ঢাকা , মঙ্গলবার, ২৩ জুলাই ২০২৪, ৭ শ্রাবণ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
সংবাদ শিরোনাম
Logo ভাঙ্গায় দুটি বাসের সংঘর্ষে তিন জন নিহত, আহত ৩০ Logo নড়াইলে বিনামূল্যে স্বাস্থ্যসেবা সহায়তা প্রদান Logo বিদেশি পিস্তল ও গুলিসহ বাঘায় র‌্যাব কর্তৃক ২ জন অস্ত্র ব্যবসায়ী গ্রেপ্তার Logo গোমস্তাপুরে পুকুরে ডুবে এক শিশুর মৃত্যু Logo কালুখালীতে গোসল করতে গিয়ে যুবকের মৃত্যু Logo ফরিদপুর শহর ‌কৃষকলীগের বৃক্ষরোপণ ‌ও কর্মী সভা অনুষ্ঠিত Logo গোয়ালন্দে পবিত্র আশুরা উপলক্ষে তাজিয়া মিছিল অনুষ্ঠিত Logo তানোরে বঙ্গবন্ধু অনূর্ধ্ব-১৭ ফুটবল টুর্নামেন্ট সম্পন্ন Logo দেড় ঘণ্টার নোটিশে ইবির হল ছাড়ার নির্দেশ, বিপাকে শিক্ষার্থীরা Logo সদরপুরে মিথ্যা-ভিত্তিহীন সংবাদের প্রতিবাদে ভাষাণচর ইউপি চেয়ারম্যানের সংবাদ সম্মেলন
প্রতিনিধি নিয়োগ
দৈনিক সময়ের প্রত্যাশা পত্রিকার জন্য সারা দেশে জেলা ও উপজেলা পর্যায়ে প্রতিনিধি নিয়োগ করা হচ্ছে। আপনি আপনার এলাকায় সাংবাদিকতা পেশায় আগ্রহী হলে যোগাযোগ করুন।

সমাধিতে পুষ্পার্ঘ অর্পণ, আলোচনা ও দোয়া অনুষ্ঠান

পাংশায় সাহিত্যিক এয়াকুব আলী চৌধুরীর ৭৯তম মৃত্যুবার্ষিকী পালিত

পাংশায় মঙ্গলবার সকালে সাহিত্যিক এয়াকুব আলী চৌধুরীর ৭৯তম মৃত্যুবার্ষিকীর অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্য রাখছেন পৌর মেয়র আব্দুল আল মাসুদ।

রাজবাড়ী জেলার পাংশা উপজেলায় মঙ্গলবার ১৫ ডিসেম্বর সাহিত্যিক এয়াকুব আলী চৌধুরীর ৭৯তম মৃত্যুবার্ষিকী পালিত হয়েছে। এ উপলক্ষে পাংশা পৌরশহরের মাগুড়াডাঙ্গী গ্রামে সাহিত্যিক এয়াকুব আলী চৌধুরীর সমাধিতে পুষ্পার্ঘ অর্পণ, আলোচনা ও দোয়া অনুষ্ঠিত হয়েছে।

জানা যায়, সকাল ৮টায় এয়াকুব আলী চৌধুরী স্মৃতি পাঠাগার, পাংশা ও কালুখালী উপজেলা শিক্ষা কল্যাণ ট্রাস্ট, পাংশা সরকারী কলেজ, পাংশা মহিলা কলেজ, কাজী আব্দুল মাজেদ একাডেমী, পাংশা জর্জ সরকারী উচ্চ বিদ্যালয়, এয়াকুব আলী চৌধুরী বিদ্যাপীঠ, পাংশা পাইলট উচ্চ বালিকা বিদ্যালয়, মাগুড়াডাঙ্গী আব্দুল মাজেদ সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়, পাংশা সাহিত্য উন্নয়ন পরিষদ, শিল্পকলা একাডেমী ও সাংস্কৃতিক সংগঠন নাট্যালোকসহ বিভিন্ন শিক্ষা, সাহিত্য ও সাংস্কৃতিক সংগঠন এবং বিশিষ্ট ব্যক্তিগণ সাহিত্যিক এয়াকুব আলী চৌধুরীর সমাধিতে পুষ্পার্ঘ অর্পণ করে শ্রদ্ধা নিবেদন করেন।

এরপর উপজেলা নির্বাহী অফিসার ও এয়াকুব আলী চৌধুরী স্মৃতি পাঠাগারের সভাপতি বিপুল চন্দ্র দাসের সভাপতিত্বে আলোচনা অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে পাংশা পৌরসভার মেয়র ও এয়াকুব আলী চৌধুরী স্মৃতি কমপ্লেক্স (প্রস্তাবিত) নির্মাণের উদ্যোক্তা আব্দুল আল মাসুদ বক্তব্য রাখেন। তিনি বলেন, কোহিনূর পত্রিকা সম্পাদক রওশন আলী চৌধুরী, সাহিত্যিক ও সাংবাদিক এয়াকুব আলী চৌধুরী এবং রোকনুজ্জামান খান দাদা ভাইয়ের জন্ম এই মাটিতে। পাংশার মাটিতে এসব গুণী মানুষের জন্ম হওয়ায় আমরা গর্ববোধ করি।

এসব আলোকিত মানুষের জীবন ও সাহিত্যকর্ম নতুন প্রজন্মের মাঝে তুলে ধরতে হবে। এ জন্য শিক্ষক, লেখক-সাহিত্যিক-সাংবাদিকদের অগ্রণী ভ‚মিকা পালন করতে হবে। তিনি বলেন, সরকারিভাবে সাহিত্যিক এয়াকুব আলী চৌধুরী স্মৃতি কমপ্লেক্স প্রতিষ্ঠার জন্য যে জমি দরকার তা আমরা স্থানীয়ভাবে আলোচনা করে ব্যবস্থা করেছি। কমপ্লেক্স প্রতিষ্ঠার ক্ষেত্রে সাংস্কৃতিক মন্ত্রণালয়ে যোগাযোগ এবং এ বিষয়ে কাগজপত্র প্রস্তুতের বিষয়টি প্রক্রিয়াধীন রয়েছে। করোনার দ্বিতীয় ঢেউ মোকাবেলায় সবাইকে মাস্ক ব্যবহারসহ স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলার আহবান জানান তিনি।

অনুষ্ঠানে স্থানীয় কলেজসমূহের পক্ষ থেকে পাংশা মহিলা কলেজের সহকারী অধ্যাপক এম.এ জিন্নাহ, উচ্চ বিদ্যালয়সমূহের পক্ষ থেকে এয়াকুব আলী চৌধুরী বিদ্যাপীঠের প্রধান শিক্ষক মোতাহার হোসেন ও সাংবাদিক মোক্তার হোসেন প্রমূখ বক্তব্য রাখেন। স্বাগত বক্তব্য রাখেন নওশাদ আলী চৌধুরী। উপস্থাপনা করেন এয়াকুব আলী চৌধুরী স্মৃতি পাঠাগারের দপ্তর সম্পাদক শেখ মোহাম্মদ সবুর উদ্দিন। দোয়া ও মোনাজাত পরিচালনা করেন পাংশা সাহিত্য উন্নয়ন পরিষদের সভাপতি আলহাজ্ব মোহাম্মদ ফিরোজ হায়দার।

অনুষ্ঠানে ড.কাজী মোতাহার হোসেন কলেজের অবসরপ্রাপ্ত অধ্যক্ষ বিকাশ চন্দ্র বসু, পাংশা শিল্প ও বণিক সমিতির সাবেক সাধারণ সম্পাদক কাজী আসকার দানিয়েল সিপার, পাংশা ও কালুখালী উপজেলা শিক্ষা কল্যাণ ট্রাস্টের সাধারণ সম্পাদক ও উদয়পুর উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক শামসুল আলম, কাজী আব্দুল মাজেদ একাডেমীর প্রধান শিক্ষক মুহা. শাহাদত হোসেন, পাংশা পাইলট উচ্চ বালিকা বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক সান্তনা দাস, কাজী আব্দুল মাজেদ সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক গোলাপজান নেছা, কবি মোল্লা মাজেদ ও আবু জালাল, পাংশা উপজেলা ফল ব্যবসায়ী সমিতি লীগের আহবায়ক রফিকুল ইসলাম মোল্লা, পাংশা উপজেলা শিল্পকলা একাডেমীর সাধারণ সম্পাদক রিয়াজুল ইসলাম জাহাঙ্গীরসহ বিভিন্ন শ্রেণি পেশার লোকজন উপস্থিত ছিলেন।

উল্লেখ্য, সাহিত্যিক এয়াকুব আলী চৌধুরীর প্রকাশিত গ্রন্থসমূহের মধ্যে রয়েছে ধর্মের কাহিনী (১৯১৪), নূরনবী (১৯১৮), শান্তিধারা (১৯১৯) ও মানব মুকুট (১৯২২)।

