুড়ি ছিলাম। ডাকাতদল দরজা ভেঙে আমার ঘরে প্রবেশ একইভাবে আমাদের হাত-পা ও মুখ বেঁধে রেখে নগদ ১ লাখ ৬০ হাজার টাকা, ৪.৫ ভরি ওজনের স্বর্ণালংকার ও মোবাইলসহ মালামাল লুট করে নিয়ে। একই সময় প্রতিবেশী রবিউলের ঘরে ঢুকে নগদ ১৭ হাজার টাকা ও স্বর্ণালংকার নিয়ে যায়। তবে রবিউলের পরিবারের সদস্যরা কেউ ডাকাতির ঘটনার সময় বাড়িতে ছিলেন না। তিনি আরও বলেন, ডাকাতদলের সদসস্যদের মুখে মাক্স ও মাফলার পেঁচানো ছিল। তবে তারা আঞ্চলিক ভাষায় কথা বলেছেন।

 

 

সালথা থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মোহাম্মাদ ফায়েজুর রহমান বলেন, ডাকাতির খবর পেয়ে ভুক্তভোগিদের বাড়িতে খোঁজখবর নেওয়া হয়েছে। মামলা অনুয়ায়ী দ্রুত আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

Tag :
এই অথরের আরো সংবাদ দেখুন

জনপ্রিয় সংবাদ

উপজেলা নির্বাচন পরবর্তী হামলা-ভাংচুরের অভিযোগ, আসামী গ্রেপ্তারের দাবি

error: Content is protected !!

সালথায় তিন বাড়িতে দুর্ধর্ষ ডাকাতিঃ নগদ টাকা ও স্বর্ণালংকার লুট

আপডেট টাইম : ০৩:৩০ অপরাহ্ন, সোমবার, ১৮ ডিসেম্বর ২০২৩

ফরিদপুরের সালথায় পাশাপাশি তিন বাড়িতে দুর্ধর্ষ ডাকাতির ঘটনা ঘটেছে। ডাকাতদল ভুক্তভোগী পরিবারের সদস্যদের হাত-পা ও মুখ গামছা দিয়ে বেঁধে রেখে নগদ টাকা এবং স্বর্ণালংকারসহ মালামল লুট করে নিয়ে বলে জানা গেছে। রবিবার (১৭ ডিসেম্বর) গভীর রাতে উপজেলার গট্টি ইউনিয়নের দিয়াপাড়া গ্রামের বিজিবি সদস্য কাজী সাইদুল হক নিলু, মো. সোহেল মাতুব্বর ও মো. রবিউল হাসান রবিনের বাড়িতে এই ডাকাতির ঘটনা ঘটে।

 

ভুক্তভোগী সোহেল মাতুব্বরের স্ত্রী নার্গিস সুলতানা বলেন, ঘটনার রাতে আমার স্বামী বাড়িতে ছিলেন না। তিনি আটরশি দরবার শরিফে ছিলেন। বাড়িতে আমি আর আমার সন্তান ছিলাম। রাত আনুমানিক আড়াইটার আমাদের বাথরুমের ভেন্টিলেটার ও টিনের চালা টেকে ৫-৬ জনের মুখোশধারী ডাকাতদল ঘরে প্রবেশ করে। তারা প্রথমে আমাদের দুজনের হাত-পা ও মুখ গামছা দিয়ে বেঁধে ফেলে। পরে ডাকাতদল ঘরের ভেতরে আলমারিতে থাকা নগদ ৪ লাখ টাকা, ১.৫ ওজনের স্বর্ণালংকার, ৬.৫ ভরি ওজনের রুপার চেইন ও নুপুর, মোবাইল ও টিভি লুট করে নিয়ে যায়।

 

আরেক ভুক্তভোগী বিজিবি সদস্য কাজী সাইদুল হক নিলুর স্ত্রী জুলিয়া বেগম বলেন, আমার স্বামী বাড়িতে ছিলেন না। বাড়িতে আমি আর আমার শাশুড়ি ছিলাম। ডাকাতদল দরজা ভেঙে আমার ঘরে প্রবেশ একইভাবে আমাদের হাত-পা ও মুখ বেঁধে রেখে নগদ ১ লাখ ৬০ হাজার টাকা, ৪.৫ ভরি ওজনের স্বর্ণালংকার ও মোবাইলসহ মালামাল লুট করে নিয়ে। একই সময় প্রতিবেশী রবিউলের ঘরে ঢুকে নগদ ১৭ হাজার টাকা ও স্বর্ণালংকার নিয়ে যায়। তবে রবিউলের পরিবারের সদস্যরা কেউ ডাকাতির ঘটনার সময় বাড়িতে ছিলেন না। তিনি আরও বলেন, ডাকাতদলের সদসস্যদের মুখে মাক্স ও মাফলার পেঁচানো ছিল। তবে তারা আঞ্চলিক ভাষায় কথা বলেছেন।

 

 

সালথা থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মোহাম্মাদ ফায়েজুর রহমান বলেন, ডাকাতির খবর পেয়ে ভুক্তভোগিদের বাড়িতে খোঁজখবর নেওয়া হয়েছে। মামলা অনুয়ায়ী দ্রুত আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে।