ঢাকা , রবিবার, ১৪ জুলাই ২০২৪, ৩০ আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
সংবাদ শিরোনাম
Logo ইতালিতে ইদ্রিস ফরাজিকে নাগরিক সংবর্ধনা প্রদান Logo রেললাইনে ছবি তুলতে গিয়ে ট্রেনের ধাক্কায় মা ও মেয়ে নিহত Logo দুই বঙ্গকন্যা ব্রিটিশ মন্ত্রীসভায় স্থান পাওয়াতে বঙ্গবন্ধু লেখক সাংবাদিক ফোরামের আনন্দ সভা ও মিষ্টি বিতরন Logo স্মার্ট বাংলাদেশ গঠনে বাংলাদেশ স্কাউটস হবে আলোকবর্তিকাঃ -এলজিআরডি প্রতিমন্ত্রী Logo বাঘায় ৬০০ (ছয়শত) পিচ ইয়াবা ট্যাবলেট সহ রাজিব গ্রেফতার Logo গোয়ালন্দে চরমপন্থী দলের সদস্যকে পিটিয়ে হত্যা Logo মাছের উপজেলায় মাছ নেই Logo কুষ্টিয়ায় ব্যবসায়ীকে কুপিয়ে হত্যা Logo নড়াইলের স্মার্ট লোহাগড়া গড়ার লক্ষ্যে সৌন্দর্যবর্ধন কর্মসুচির উদ্বোধন Logo স্থানীয় সরকার প্রকৌশল অধিদপ্তর এলজিইডির উদ্যোগে চেক ও সনদপত্র বিতরণ অনুষ্ঠিত
প্রতিনিধি নিয়োগ
দৈনিক সময়ের প্রত্যাশা পত্রিকার জন্য সারা দেশে জেলা ও উপজেলা পর্যায়ে প্রতিনিধি নিয়োগ করা হচ্ছে। আপনি আপনার এলাকায় সাংবাদিকতা পেশায় আগ্রহী হলে যোগাযোগ করুন।

ইবি বিশ্ববিদ্যালয়ের বাসচালককে মারধরের অভিযোগ

ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ের (ইবি) নিজস্ব বাসের চালককে মারধরের অভিযোগ উঠেছে ক্যাম্পাসের ভাড়া বাস সুরাইল পরিবহনের চালক ও হেলপারের বিরুদ্ধে। শনিবার (১১ নভেম্বর) সকালে ক্যাম্পাস পার্শ্ববর্তী বৃত্তিপাড়া নামক স্থানে এ ঘটনা ঘটে। পরে ভুক্তভোগী চালক মোমিন শেখ বিশ্ববিদ্যালয়ের পরিবহন অফিসে লিখিত অভিযোগ করেন।

 

লিখিত অভিযোগে তিনি বলেন, সকালে ক্যাম্পাস থেকে কুষ্টিয়া যাওয়ার পথে বৃত্তিপাড়া নামক স্থানে জ্যামে আটকা পড়লে দেখতে পাই যে, বিশ্ববিদ্যালয়ের ভাড়া করা গাড়ি বাইরের যাত্রী উঠানোর জন্য রাস্তার ওপর দাঁড়িয়ে জ্যামের সৃষ্টি করেছে। আমি গাড়ি থেকে নেমে সামনে থেকে সুরাইল পরিবহনের চালককে দ্রুত রাস্তা ছেড়ে দিতে বললে হঠাৎ করেই চালক ও হেলপার আমার ওপর চড়াও হয় এবং একপর্যায়ে আমাকে ব্যাপক মারধর করে।

 

পরে চালক সালাহউদ্দিন ভাই আমাকে বাঁচাতে এলে তাকেও ব্যাপক মারধর করে এবং আমার চালিত গাড়ির লুকিং গ্লাস ভেঙে ফেলে। এ সময় আমার একটি স্মার্টফোন ভেঙে যায়, দুজনের শার্ট ছিঁড়ে যায়। হামলাকারীরা সালাহউদ্দিনের পকেটে থাকা দশ হাজার সাতশত টাকা ছিনিয়ে নেয় এবং রড, লাঠিসোঁটাসহ আরও লোক ডেকে এনে আমাদের মারধর করে।

 

 

অভিযোগে আরও জানান, সুরাইল পরিবহনের চালক জসিম, হেলপার লালন, গঞ্জরুবি গ্রামের জুয়েল এবং রবিউলসহ প্রায় ৩০ জন মিলে তাদের ওপর এ হামলা চালায়। তিনি অভিযুক্তদের দ্রুত আইনের আওতায় এনে শাস্তির দাবি জানান।

 

এ বিষয়ে অভিযুক্ত সুরাইল পরিবহনের চালক জসিম বলেন, ‘আমি ঘটনার সময় বাস থেকে নামিইনি। এমনিতেই প্রতিটি বাজারে ভ্যান, সিএনজি পরিবহনের জন্য জ্যাম থাকে। তো ওই সময় জ্যাম সৃষ্টি হলে সরকারি বাসের ড্রাইভার এসে আমাদের হেলপারকে বকাবকি করেন ও মারতে উদ্যত হন। এ সময় আমি বাস সামনে এগিয়ে সাইড দিই তাদের। হেলপারের বাড়ি ওই এলাকায় হওয়ায় মুহূর্তের মধ্যে অনেক লোকের সমাগম হয় এবং মারামারির সৃষ্টি হয়। এতে আমার বাসের হেলপার প্রচণ্ড মারধরের শিকার হয়।’

 

বিষয়টি নিয়ে বিশ্ববিদ্যালয়ের পরিবহন প্রশাসক অধ্যাপক ড. আনোয়ার হোসেন বলেন, ‘ঘটনাটি খুবই দুঃখজনক। জানতে পেরেছি তারা লিখিত অভিযোগ দিয়েছেন। লিখিত অভিযোগ যেহেতু পেয়েছি আমরা পরবর্তী সময়ে আইনি ব্যবস্থা গ্রহণ করবো।’

 

এ বিষয়ে বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টর অধ্যাপক ড. শাহাদৎ হোসেন আজাদ বলেন, ‘এটা আমরা সকালের দিকে জেনেছি। পরে ভুক্তভোগী পরিবহন অফিসে অভিযোগ করলে আমাদের কাছে সেটার একটি অনুলিপি আসে। পরবর্তী সময়ে ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য সেটা রেজিস্ট্রার বরাবর পাঠিয়ে দিয়েছি।

 

 

প্রশাসন কী ধরনের ব্যবস্থা গ্রহণ করবে জানতে চাইলে বিশ্ববিদ্যালয়ের রেজিস্ট্রার এইচ এম আলী হাসান বলেন, আমার কাছে একটি কপি এসেছিল। আমি ফাইলটি উপউপাচার্য বরাবর পাঠিয়েছি। তিনি ক্লাসে আছেন। না আসা পর্যন্ত কী ধরনের ব্যবস্থা গ্রহণ করবে জানানো যাচ্ছে না।

Tag :
এই অথরের আরো সংবাদ দেখুন

জনপ্রিয় সংবাদ

ইতালিতে ইদ্রিস ফরাজিকে নাগরিক সংবর্ধনা প্রদান

error: Content is protected !!

ইবি বিশ্ববিদ্যালয়ের বাসচালককে মারধরের অভিযোগ

আপডেট টাইম : ১১:৪১ অপরাহ্ন, শনিবার, ১১ নভেম্বর ২০২৩

ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ের (ইবি) নিজস্ব বাসের চালককে মারধরের অভিযোগ উঠেছে ক্যাম্পাসের ভাড়া বাস সুরাইল পরিবহনের চালক ও হেলপারের বিরুদ্ধে। শনিবার (১১ নভেম্বর) সকালে ক্যাম্পাস পার্শ্ববর্তী বৃত্তিপাড়া নামক স্থানে এ ঘটনা ঘটে। পরে ভুক্তভোগী চালক মোমিন শেখ বিশ্ববিদ্যালয়ের পরিবহন অফিসে লিখিত অভিযোগ করেন।

 

লিখিত অভিযোগে তিনি বলেন, সকালে ক্যাম্পাস থেকে কুষ্টিয়া যাওয়ার পথে বৃত্তিপাড়া নামক স্থানে জ্যামে আটকা পড়লে দেখতে পাই যে, বিশ্ববিদ্যালয়ের ভাড়া করা গাড়ি বাইরের যাত্রী উঠানোর জন্য রাস্তার ওপর দাঁড়িয়ে জ্যামের সৃষ্টি করেছে। আমি গাড়ি থেকে নেমে সামনে থেকে সুরাইল পরিবহনের চালককে দ্রুত রাস্তা ছেড়ে দিতে বললে হঠাৎ করেই চালক ও হেলপার আমার ওপর চড়াও হয় এবং একপর্যায়ে আমাকে ব্যাপক মারধর করে।

 

পরে চালক সালাহউদ্দিন ভাই আমাকে বাঁচাতে এলে তাকেও ব্যাপক মারধর করে এবং আমার চালিত গাড়ির লুকিং গ্লাস ভেঙে ফেলে। এ সময় আমার একটি স্মার্টফোন ভেঙে যায়, দুজনের শার্ট ছিঁড়ে যায়। হামলাকারীরা সালাহউদ্দিনের পকেটে থাকা দশ হাজার সাতশত টাকা ছিনিয়ে নেয় এবং রড, লাঠিসোঁটাসহ আরও লোক ডেকে এনে আমাদের মারধর করে।

 

 

অভিযোগে আরও জানান, সুরাইল পরিবহনের চালক জসিম, হেলপার লালন, গঞ্জরুবি গ্রামের জুয়েল এবং রবিউলসহ প্রায় ৩০ জন মিলে তাদের ওপর এ হামলা চালায়। তিনি অভিযুক্তদের দ্রুত আইনের আওতায় এনে শাস্তির দাবি জানান।

 

এ বিষয়ে অভিযুক্ত সুরাইল পরিবহনের চালক জসিম বলেন, ‘আমি ঘটনার সময় বাস থেকে নামিইনি। এমনিতেই প্রতিটি বাজারে ভ্যান, সিএনজি পরিবহনের জন্য জ্যাম থাকে। তো ওই সময় জ্যাম সৃষ্টি হলে সরকারি বাসের ড্রাইভার এসে আমাদের হেলপারকে বকাবকি করেন ও মারতে উদ্যত হন। এ সময় আমি বাস সামনে এগিয়ে সাইড দিই তাদের। হেলপারের বাড়ি ওই এলাকায় হওয়ায় মুহূর্তের মধ্যে অনেক লোকের সমাগম হয় এবং মারামারির সৃষ্টি হয়। এতে আমার বাসের হেলপার প্রচণ্ড মারধরের শিকার হয়।’

 

বিষয়টি নিয়ে বিশ্ববিদ্যালয়ের পরিবহন প্রশাসক অধ্যাপক ড. আনোয়ার হোসেন বলেন, ‘ঘটনাটি খুবই দুঃখজনক। জানতে পেরেছি তারা লিখিত অভিযোগ দিয়েছেন। লিখিত অভিযোগ যেহেতু পেয়েছি আমরা পরবর্তী সময়ে আইনি ব্যবস্থা গ্রহণ করবো।’

 

এ বিষয়ে বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টর অধ্যাপক ড. শাহাদৎ হোসেন আজাদ বলেন, ‘এটা আমরা সকালের দিকে জেনেছি। পরে ভুক্তভোগী পরিবহন অফিসে অভিযোগ করলে আমাদের কাছে সেটার একটি অনুলিপি আসে। পরবর্তী সময়ে ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য সেটা রেজিস্ট্রার বরাবর পাঠিয়ে দিয়েছি।

 

 

প্রশাসন কী ধরনের ব্যবস্থা গ্রহণ করবে জানতে চাইলে বিশ্ববিদ্যালয়ের রেজিস্ট্রার এইচ এম আলী হাসান বলেন, আমার কাছে একটি কপি এসেছিল। আমি ফাইলটি উপউপাচার্য বরাবর পাঠিয়েছি। তিনি ক্লাসে আছেন। না আসা পর্যন্ত কী ধরনের ব্যবস্থা গ্রহণ করবে জানানো যাচ্ছে না।