এছাড়া বাংলা একাডেমী প্রকাশ করেছে এয়াকুব আলী চৌধুরী অপ্রকাশিত রচনা নামীয় একটি গ্রন্থ। এর সম্পাদক আমীনুর রহমান। ইসলামিক ফাউন্ডেশন থেকে অধ্যাপক আবুল হোসেন মল্লিক রচিত এয়াকুব আলী চৌধুরী জীবন ও সাহিত্য (১৯৮৬) প্রকাশিত হয়। সাহিত্যিক এয়াকুব আলী চৌধুরী ১৮৮৬ সালে পাংশা শহরের মাগুড়াডাঙ্গী গ্রামে জন্মগ্রহণ করেন এবং ১৯৪০ সালের ১৫ ডিসেম্বর মারা যান তিনি।

Tag :
এই অথরের আরো সংবাদ দেখুন

জনপ্রিয় সংবাদ

ভাঙ্গায় দুটি বাসের সংঘর্ষে তিন জন নিহত, আহত ৩০

error: Content is protected !!

সমাধিতে পুষ্পার্ঘ অর্পণ, আলোচনা ও দোয়া অনুষ্ঠান

পাংশায় সাহিত্যিক এয়াকুব আলী চৌধুরীর ৭৯তম মৃত্যুবার্ষিকী পালিত

আপডেট টাইম : ০৮:১১ অপরাহ্ন, মঙ্গলবার, ১৫ ডিসেম্বর ২০২০

রাজবাড়ী জেলার পাংশা উপজেলায় মঙ্গলবার ১৫ ডিসেম্বর সাহিত্যিক এয়াকুব আলী চৌধুরীর ৭৯তম মৃত্যুবার্ষিকী পালিত হয়েছে। এ উপলক্ষে পাংশা পৌরশহরের মাগুড়াডাঙ্গী গ্রামে সাহিত্যিক এয়াকুব আলী চৌধুরীর সমাধিতে পুষ্পার্ঘ অর্পণ, আলোচনা ও দোয়া অনুষ্ঠিত হয়েছে।

জানা যায়, সকাল ৮টায় এয়াকুব আলী চৌধুরী স্মৃতি পাঠাগার, পাংশা ও কালুখালী উপজেলা শিক্ষা কল্যাণ ট্রাস্ট, পাংশা সরকারী কলেজ, পাংশা মহিলা কলেজ, কাজী আব্দুল মাজেদ একাডেমী, পাংশা জর্জ সরকারী উচ্চ বিদ্যালয়, এয়াকুব আলী চৌধুরী বিদ্যাপীঠ, পাংশা পাইলট উচ্চ বালিকা বিদ্যালয়, মাগুড়াডাঙ্গী আব্দুল মাজেদ সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়, পাংশা সাহিত্য উন্নয়ন পরিষদ, শিল্পকলা একাডেমী ও সাংস্কৃতিক সংগঠন নাট্যালোকসহ বিভিন্ন শিক্ষা, সাহিত্য ও সাংস্কৃতিক সংগঠন এবং বিশিষ্ট ব্যক্তিগণ সাহিত্যিক এয়াকুব আলী চৌধুরীর সমাধিতে পুষ্পার্ঘ অর্পণ করে শ্রদ্ধা নিবেদন করেন।

এরপর উপজেলা নির্বাহী অফিসার ও এয়াকুব আলী চৌধুরী স্মৃতি পাঠাগারের সভাপতি বিপুল চন্দ্র দাসের সভাপতিত্বে আলোচনা অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে পাংশা পৌরসভার মেয়র ও এয়াকুব আলী চৌধুরী স্মৃতি কমপ্লেক্স (প্রস্তাবিত) নির্মাণের উদ্যোক্তা আব্দুল আল মাসুদ বক্তব্য রাখেন। তিনি বলেন, কোহিনূর পত্রিকা সম্পাদক রওশন আলী চৌধুরী, সাহিত্যিক ও সাংবাদিক এয়াকুব আলী চৌধুরী এবং রোকনুজ্জামান খান দাদা ভাইয়ের জন্ম এই মাটিতে। পাংশার মাটিতে এসব গুণী মানুষের জন্ম হওয়ায় আমরা গর্ববোধ করি।

এসব আলোকিত মানুষের জীবন ও সাহিত্যকর্ম নতুন প্রজন্মের মাঝে তুলে ধরতে হবে। এ জন্য শিক্ষক, লেখক-সাহিত্যিক-সাংবাদিকদের অগ্রণী ভ‚মিকা পালন করতে হবে। তিনি বলেন, সরকারিভাবে সাহিত্যিক এয়াকুব আলী চৌধুরী স্মৃতি কমপ্লেক্স প্রতিষ্ঠার জন্য যে জমি দরকার তা আমরা স্থানীয়ভাবে আলোচনা করে ব্যবস্থা করেছি। কমপ্লেক্স প্রতিষ্ঠার ক্ষেত্রে সাংস্কৃতিক মন্ত্রণালয়ে যোগাযোগ এবং এ বিষয়ে কাগজপত্র প্রস্তুতের বিষয়টি প্রক্রিয়াধীন রয়েছে। করোনার দ্বিতীয় ঢেউ মোকাবেলায় সবাইকে মাস্ক ব্যবহারসহ স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলার আহবান জানান তিনি।

অনুষ্ঠানে স্থানীয় কলেজসমূহের পক্ষ থেকে পাংশা মহিলা কলেজের সহকারী অধ্যাপক এম.এ জিন্নাহ, উচ্চ বিদ্যালয়সমূহের পক্ষ থেকে এয়াকুব আলী চৌধুরী বিদ্যাপীঠের প্রধান শিক্ষক মোতাহার হোসেন ও সাংবাদিক মোক্তার হোসেন প্রমূখ বক্তব্য রাখেন। স্বাগত বক্তব্য রাখেন নওশাদ আলী চৌধুরী। উপস্থাপনা করেন এয়াকুব আলী চৌধুরী স্মৃতি পাঠাগারের দপ্তর সম্পাদক শেখ মোহাম্মদ সবুর উদ্দিন। দোয়া ও মোনাজাত পরিচালনা করেন পাংশা সাহিত্য উন্নয়ন পরিষদের সভাপতি আলহাজ্ব মোহাম্মদ ফিরোজ হায়দার।

অনুষ্ঠানে ড.কাজী মোতাহার হোসেন কলেজের অবসরপ্রাপ্ত অধ্যক্ষ বিকাশ চন্দ্র বসু, পাংশা শিল্প ও বণিক সমিতির সাবেক সাধারণ সম্পাদক কাজী আসকার দানিয়েল সিপার, পাংশা ও কালুখালী উপজেলা শিক্ষা কল্যাণ ট্রাস্টের সাধারণ সম্পাদক ও উদয়পুর উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক শামসুল আলম, কাজী আব্দুল মাজেদ একাডেমীর প্রধান শিক্ষক মুহা. শাহাদত হোসেন, পাংশা পাইলট উচ্চ বালিকা বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক সান্তনা দাস, কাজী আব্দুল মাজেদ সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক গোলাপজান নেছা, কবি মোল্লা মাজেদ ও আবু জালাল, পাংশা উপজেলা ফল ব্যবসায়ী সমিতি লীগের আহবায়ক রফিকুল ইসলাম মোল্লা, পাংশা উপজেলা শিল্পকলা একাডেমীর সাধারণ সম্পাদক রিয়াজুল ইসলাম জাহাঙ্গীরসহ বিভিন্ন শ্রেণি পেশার লোকজন উপস্থিত ছিলেন।

উল্লেখ্য, সাহিত্যিক এয়াকুব আলী চৌধুরীর প্রকাশিত গ্রন্থসমূহের মধ্যে রয়েছে ধর্মের কাহিনী (১৯১৪), নূরনবী (১৯১৮), শান্তিধারা (১৯১৯) ও মানব মুকুট (১৯২২)।

এছাড়া বাংলা একাডেমী প্রকাশ করেছে এয়াকুব আলী চৌধুরী অপ্রকাশিত রচনা নামীয় একটি গ্রন্থ। এর সম্পাদক আমীনুর রহমান। ইসলামিক ফাউন্ডেশন থেকে অধ্যাপক আবুল হোসেন মল্লিক রচিত এয়াকুব আলী চৌধুরী জীবন ও সাহিত্য (১৯৮৬) প্রকাশিত হয়। সাহিত্যিক এয়াকুব আলী চৌধুরী ১৮৮৬ সালে পাংশা শহরের মাগুড়াডাঙ্গী গ্রামে জন্মগ্রহণ করেন এবং ১৯৪০ সালের ১৫ ডিসেম্বর মারা যান তিনি।